খুলনা | শুক্রবার | ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২০ | ১৫ ফাল্গুন ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

মৃতের সংখ্যা সাড়ে ১৩শ’ ছাড়িয়েছে, আক্রান্ত ৬০ : হাজার উত্তর কোরিয়ায় সন্দেহভাজনকে গুলি করে হত্যা : সিঙ্গাপুরে আরও দুই বাংলাদেশি শনাক্ত

করোনায় এক দিনে ঝরল ২৪২ প্রাণ

খবর প্রতিবেদন | প্রকাশিত ১৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২০ ০০:০১:০০

প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা। আগের দিনকে পেছনে ফেলছে পরের দিন। গত বুধবার চীনের হুবেই প্রদেশে নতুন করে ২৪২ জন মারা গেছেন। এটি ছিল একদিনে মৃতের সংখ্যায় সর্বোচ্চ। যা আগের সর্বোচ্চ সংখ্যার চেয়ে দ্বিগুণেরও বেশি। এ নিয়ে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা সাড়ে ১৩শ’ ছাড়িয়েছে, আর আক্রান্ত হয়েছে ৬০ হাজারের ওপরে। খবর আলজাজিরার
গতকাল বৃহস্পতিবার চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, বুধবার মধ্যরাত পর্যন্ত দেশটির হুবেই প্রদেশে ২৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে সাড়ে ১৩শ’ ছাড়িয়েছে। নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ১৪ হাজার ৮৪০ জন। এছাড়া চীনে এখন পর্যন্ত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৪৮ হাজার ২০৬ জন।
চীনের বাইরে এখন পর্যন্ত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ফিলিপাইনে একজন এবং হংকংয়ে আরেক জনের মৃত্যু হয়েছে। পাশাপাশি বিশ্বের প্রায় ২৫টি দেশে করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করা হয়েছে।
গত ডিসেম্বরে চীনের উহান শহরে করোনা ভাইরাসের আবির্ভাব ঘটে। প্রতিনিয়ত এই ভাইরাসে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের শরীরে প্রাথমিক লক্ষণ হিসেবে শ্বাসকষ্ট, জ্বর, সর্দি, কাশির মত সমস্যা দেখা দেয়।
সিঙ্গাপুরে আরও দু’জন বাংলাদেশি : শরীরে নতুন করোনা ভাইরাস বা কভিড-১৯ শনাক্ত হয়েছে সিঙ্গাপুরে আরও দু’জন বাংলাদেশির। সিঙ্গাপুরের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্যের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার এ তথ্য নিশ্চিত করেছে জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এ তথ্য নিশ্চিত করেন আইইডিসিআর-এর পরিচালক অধ্যাপক ডাঃ মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা। তিনি বলেন, এ নিয়ে মোট চারজন বাংলাদেশি কভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে শনাক্ত হয়েছেন। তারা বর্তমানে দেশটির বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
উল্লে¬খ্য, এর আগে দেশটিতে আরও দুই প্রবাসী বাংলাদেশির শরীরে কভিড-১৯ এর উপস্থিতি শনাক্ত হয়। তাদের একজন আইসিইউ-এ এবং অপরজন সাধারণ ভাবে চিকিৎসা নিচ্ছেন।
সিঙ্গাপুরের সংবাদমাধ্যম স্ট্রেইট টাইমস'র খবরে বলা হয়েছে, চার বাংলাদেশিই সেলেটার অ্যারোস্পেস হাইটসে কাজ করতেন।
এছাড়াও বুধবার আইইডিসিআর এর সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, এই দুই রোগীর সংস্পর্শে ছিলেন এমন ১৯ জনকে কোয়ারেন্টাইনে রেখেছে সিঙ্গাপুর সরকার। এর মধ্যে ১০ জনই বাংলাদেশি।
সিঙ্গাপুরের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় গতকাল জানায়, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়া আরও আটজনকে বৃহস্পতিবার শনাক্ত করা হয়েছে। ফলে দেশটিতে এই ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫৮ জনে। নতুন শনাক্ত আট জনের মধ্যে পাঁচ জন গড চার্চের গ্রেস এ্যাসেম্বলির সঙ্গে সম্পর্কিত। এদের মধ্যে একজন ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব সিঙ্গাপুরের অধ্যাপক। অসুস্থবোধ করার পর তিনি সহকর্মী ও শিক্ষার্থীদের সংস্পর্শে আসেননি। এই এলাকাটিতে এখন পর্যন্ত সাতজন আক্রান্তকে শনাক্ত করা হয়েছে। এর আগে বুধবার আরও দু’জন আক্রান্ত হয়েছিলেন।
উত্তর কোরিয়ায় সন্দেহভাজনকে গুলি করে হত্যা : উত্তর কোরিয়ায় সন্দেহভাজন করোনা ভাইরাস আক্রান্তকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। কোয়ারেন্টাইন পয়েন্ট থেকে বেরিয়ে গণ-শৌচাগারে যাওয়ায় সর্বোচ্চ শাস্তি কার্যকর করা হয়েছে।
দক্ষিণ কোরিয়ার দৈনিক ডং-এ ইলবো এক প্রতিবেদনে বলছে, গণ-শৌচাগারে যাওয়ার কারণে করোনা ভাইরাস বিস্তারের আশঙ্কায় ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতারের পর তাৎক্ষণিকভাবে গুলি করে হত্যা করা হয়। স্থানীয় সূত্রের বরাত দিয়ে দৈনিকে বলা হয়েছে, সম্প্রতি চীন ভ্রমণ করে দেশে ফেরার পর ওই ব্যক্তিকে আইসোলেশনে রাখা হয়েছিল। চীনের উহান থেকে ছড়িয়ে পড়া এই ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব মোকাবেলায় পূর্ব-সতর্কতা হিসেবে উত্তর কোরিয়ায় সামরিক আইন জারি করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট কিম জং উন।
তবে এখন পর্যন্ত উত্তর কোরিয়া দেশটিতে করোনা আক্রান্তের তথ্য নিশ্চিত করেনি। কিন্তু চীন সীমান্তের এই দেশটি করোনার বিস্তার ঠেকাতে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। শরীরে করোনার উপস্থিতি না পাওয়া গেলেও চীনাদের সঙ্গে সম্পর্ক রয়েছে অথবা সম্প্রতি চীন ভ্রমণ করেছেন; এমন যেকোনও ব্যক্তিকে আইসোলেশনে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন কিম জং উন।
শীর্ষ নেতার এমন নির্দেশ যারা অমান্য করবেন; বিশেষ করে অনুমোদন ছাড়া কোয়ারেন্টাইন থেকে বের হলে যে কাউকে সামরিক আইনে শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে বলে ডিক্রি জারি করা হয়েছে উত্তর কোরিয়ায়। এদিকে, চীন ভ্রমণ শেষে কর্তৃপক্ষের নজর এড়িয়ে বাড়িতে যাওয়ার চেষ্টা করায় এক ব্যক্তিকে নির্বাসনে পাঠিয়েছে পিয়ংইয়ং।
বুধবার পিয়ংইয়ংয়ের এক ঘোষণায় করোনা মোকাবেলায় কোয়ারেন্টাইনের সময় বাড়িয়ে ৩০ দিন করা হয়েছে বলে জানানো হয়। যদিও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কর্মকর্তারা এই ভাইরাসে সন্দেহভাজন আক্রান্তদের ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে রাখার পরামর্শ দিয়েছেন। বিশ্ব থেকে প্রায় বিচ্ছিন্ন কোরীয় উপদ্বীপের এই রাষ্ট্রটির প্রধান কূটনৈতিক মিত্র চীনের সঙ্গে প্রায় সব সীমান্ত বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। বিদেশি পর্যটক নিষিদ্ধ, সড়ক ও রেলপথে চলাচলে ব্যাপক বিধি-নিষেধ আরোপের পাশাপাশি চীনের সঙ্গে আকাশপথের যোগাযোগও কমিয়ে এনেছে উত্তর কোরিয়া। দুই কোরিয়ার সীমান্তবর্তী অসামরিক অঞ্চলে ব্যাপক সামরিক সমাবেশ ঘটানো হয়েছে।
২০০২-২০০৩ সালের দিকে চীনে সার্স ভাইরাসের মহামারির সময়ও একই ধরনের কোয়ারেন্টাইন ব্যবস্থা গ্রহণ করেছিল উত্তর কোরিয়া। দক্ষিণ কোরিয়া বলছে, সেই সময় সার্সে আক্রান্ত কোনও রোগী পাওয়ার তথ্য জানায়নি উত্তর কোরিয়া। সূত্র : ডেইলি মেইল।


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ


মেয়েদের গ্র“পের ফাইনালে উন্নীত খুলনা

মেয়েদের গ্র“পের ফাইনালে উন্নীত খুলনা

২৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২০ ০০:০৫










মানিকতলায় তাফসীরুল  কুরআন মাহফিল 

মানিকতলায় তাফসীরুল  কুরআন মাহফিল 

২৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২০ ০০:০০