খুলনা | রবিবার | ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮ | ২ পৌষ ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

ভোমরা স্থল শুল্ক স্টেশন থেকে অর্জিত রাজস্ব দেশের অর্থনীতিকে সমৃদ্ধ করছে

রুহুল কুদ্দুস, সাতক্ষীরা  | প্রকাশিত ০৩ জুলাই, ২০১৮ ০১:৪৫:০০

বিগত চারটি অর্থ বছরে সাতক্ষীরার ভোমরা স্থল শুল্ক স্টেশন থেকে ২ হাজার ৬২১ কোটি ৬৯ লাখ ২৪ হাজার টাকার রাজস্ব আদায় হয়েছে। আর এই বিপুল পরিমাণ রাজস্ব দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে চলেছে। সব ধরনের পণ্য আমদানির অনুমতির পাশাপাশি প্রয়োজনীয় সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি করা হলে এই স্থল শুল্ক স্টেশন থেকে সরকারি রাজস্ব আয়ের পরিমাণ আরো বৃদ্ধি পেত বলে মনে করেন ভোমরা স্থল শুল্ক স্টেশন সংশ্লিষ্টরা।
ভোমরা স্থল বন্দরের শুল্ক বিভাগ জানিয়েছে, বিগত ২০১৪-১৫ অর্থ বছরে এই স্থল শুল্ক স্টেশন থেকে রাজস্ব আয়ের পরিমাণ ছিল ৪৩৩ কোটি ২৮ লাখ ৭২ হাজার ৯০৮ টাকা, ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে ৬২১ কোটি ৭৮ লাখ ৬৬ হাজার ৩৪৭ টাকা, ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে ৭৭৪ কোটি ৬৩ লাখ ৮ কোটি ২৯৮ টাকা এবং গত ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে (২৮ জুন পর্যন্ত) রাজস্ব আদায়ের পরিমান ছিল ৭৯১ কোটি ৯৯ লাখ ৭ হাজার ৩৫২ টাকা। প্রতি অর্থ বছরে রাজস্ব আদায়ের পরিমান বৃদ্ধি পেয়েছে। আর ভোমরা স্থল শুল্ক স্টেশন থেকে অর্জিত এসব রাজস্ব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে। তবে পূর্ণাঙ্গ বন্দর হওয়া সত্ত্বেও সব ধরনের পণ্য আমদানির সুযোগ না থাকায় ভোমরা বন্দর ব্যবহারে আগ্রহ হারাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। 
সূত্রমতে, ভোমরা বন্দর থেকে ২০১৭ সালের জুলাই মাসে ৪৯ কোটি ৮ লাখ ৪৩ হাজার ৪৮৬ টাকা, আগস্ট মাসে ৬৩ কোটি ৫১ লাখ ৪ হাজার ৩৭০ টাকা, সেপ্টেম্বর মাসে ৪৩ কোটি ৩৯ লাখ ৬৬ হাজার ৮১৮ টাকা, অক্টোবর মাসে ৫৭ কোটি ৯৭ লাখ ৭ হাজার ৪৪১ টাকা, নভেম্বর মাসে ৮৩ কোটি ৪৫ লাখ ১৪ হাজার ৫৬৬ টাকা, ডিসেম্বর মাসে ৮২ কোটি ৮২ লাখ ১৮ হাজার ৯৯ টাকা, ২০১৮ সালের জানুয়ারি মাসে ৮৭ কোটি ২ লাখ ৭৬ হাজার ৪৮৮ টাকা, ফেব্র“য়ারি মাসে ৯৭ কোটি ৫৩ লাখ ২২ হাজার ২২৪ টাকা, মার্চ মাসে ৯৯ কোটি ২৮ লাখ ৯ হাজার ১৮৮ টাকা, এপ্রিল মাসে ৬২ কোটি ৭৫ লাখ ১৪ হাজার ৩৪০ টাকা, মে মাসে ৩৭ কোটি ৯২ লাখ ৭১ হাজার ৭৪৭ টাকা ও চলতি জুন মাসের ২৮ তারিখ পর্যন্ত ২৭কোটি ৬৭ লাখ ৬৬ হাজার ৫৫৫ টাকা রাজস্ব আয় হয়েছে। 
বন্দর সূত্র জানায়, আওয়ামী লীগ নেতা শহীদ স ম আলাউদ্দিনের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ১৯৯৬ সালে ভোমরা বন্দর প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রতিষ্ঠার ১৭ বছর পর ২০১৫ সালের মে মাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্র“তি অনুযায়ী নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান ভোমরা বন্দরকে পূর্ণাঙ্গ বন্দর হিসেবে ঘোষণা দেন। এরপর দুইটি ওয়্যারহাউজ, ওয়েব এক্সেল, ওয়াচ টাওয়ার ও প্রশাসনিক ভবন নির্মাণসহ নানা }} ৮ম বর্ষপূর্তি সংখ্যা : ২ পাতার ৮ কলাম
অবকাঠামোগত উন্নয়ন হয়েছে। তবে, পূর্ণাঙ্গ বন্দর ঘোষণার প্রায় তিন বছরের বেশি সময় অতিবাহিত হলেও পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে রয়েছে নানা সীমাবদ্ধতা।  
ভোমরা স্থল বন্দর সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট এ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান নাসিম বলেন, ভোমরা বন্দর দেশের সবচেয়ে সম্ভাবনাময়ী বন্দর। অথচ সব ধরনের পণ্য আমদানির সুযোগ না থাকায় এ বন্দর ব্যবহারে ব্যবসায়ীরা আগ্রহ হারাচ্ছেন। তিনি ব্যাখ্যা করে বলেন, ভোমরা বন্দর দিয়ে ৫৮টি পণ্য আমদানির অনুমোদন থাকলেও এনবিআর স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের কিপিং লাইসেন্স একটি স্ট্যাডিং অর্ডারের মাধ্যমে আটকে রেখেছে। তাই মাত্র পেঁয়াজ ও পাথরসহ ২১/২২টি লিমিটেড পণ্য আমদানি করা যায়। অথচ এই বন্দর থেকেই সরকারের সবচেয়ে বেশি রাজস্ব আয় হওয়ার কথা। 
তিনি বলেন, কলকাতা থেকে ভোমরা বন্দরের দূরত্ব সবচেয়ে কম। মাত্র ৭৫ কিলোমিটার। অথচ দেশের প্রধান স্থল বন্দর বেনাপোলের দূরত্ব ১১৮ কিলোমিটার, সোনা মসজিদ বন্দরের দূরত্ব ৩২২ কিলোমিটার ও হিলি বন্দরের দূরত্ব ৩১৮ কিলোমিটার। ব্যবসায়ীরা ব্যবসা করে লাভের জন্য। তাই ভোমরা বন্দরের দূরত্ব কম হওয়ায় পরিবহন খরচ কম হয়। কিন্তু সব পণ্য আমদানি করা যায় না বলে ব্যবসায়ীরা অন্য বন্দরে যেতে বাধ্য হয়। আর পদ্মা সেতুর কাজ শেষ হলে ভোমরা বন্দরের সম্ভাবনা আরো বেড়ে যাবে। তাই ভোমরা বন্দর দিয়ে পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে যেসব জটিলতা রয়েছে সেগুলো নিরসনের সময় এখনই-বলে মন্তব্য করেন তিনি। 
ভোমরা স্থল শুল্ক স্টেশনের রাজস্ব কর্মকর্তা লস্কর বকতিয়ার রহমান জানান, ভোমরা স্থল শুল্ক স্টেশন রাজস্ব আহরণের ক্ষেত্রে অত্যন্ত সম্ভাবনাময়ী। বিগত চারটি অর্থ বছরে এই স্থল শুল্ক স্টেশন থেকে ২ হাজার ৬২১ কোটি ৬৯ লাখ টাকার রাজস্ব আদায় হয়েছে। যা দেশের অর্থনীতিকে সমৃদ্ধ করেছে। তবে এই শুল্ক স্টেশনে পণ্য রাখার পর্যাপ্ত সেড নেই। তাছাড়া লিমিটেড পণ্য আমদানি হওয়ায় গত অর্থ বছরের তুলনায় এবার আমদানি কিছুটা কমেছে। নেই কাস্টমস কর্মকর্তাদের ভবন। তবে ডাবল লেনের রোডের পাশাপাশি যোগযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন হলে আগামীতে এই স্থল শুল্ক স্টেশনের আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম আরো বৃদ্ধি পাবে। একই সাথে বৃদ্ধি পাবে রাজস্বের পরিমাণ। 
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ



১৯৭১ সালের এক ভয়াল রাত

১৯৭১ সালের এক ভয়াল রাত

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:১০

বাংলাদেশ

বাংলাদেশ

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:১০



এক বীরের বুকভরা বেদনা

এক বীরের বুকভরা বেদনা

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:১০

খুলনা বিজয়ের রথে

খুলনা বিজয়ের রথে

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:১০

গুরুদাসী : এক বীরাঙ্গণা নারী

গুরুদাসী : এক বীরাঙ্গণা নারী

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:১০

শপথ

শপথ

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:১০

এইতো মোদের স্বাধীনতা

এইতো মোদের স্বাধীনতা

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:১০

অভূতপূর্ব ইতিহাস

অভূতপূর্ব ইতিহাস

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:১০


ব্রেকিং নিউজ