খুলনা | শনিবার | ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ | ১ পৌষ ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

পরিবেশ অধিদপ্তরের শর্ত ভঙ্গ

ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় পলিথিন কারখানা দিনে-রাতে উৎপাদন : পরিবেশ বিপর্যয়

নিজস্ব প্রতিবেদক | প্রকাশিত ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০১:৩০:০০

নগরীর ঘন বসতিপূর্ণ আবাসিক এলাকায় দিনে-রাতে উৎপাদন চলছে পলিথিন কারখানায়। চরম বায়ু ও শব্দ দূষণ, পুরাতন পলিথিনের বর্জ্যে পরিবেশ বিপর্যয় ঘটছে। শ্বাস কষ্ট ও চর্ম রোগসহ নানাবিধ ব্যাধিতে আক্রান্ত হচ্ছে আবাসিক এলাকার বাসিন্দারা। পরিবেশ অধিদপ্তরের শর্ত ভঙ্গ করে এতো কিছুর পরও অদৃশ্য কারণে নিরব সরকারি এ সংস্থাটি। নগরীর সোনাডাঙ্গার হাফিজ নগরের মেসার্স সাদিয়া এন্টারপ্রাইজ এন্ড প্লাস্টিক কারখানাকে সর্বশেষ গত ২৬ আগস্ট কারণ দর্শানো নোটিশ দিলেও বন্ধ হয়নি পরিবেশ দুষণ। গতকাল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় উঠে বিষয়টি ঘিরে।
সরেজমিনে দেখা গেছে, পরিবেশ অধিদপ্তরের বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক সরদার শরীফুল ইসলাম স্বাক্ষরিত পত্রটি দেয়া হয় হাফিজ নগরের মেসার্স সাদিয়া এন্টারপ্রাইজ এন্ড প্লাস্টিক কারখানার মালিক মোঃ মঈন উদ্দিনকে। যদিও ওই কারখানায় কোন সাইন বোর্ড নেই। বছর খানেক ধরেই কারখানাটি দিন-রাত ২৪ ঘন্টা চলছে সাইন বোর্ডবিহীন। তবে ঈদ-উল-আযহার আগে স্থানীয় কাউন্সিলর শেখ হাফিজুর রহমান হাফিজ এলাকাবাসীকে সাথে নিয়ে পলিথিন কারখানাটি বন্ধের নির্দেশ দেন। পরে কারখানা মালিক ঈদ পর্যন্ত চালানোর অনুরোধ করেন। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে- কারখানাটি দিনে-রাতে চলছে; হচ্ছে পরিবেশ দূষণ। এছাড়া বার্মাশিল রোডে দু’টি, বান্দা বাজারে একটি ও লবণচরাসহ খালিশপুর, দৌলতপুরে কয়েকটি পলিথিন কারখানার সন্ধান পাওয়া গেছে। যার সবগুলোই চলছে পরিবেশ অধিদপ্তরের শর্ত ভঙ্গ করে।
পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে দেয়া পত্রে উল্লেখ করা হয়, হাফিজ নগরের মেসার্স সাদিয়া এন্টারপ্রাইজ এন্ড প্লাস্টিক কারখানার পরিবেশগত ছাড়পত্রে পিপি দানা হতে রোল পলিথিন ও সেচ পাইপ প্রস্তুতের অনুমোদন থাকলেও সেখানে শর্ত ভঙ্গ করে পরিত্যক্ত পলিথিন হতে নিম্নমানের দানা প্রস্তুত করে অন্যত্র বিক্রি করা, দিনে-রাতে প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম দ্বারা মান মাত্রার অতিরিক্ত শব্দ (৭০ ডেসিবল) সৃষ্টি করে এলাকায় ব্যাপক শব্দ দূষণ করা, কারখানার পরিত্যক্ত পলিথিন গলানোর সময় তীব্র দুর্গন্ধ সৃষ্টি করা এবং আবাসিক এলাকার বাসিন্দাদের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা দূর্বিসহ করা হচ্ছে। যা বাংলাদেশ পরিবেশ সংরক্ষণ আইন ১৯৯৫ (সংশোধিত ২০০২) ও পরিবেশ সংরক্ষণ বিধিমালা ১৯৯৭ অনুযায়ী শাস্তিযোগ্য অপরাধ বলেও পত্রে উল্লেখ করা হয়। এজন্য ওই কারখানার অনুকুলে দেয়া পরিবেগত ছাড়পত্র বাতিলসহ কেন আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না তা পুনরায় লিখিতভাবে জানানোর নির্দেশ দেয়া হয়। একই সাথে কারখানার সকল কার্যক্রম সকাল ৮টা হতে রাত ৮টার মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখার জন্যও নির্দেশ দেয়া হয়। তা না হলে ওই কারখানার বিরুদ্ধে পরিবেশ অধিদপ্তরের এনফোর্সমেন্ট টিম কর্তৃক মামলা দায়ের, মালামাল বাজেয়াপ্ত ও জরিমানা আদায়সহ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও পত্রে উল্লেখ করা হয়।
কিন্তু পরিবেশ অধিদপ্তরের ওই পত্র উপেক্ষা করে এখনও কারখানাটির কার্যক্রম চলমান রয়েছে। শুধুমাত্র সামনের দরজা বন্ধ রেখে ভেতরে কারখানাটি চালু রাখা হয়েছে। পক্ষান্তরে বাইরে গন্ধযুক্ত ও পরিত্যক্ত পলিথিন শুকানোর ফলে প্রচন্ড দুর্গন্ধে এলাকার পরিবেশ বিঘিœত হচ্ছে।
এ ব্যাপারে চিঠিতে স্বাক্ষরকারী পরিবেশ অধিদপ্তরের বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক সরদার শরীফুল ইসলাম বলেন, তৃতীয় দফার পত্রটি দেয়ার পর মেসাস সাদিয়া এন্টারপ্রাইজ এন্ড প্লাস্টিক কারখানার মালিক মোঃ মঈন উদ্দিন একটি পত্র দিয়ে তিনি সেখানে পরিবেশ দূষণ করছেন না এবং পরিবেশের ছাড়পত্রেরও কোন শর্ত ভঙ্গ করছেন না বলে জানিয়েছেন। তবে সেটির কোন গ্রহণযোগ্যতা আপাতত পাওয়া যাচ্ছে না। এজন্য কিসের ভিত্তিতে তিনি এমনটি দাবি করলেন সে ব্যাপারে আবারো পত্র দেয়া হবে।
পরিবেশ অধিদপ্তরের খুলনা বিভাগীয় পরিচালক মোঃ হাবিবুল হক খান বলেন, ওই পলিথিন কারখানার বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার জন্য ইতোমধ্যেই নির্দেশ দেয়া হয়েছে। 
অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ ইকবাল হোসেন বলেন, সংশ্লিষ্ট পলিথিন ফ্যাক্টরির বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।
কারখানার মালিক মোঃ মঈন উদ্দিন বলেন, তিনি বিকল্প জায়গা খুঁজছেন। শিগগিরই তিনি সেখান থেকে কারখানাটি সরিয়ে নেবেন। তবে আপাততঃ কিছুদিন সময় প্রয়োজন। সময় চাওয়া হয়েছে পরিবেশ অধিদপ্তরের কাছে।
স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর শেখ হাফিজুর রহমান হাফিজ বলেন, ভুয়া কাগজপত্র তৈরি করে ওই কারখানাটি সেখানে গড়ে উঠেছে। বিষয়টি তিনি জানতে পেরে ঈদ-উল-আযহার আগে তিনি নিজে গিয়ে কারখানার কার্যক্রম বন্ধের জন্য বলে দেন। কিন্তু এর পরও কারখানাটি বহাল তবিয়তে চলছে। যার বিরুদ্ধে আইনানুগ যে কোন ব্যবস্থা নেয়া হবে সে ব্যাপারে তিনি সহযোগিতা করবেন।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ