খুলনা | মঙ্গলবার | ২১ জানুয়ারী ২০২০ | ৮ মাঘ ১৪২৬ |

শিরোনাম :

ভিসিদের স্বচ্ছতা, নিষ্ঠা, সততা ও  দক্ষতার পরিচয় দিতে হবে

১৪ জানুয়ারী, ২০২০ ০০:০০:০০

ভিসিদের স্বচ্ছতা, নিষ্ঠা, সততা ও  দক্ষতার পরিচয় দিতে হবে

যেকোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ পদে অধিষ্ঠিত ব্যক্তি উপাচার্য। উপাচার্য চৌকস ও সচ্চরিত্রবান হলে সেই বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা থেকে শুরু করে সংস্কৃতিচর্চা সবকিছুই সুষ্ঠু প্রক্রিয়ায় চলে। অন্যথায় পদে পদে ঝক্কির আশঙ্কা থাকে। গত বছর নানা বিষয়ে আলোচিত-সমালোচিত হয়েছিলেন দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য। এ বিষয়টিই ধ্বনিত হয়েছে গত শনিবার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনে রাষ্ট্রপতির ভাষণে। আচার্য, রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ বলেন, উপাচার্যরা হলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান নির্বাহী। দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে আপনাদের সততা, নিষ্ঠা ও দক্ষতার পরিচয় দিতে হবে। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম সমাবর্তন ভাষণে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনার আইন মেনে চলতে শিক্ষকদের প্রতি আহ্বান জানান রাষ্ট্রপতি। শিক্ষকদের সন্ধ্যাকালীন কোর্স ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস নেওয়ার সমালোচনা করে বিশ্ববিদ্যালয় আচার্য আবদুল হামিদ বলেন, এক শ্রেণীর শিক্ষক রয়েছেন, যারা বিশ্ববিদ্যালয়ের চাকরিকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করেন। অনেক সময় সান্ধ্যকালীন কোর্স ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস নিয়ে সপ্তাহব্যাপী অতি ব্যস্ত সময় কাটান। এ সমস্ত কাজ-কর্মে তারা খুবই আন্তরিক। যত অনীহা শুধু বিশ^বিদ্যালয়ে নির্ধারিত ক্লাস নেওয়ার ক্ষেত্রে। তবে এসব শিক্ষক সিলেবাস শেষ করার ব্যাপারেও খুবই সিরিয়াস। তাই তারা একসঙ্গে তিন থেকে পাঁচ ঘণ্টা একটানা ক্লাস নেন। অনেক সময় ছুটির দিনে ছাত্রছাত্রীদের ডেকে একসঙ্গে কয়েক ঘণ্টা ক্লাস নেন। শিক্ষার্থীরা কতটুকু বুঝল বা কতটুকু গ্রহণ করতে পারল, সে ব্যাপারে তাদের কোনো দায়-দায়িত্ব বা মাথাব্যথা আছে বলে মনে হয় না। উপাচার্যদের এক্ষেত্রে কঠোর হওয়ার নির্দেশনা দেন আচার্য আবদুল হামিদ। তিনি বলেন, সম্মানিত উপাচার্যদের এ বিষয়টি কঠোরভাবে দেখতে হবে। প্রধান নির্বাহী হিসেবে প্রশাসনিক কাজের পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম সঠিকভাবে পরিচালিত হচ্ছে কি না, তাও মনিটরিং করতে হবে। রাষ্ট্রের প্রতি দায়বদ্ধতার কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, মনে রাখবেন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের মোট খরচের সিংহ ভাগই আসে সরকারি কোষাগার থেকে আর কোষাগারের টাকা আসে আপামর জনগণের পকেট থেকে। তাই যে যেই বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরি করেন, সে বিশ্ববিদ্যালয়ের দায়িত্ব পালনকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিতে হবে।
রাষ্ট্রপতির এমন অপ্রিয় সত্য ভাষণকে আমরা স্বাগত জানাই। তার পরামর্শ অনুযায়ী ভিসিদের এগোতে হবে। সংশি¬ষ্টদের সততা ও কর্মকুশলের মাধ্যমেই এগিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা সৃষ্টি হবে যেকোনো উচ্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ



কেন এসব নিষ্ঠুরতা  এর শেষ কোথায়?

কেন এসব নিষ্ঠুরতা  এর শেষ কোথায়?

১৯ জানুয়ারী, ২০২০ ০০:০০











ব্রেকিং নিউজ



৫১ বোতল ফেন্সিডিলসহ  একজন গ্রেফতার

৫১ বোতল ফেন্সিডিলসহ  একজন গ্রেফতার

২১ জানুয়ারী, ২০২০ ০০:৫২







খসড়া তালিকায় ভোটার  ১০ কোটি ৯৬ লাখ

খসড়া তালিকায় ভোটার  ১০ কোটি ৯৬ লাখ

২১ জানুয়ারী, ২০২০ ০০:৪০