খুলনা | বুধবার | ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ১০ আশ্বিন ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

হেভিওয়েট প্রার্থী দিতে প্রস্তুতি

খুলনা-৫ ও ৬ আসনে জামায়াতকে ছাড় দিতে নারাজ তৃণমূল বিএনপি

আশরাফুল ইসলাম নূর | প্রকাশিত ১১ অগাস্ট, ২০১৮ ০১:৩০:০০

প্রতিদিন পরিবর্তনশীল রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিত্য-নতুন নাটকীয় মোড় নিচ্ছে। বড় ধরনের ব্যতয় না ঘটলে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন এ বছরের শেষ দিকেই। এবারের নির্বাচনে খুলনা-৫ ও ৬ আসনে জোট শরীক জামায়াতকে ছাড় দিতে নারাজ বিএনপি’র তৃণমূল নেতা-কর্মীরা। এ দু’টি আসনে ভিতরে ভিতরে জোর প্রস্তুতি নিচ্ছেন বিএনপি’র হেভিওয়েট সম্ভাব্য প্রার্থীরা। সদ্য সমাপ্ত সিলেট, রাজশাহী ও বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপিকে ছাড় না দেয়ায় তৃণমূল নেতা-কর্মীদের মধ্যে জোট শরীক এ দলটির প্রতি বিরূপ মনোভাব দানা বাঁধছে।
দলীয় সূত্র জানায়, খুলনা-৫ (ডুমুরিয়া-ফুলতলা) ও খুলনা-৬ (কয়রা-পাইকগাছা) আসনে জোটের অন্যতম শরীক জামায়াতকে আর ছাড় দিতে নারাজ তৃণমূল পর্যায়ের বিএনপি’র নেতা-কর্মীরা। নির্বাচনে ধানেরশীষ প্রতীক চায় তারা। এ দু’টি আসনে সনাতন ধর্মাবলম্বী ভোটারদের প্রাধান্য রয়েছে। নানান ইস্যুতে হিন্দু ভোটারদের মাঝে জোটের শরীক দলটির গ্রহণযোগ্যতা কমার সুযোগ নিতে চায় বিএনপি। খুলনা-৫ আসনে ফুলতলা ও ডুমুরিয়া উপজেলা বিএনপি এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা এবার এ দাবিতে ঐক্যবদ্ধ।
ডুমুরিয়া উপজেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক ইউপি চেয়ারম্যান মোল্লা মোশাররফ হোসেন মফিজ বলেন, ‘এ আসনে ‘ধানের শীষ’ চাই। ফুলতলা-ডুমুরিয়ার দু’টি উপজেলার ১৮ ইউনিয়নের মধ্যে সুষ্ঠু নির্বাচন হলে ১১/১২টিতে চেয়ারম্যান বিএনপি, পাঁচ/ছয়টিতে আ’লীগ ও মাত্র একটিতে জামায়াত সমর্থিত প্রার্থী জয়লাভ করে। এ আসনে জামায়াতের চেয়ে বিএনপি অনেক বেশি শক্তিশালী বলে দাবি তার।’
আসনটি পুনরুদ্ধারে দীর্ঘদিন মাঠে কর্মীদের সাথে তৎপর বিএনপি’র মনোনয়ন প্রত্যাশী সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডাঃ গাজী আবদুল হক। শক্ত দাবিদার বিএনপি’র কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ড. মামুন রহমান। জামিরা ইউপির সাবেক এ চেয়ারম্যান দীর্ঘদিন প্রবাসী। তবে দলের নীতিনির্ধারক পর্যায়ে রয়েছে তার গভীর সম্পর্ক।
বিএনপি’র কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ড. মামুন রহমান বলেন, “খুলনা-৫ আসনে বিএনপি’র নেতা-কর্মী-সমর্থক বেশিই। ফুলতলাতে বিএনপি একচেটিয়া। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে ইউনিয়ন পরিষদ ও উপজেলা পরিষদের ভোটে  বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীরাই বিজয় লাভ করেন। সেখানে জামায়াতের মেম্বর কতজন? নাই, বললেও ভুল হবে না। বিগত আন্দোলন-সংগ্রামে মামলার আসামি বিএনপি নেতা-কর্মীরা। জেল খেটেছে বিএনপি নেতা-কর্মীরা জামায়াত কোথায়? তাহলে কেন মনোনয়ন তাদের দিতে হবে? এসব বিষয়গুলো আমি দলের হাইকমান্ডকে বোঝাতে সক্ষম হয়েছি। দল চাইলে বাকী জীবনটাই এলাকাবাসীর সেবায় আত্মনিয়োগ করবো।”
জেলা বিএনপি’র সিনিয়র সহ-সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য ডাঃ গাজী আবদুল হক বলেন, “সারাটা জীবন দলের জন্য কাজ করেছি, করছি, বাকী জীবনটাই সত্য-ন্যায়ের পক্ষে লড়াই করবো। এলাকাবাসীর স্বার্থে দল চাইলে নির্বাচনে প্রার্থী হবো। সে কারণে দলের সব ধরনের কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি দীর্ঘদিন যাবত এলাকায় কাজ করছি। এলাকায় ইতিমধ্যে বিএনপি’র শক্ত অবস্থানও তৈরি হয়েছে। সর্বস্তরের নেতা-কর্মীদের থেকেও স্বতঃস্ফূর্ত সাড়া পাচ্ছি।”
প্রসঙ্গত, ২০০৮ সালের নির্বাচনে আ’লীগের প্রার্থী নারায়ণ চন্দ্র চন্দের কাছে ৩৯ হাজার ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন জামায়াতে ইসলামী কেন্দ্রীয় নায়েবে আমীর অধ্যাপক গোলাম পরওয়ার। সর্বশেষ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেনি বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট।
সুন্দরবন ঘেঁষা কয়রা-পাইকগাছা সর্বদক্ষিণ জনপদ নিয়ে গঠিত খুলনা-৬ আসন। এ আসনেও এবার দলের প্রার্থী চাইছে বিএনপি’র তৃণমূল নেতা-কর্মীরা। জেলা বিএনপি’র সভাপতি এড. শফিকুল আলম মনা এ আসনটিতে প্রার্থী হবার সম্ভাবনা রয়েছে। ফলে অন্য সম্ভাব্য প্রার্থীরা কিছুটা পিছু হটছেন।
কয়রা উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি এড. মোমরেজুল ইসলাম বলেন, “কয়রা-পাইকগাছার ১৭টি ইউনিয়নে অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে বিএনপি অন্তত ১৪-১৫টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়। অপরদিকে, কয়রাতে একটি ইউনিয়নে জয় পেলেও জামায়াত পাইকগাছায় কোনো চেয়ারম্যান বিজয় লাভ করে না। যৌক্তিক অর্থেই কয়রা-পাইকগাছায় বিএনপি’র জনপ্রিয়তা অদ্বিতীয়। এখানে আগামী নির্বাচনে অবশ্যই বিএনপি’র প্রার্থী দিতে হবে।
জেলা বিএনপি’র সভাপতি এড. শফিকুল আলম মনা বলেন, “আমি শুনেছি, আমাকে নাকি খুলনা-৬ আসনে প্রার্থী করা হতে পারে। দলের জন্য কাজ করছি, করবো আজীবন। যখন, যেখানে প্রয়োজন সেখানেই দায়িত্ব পালনে আমার কোন আপত্তি নাই।”

বার পঠিত

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ






খুলনা-৪ আসনে নৌকার মাঝি কে?

খুলনা-৪ আসনে নৌকার মাঝি কে?

০১ অগাস্ট, ২০১৮ ০২:৩০








ব্রেকিং নিউজ












তৃতীয় ফাইনাল নাকি স্বপ্ন ভঙ্গ

তৃতীয় ফাইনাল নাকি স্বপ্ন ভঙ্গ

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:৫৫