খুলনা | বৃহস্পতিবার | ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০ | ১৪ ফাল্গুন ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

চীনে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৫৬

করোনা ভাইরাসের প্রভাব ভয়ঙ্কর হচ্ছে নজরদারিতে ভারতের শতাধিক মানুষ

খবর প্রতিবেদন | প্রকাশিত ২৭ জানুয়ারী, ২০২০ ০০:২৪:০০

দিন যতোই যাচ্ছে চীনে প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের প্রভাব আরও ভয়ঙ্কর হচ্ছে। প্রতিদিনই বাড়ছে মৃত্যুর মিছিল। দেশটির রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা জানিয়েছে, হুবেই প্রদেশ থেকে সংক্রমণ শুরু হওয়া করোনাভাইরাসে গতকাল রবিবার পর্যন্ত ৫৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।
দেশটির প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এ পরিস্থিতিকে এরই মধ্যে ভয়াবহ বলে সতর্ক করে দিয়েছেন। সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থেকে এ মহাবিপর্যয় মোকাবিলা করার আহ্বান জানিয়েছেন। ২৫ জানুয়ারি পর্যন্ত এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে ১৯৭৫ জন। কর্তৃপক্ষ বলছে, শুধুমাত্র হুবেই প্রদেশে ১৩ জনের মৃত্যু ও ৩২৩ জন নতুন করে শ্বাসকষ্ট নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। 
প্রদেশটির স্বাস্থ্য বিভাগ বলছে, ১১ মিলিয়ন জনবসতির এ শহরে নতুন করে ৭ জনের মৃত্যু এবং ৪৬ জন্য আক্রান্ত হয়েছে। অন্যদিকে, হুবেইর উত্তর সীমান্তের হেনা প্রদেশে একজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। প্রথমবারের মতো সাংহাই শহরেও এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে একজনের মারা গেছে। এরই মধ্যে চীন সরকার উহানসহ ১২টির বেশি শহরে ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। চীনের নতুন বছর উদ্যাপনের সব অনুষ্ঠানও বাতিল করা হয়েছে।
গেল ডিসেম্বরে উহানে করোনাভাইরাস ধরা পড়ে। শনিবার চাইনিজ নববর্ষ উদ্যাপন শুরু হওয়ার কথা থাকলেও দেশটির বিভিন্ন শহরে তা বাতিল করা হয়েছে। দেশটির বেশ কিছু শহরে জরুরি মেডিক্যাল চেকআপের ব্যবস্থা করা হয়েছে। সেখানে শহরে চলাচলকারী মানুষের শরীরে জ্বরের কোনো আলামত আছে কিনা তা পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে। এছাড়া একাধিক শহরে ট্রেন স্টেশন বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। তবে ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিচ্ছে চীন। এরই মধ্যে আক্রান্তদের চিকিৎসায় নতুন একটি হাসপাতাল নির্মাণের কথা জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। আগামী ১০ দিনের মধ্যে ২৫ হাজার বর্গফুটের হাসপাতালটি রোগীদের চিকিৎসাসেবায় কাজ শুরু করবে। যাতে শয্যা থাকবে এক হাজার। এছাড়া আরও একটি হাসপাতাল তৈরি করা হবে যাতে ১৩শ রোগীর ধারণ ক্ষমতা থাকবে। 
এদিকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে ভারতের কেরালা ও মহারাষ্ট্রে শতাধিক মানুষকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। দেশটির কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধনকে উদ্ধৃত করে রবিবার ইন্ডিয়া টুডে এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।
স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, এখনো করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার নিশ্চিত কোনো ঘটনা শনাক্ত হয়নি। সাত যাত্রীর নমুনা পরীক্ষার জন্য পুনের একটি গবেষণাগারে পাঠানো হয়েছে। এর আগে চার যাত্রীর নমুনা পরীক্ষা করে ভাইরাসটির উপস্থিতি পাওয়া যায়নি।
কেরালার জ্যেষ্ঠ এক স্বাস্থ্য কর্মকর্তা বলেন, “আজ রাজ্যে নতুন ৯৯ যাত্রী এসেছে। সব মিলে মোট ১৭৯ যাত্রী নজরদারিতে আছে। মাত্র সাত জনের শরীরেই কোনো লক্ষণ পাওয়া গেছে। “তাদের রক্ত ও শ্বাস-প্রশ্বাসযন্ত্রের নমুনা পরীক্ষার জন্য পুনের ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব ভাইরোলজিতে পাঠানো হয়েছে।” এদের মধ্যে ত্রিশুর, তিরুবন্তপুরম, পাঠানমথিত্ত ও মালাপ্পুরমের একজন করে এবং এর্নাকুলামের তিনজন করে রয়েছেন। তাদের সবাইকে রাজ্যের বিভিন্ন স্বাস্থ্যকেন্দ্রে আলাদাভাবে রাখা হয়েছে।
কর্মকর্তারা বলছেন, করোনাভাইরাসে সংক্রমিত সন্দেহে মুম্বাইয়ের একটি হাসপাতালে ভর্তি তিন জনের মধ্যে দু’জনকে পরীক্ষা করে কোনো জীবানু পাওয়া যায়নি। সতর্কতার জন্য তাদের এখনও পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। আর তৃতীয় ব্যক্তির রক্ত পরীক্ষার ফলাফলের অপেক্ষায় রয়েছেন তারা। চীনে নতুন করে ছড়িয়ে এই প্রাণঘাতী ভাইরাসের ছড়িয়ে পড়া নিয়ে বিশ্বজুড়ে উদ্বেগের মধ্যে শনিবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পরিস্থিতি মোকাবিলায় ভারতের প্রস্তুতি পর্যালোচনা করা হয়।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ












ক্রিকেটার মিরাজের বাসায় চুরি

ক্রিকেটার মিরাজের বাসায় চুরি

২৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২০ ০০:৪৬