খুলনা | বৃহস্পতিবার | ১৫ নভেম্বর ২০১৮ | ১ অগ্রাহায়ণ ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

লিভার সুস্থ্য রাখতে খাদ্যাভাসের নিয়ন্ত্রণ জরুরী

ডাঃ মোঃ কুতুব উদ্দীন মল্লিক | প্রকাশিত ১১ অগাস্ট, ২০১৮ ০০:০০:০০

লিভার তথা যকৃত মানবদেহের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। এটি মানবদেহের সবচেয়ে বড় সলিড অর্গেন। দেখতে গাঢ় বাদামী এই অঙ্গটির ওজন একজন মানুষের ওজনের প্রায় দুই শতাংশ তথা প্রায় সোয়া থেকে দেড় কিলোগ্রাম। এই অঙ্গটির অবস্থান পেটের ডান দিকের উপরিভাগে বক্ষপিঞ্জরের নিচ অংশ থেকে মধ্যভাগে বক্ষপিঞ্জরের খানিকটা অংশ জুড়ে বিস্তৃত। লিভার মানবদেহে জানা এবং অনেকাংশে অজানা এ ধরণের প্রায় পাঁচশত এর বেশী গুরুত্বপূর্ণ কাজ সম্পাদন করে। সুতরাং শারীরবৃত্তীয় কার্যাবলী সুষ্ঠুভাবে বজায় রাখতে লিভারের সুস্থতা অপরিহার্য। লিভারকে সুস্থ রাখার জন্য প্রয়োজন জীবাণুমুক্ত, পরিমিত এবং সুষম খাবার গ্রহণ এবং যে সকল খাবার, পানীয় ও ওষুধ লিভারের ক্ষতি করতে পারে তা থেকে বিরত থাকা। পাশ্চাত্যে অতিরিক্ত এ্যালকোহল গ্রহণের কারণে লিভারে ফ্যাট জমা হয়ে এ্যাকোহলিক ফ্যাটি লিভার ডিজিজের প্রাধান্য দেখা যায়। আমাদের দেশে দুষিত পানি গ্রহণের কারণে ‘এ’ এবং ‘ই’ ভাইরাস জনিত হেপাটাইটিস অন্যতম প্রধান লিভার রোগ। এছাড়া, আধুনিক দ্রুত গতির জীবনযাত্রায় ফাস্টফুড সংস্কৃৃতির প্রসারের কারণে অতিরিক্ত চর্বিযুক্ত খাবার গ্রহণের অভ্যাস বৃদ্ধি পাওয়ায় নন-এ্যালকোহলিক ফ্যাটি লিভার ডিজিজ উল্লেখযোগ্য হারে বেড়ে যাচ্ছে। সুতরাং, লিভারের সুস্থতার জন্য খাদ্যাভ্যাসের নিয়ন্ত্রণ অত্যন্ত জরুরী। 
সাধারণত আমরা খাদ্য গ্রহণের সময় খাদ্যের মৌলিক উপাদানগুলোকে আলাদাভাবে গ্রহণ করি না। আমরা যা খাই তাতে উপাদানগুলো বিভিন্ন অনুপাতে মিশ্রিত থাকে এবং বিভিন্ন জটিল গঠনে উপস্থিত থাকে। যেমন: আমরা ডিম দিয়ে রুটি খেলে মূলত সবগুলো মৌলিক উপাদানই একসাথে গ্রহণ করছি। কেননা-ডিমের কুসুমে আছে চর্বি ও সাদা অংশে আমিষ, ডিম ভাজা হয়েছে লবণ ও তেল দিয়ে, রুটিতে আছে স্টার্চ (এক ধরণের জটিল শর্করা) এবং গ্লুটেইন (এক ধরণের আমিষ)। 
সুস্থ লিভারের জন্য সুষম খাবার ঃ
গ্র“প এক: স্টার্চ জাতীয় খাবারের মধ্যে আছে ভাত, রুটি, পাউরুটি, আলু, ভুট্টা, সেরিয়েল, নুডুলস ও পাস্তা। স্টার্চ এক ধরণের জটিল শর্করা। এটি ধীরে ধীরে হজম হয়। ফলে, একবার গ্রহণ করলে এটি দীর্ঘক্ষণ ধরে গ্লুকোজ সরবরাহ অব্যাহত রাখে। 
গ্র“প দুই: প্রতিদিন শাক-সবজি ও ফলমূলের পাঁচটি ‘পোরশন’ খাওয়া দরকার। এখানে এক পোরশন বলতে বুঝানো হচ্ছে ‘৮০ গ্রাম’ অথবা নিচের যে কোন একটি: ১৫০ মিলিলিটারের একগ্লাস ফলের রস, তিন টেবিল চামচ সবজি (রান্না করা বা কাঁচা), এক বাটি সালাদ, একটি কলা বা কমলা বা সম-আকারের ফল, অল্প কয়েকটি আঙ্গুর বা বড়ই।
গ্র“প তিন: দুধ ও দুধের তৈরী খাবারে প্রচুর আমিষ ও স্যাচুরেটেড-চর্বি থাকে। এছাড়া আছে বেশী পরিমাণে ক্যালসিয়াম যা হাড়ের জন্য প্রয়োজন। প্রতিদিনের খাবারের এক-নবমাংশ এ জাতীয় খাবার থাকলেই যথেষ্ট।
গ্র“প চার: প্রাণীজ আমিষ (মাছ, মাংস, ডিম) এবং উদ্ভিজ আমিষ (মটরশুটি, বাদাম, ছোলা) মাংসপেশী ও ব্রেইনের গঠনের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয় খাদ্য। তিন বেলা খাবারের অন্তত দুই বেলা প্রাণীজ আমিষ থাকলে ভালো হয়। এছাড়া মটরশুটি, বাদাম, ছোলা প্রভৃতি খাবারে আমিষ ছাড়াও আছে ফাইবার, মিনারেলস এবং ভিটামিন।
একজন সুস্থ মানুষের জন্য দৈনন্দিন খাবারের রুটিনটিকে উপরোক্ত খাদ্য তালিকা অনুযায়ী গুছিয়ে নিলে তার লিভারকে সুস্থ রাখা সম্ভব। এছাড়া, যে খাবারগুলোকে বিশেষভাবে লিভারের জন্য উপকারী হিসেবে বিবেচনা করা হয় তার মধ্যে আছে- রসুন, গাজর, বিট, সবুজ চা, সবুজ শাক, বাধাকপি, ফুলকপি, আঙ্গুর, আপেল, জলপাইয়ের তেল, লেবু ও লেবুর শরবত, তেঁতুল ও কাঠবাদাম। এতে আছে প্রচুর পরিমাণে এন্টি-অক্সিডেন্ট, ফাইবার ও ভিটামিন সি যা লিভারকে বিষমুক্ত করার কাজে সাহায্য করে।
লিভারের বিভিন্ন রোগের জন্য দায়ী খাবার ঃ
লিভারের সবচেয়ে কমন রোগ হল হেপাটাইটিস ভাইরাস জনিত লিভার প্রদাহ। হেপাটাইটিস ‘এ’, ‘বি’, ‘সি’ এবং ‘ই’ ভাইরাস দিয়ে সাধারণত হেপাটাইটিস হয়। তন্মধ্যে হেপাটাইটিস ‘এ’ ও ‘ই’ ছড়ায় দুষিত পানির মাধ্যমে। বর্তমানে শহরে রাস্তার পাশে আখের রস, ফলের জুস ও লেবুর শরবত সহজলভ্য। কিন্তু এগুলো তৈরীতে যে পানি ব্যবহার করা হয় তার বিশুদ্ধতা প্রশ্ন সাপেক্ষ। সুতরাং হেপাটাইটিস থেকে মুক্ত থাকতে এ পানীয় পরিহার করা উচিত। এছাড়া বাসাবাড়িতে ওয়াসা কর্তৃক সরবরাহকৃত পানি সেবন করার আগে ফুটিয়ে নেয়া জরুরী। অন্যদিকে গ্রামে-গঞ্জে দৈনন্দিন কাজে ব্যবহৃত পানি অনেক সময় পুকুর, খাল ও নদী থেকে সংগ্রহ করে না ফুটিয়ে ব্যবহার করা হয়। এতেও হেপাটাইটিস আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। এ আশংকা থেকে বাঁচতে নলকূপের পানি ব্যবহার করা দরকার।

ডাঃ মোঃ কুতুব উদ্দিন মল্লিক 
সহযোগী অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান
লিভার বিভাগ
খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।
 

বার পঠিত

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ



স্তন ক্যান্সার: আমরা কতটা সচেতন?

স্তন ক্যান্সার: আমরা কতটা সচেতন?

০৩ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০৫

পাইলস রোগের সাধারণ আলোচনা

পাইলস রোগের সাধারণ আলোচনা

২৭ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০










ব্রেকিং নিউজ