খুলনা | শনিবার | ১৮ জানুয়ারী ২০২০ | ৫ মাঘ ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

দালালের খপ্পরে পানি পথে মালয়েশিয়া যাত্রা 

চৌগাছার ৭ জন নিখোঁজের সাত বছর পর মামলা

যশোর প্রতিনিধি | প্রকাশিত ১৪ জানুয়ারী, ২০২০ ০০:০০:০০

চৌগাছার ৭ জন নিখোঁজের সাত বছর পর মামলা

যশোরের চৌগাছায় দালালের খপ্পরে পড়ে দীর্ঘ সাত বছর ধরে নিখোঁজ রয়েছে একই পরিবারের চারজনসহ সাত যুবক। মালয়েশিয়ায় যাওয়ার উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হয়ে তারা আর ফিরে আসেনি।
নিখোঁজের প্রায় সাত বছর পর গত রবিবার রাতে এক দালালকে চৌগাছা শহর থেকে আটক করে পুলিশে দেয়া হয়েছে। পরে এ ঘটনায় গত রবিবার রাতেই নিখোঁজ অমিত হাসান মুকুলের পিতা আতিয়ার রহমান চৌগাছা থানায় মানব পাচার প্রতিরোধ ও দমন আইনের ৭ ধারায় মামলা করেছেন। পুলিশ এ মামলায় পরিবারের লোকদের হাতে আটক দালাল ফজলুর রহমান রাজুকে (৪৮) গ্রেফতার করে।
চৌগাছা থানায় দায়েরকৃত মামলায় ভুক্তভোগী পরিবারের লিখিত অভিযোগে জানা গেছে, উপজেলার মুক্তদহ গ্রামের একই পরিবারের অমিত হাসান মুকুল (৩০), আজিজুর রহমান (৪০), ফুলজার হোসেন (৪৬), শরিফুল ইসলাম খোকন (৪০) ও একই গ্রামের শফিকুল ইসলাম (২৭), রোস্তমপুর গ্রামের রমজান আলী (৪৫) ও দুর্গাবরকাটি গ্রামের লিটন হোসেন (২৭) ২০১৩ সালের ১ জুন মালায়েশিয়া যাওয়ার উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হন। এরপর থেকেই তারা নিখোঁজ রয়েছেন।
পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি না ফেরায় নিখোঁজ পরিবারে নেমে এসেছে চরম হতাশা। উৎসব-পার্বন এলেই কান্নার রোল পড়ে যায় বাড়িগুলোতে। দীর্ঘদিন বাড়ির অভিভাবকরা নিখোঁজ থাকায় চরম দারিদ্র্যতা গ্রাস করেছে পরিবারগুলোকে। ফলে মানবেতর জীবনযাপন করছেন তারা। এক পর্যায়ে নিখোঁজ ফুলজার হোসেনের স্ত্রী রূপভান ২ মেয়ে এবং শরিফুলের স্ত্রী রেশমা বেগম ৩ মেয়ের ভরণপোষণের জন্য স্থানীয় ডিভাইন গার্মেন্টসে কাজ নিতে বাধ্য হয়েছেন।
অল্প টাকায় (সে সময়ে জন প্রতি ৩ লাখ টাকায়) মালয়েশিয়ায় যাওয়ার প্রলোভনে দরিদ্র পরিবারের এসব ব্যক্তিরা আদম ব্যাপারীর খপ্পরে পড়েন। মুক্তদহ গ্রামে বিয়ে সূত্রে বসবাসকারী সাতক্ষীরা জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার গোয়ালপোতা গ্রামের ফজলুর রহমান রাজু তাদেরকে ফুসলিয়ে পানিপথে মালায়েশিয়ার উদ্দেশ্যে পাঠানোর পর থেকে আজও তারা নিখোঁজ রয়েছেন।
২০১৩ সালের ১ জুন বাড়ি থেকে একযোগে বের হন তারা। ১২ জুন অমিত হাসান মুকুল বাড়িতে ফোন করে বলেন, ‘আমরা সবাই পানিপথে মালয়েশিয়া যাচ্ছি। ট্রলারে উঠেছি, এখনই রওনা দেব।’ ওই কথাই ছিল তাদের পরিবারের সঙ্গে তাদের শেষ কথা।
মুকুলের স্ত্রী চামেলী খাতুন বলেন, ‘যে নাম্বার থেকে ফোন দিয়েছিল সেই নাম্বার বন্ধ পেয়েছি। বারবার চেষ্টা করেও ফোনে কাউকে পাওয়া যায়নি। এরপর ছয়টি বছর কেটে গেলেও তার সন্ধান পাওয়া যায়নি। অতিকষ্টে দিন কাটছে আমাদের। 
নিখোঁজের তিন মাস পর তারা মুক্তদহ গ্রামের ঘরজামাই আদম ব্যাপারী রাজুর কাছে যান। স্বজনদের ফেরত পেতে চাপ দিতে থাকেন। এ সময় রাজু তার সহযোগী চট্টগ্রামের টেকনাফের অপর আদম ব্যাপারী রাশেদুল ইসলামের সঙ্গে কথা বলার সুযোগ করে দেন। টেকনাফের দালাল রাশিদুল তাদেরকে বলেন, ‘কোনো সমস্যা নেই, তারা দুই-এক দিনের মধ্যেই মালয়েশিয়ায় পৌঁছে যাবেন। কিছুদিন পরই মুক্তদহ গ্রামের ঘরজামাই দালাল রাজু তার স্ত্রীকে তালাক দিয়ে রাতের আঁধারে আত্মগোপনে চলে যান। পরে টেকনাফ ও মুক্তদহ গ্রামের দালালের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। এরপর রাজু একই উপজেলার মাধবপুর গ্রামের আতিয়ার রহমানের মেয়ে রনি বেগমকে বিয়ে করে। 
এ ঘটনার দীর্ঘ ৭ বছর পর গত রবিবার রাতে রাজুকে চৌগাছা বাজারে দেখতে পেয়ে ওই পরিবারের সদস্যরা ধরে মুক্তদহ গ্রামে নিয়ে যায়। পরে তাকে চৌগাছা থানায় সোপর্দ করে ভুক্তভোগী পরিবারগুলো। এ ঘটনায় অমিত হাসান মুকুলের পিতা আতিয়ার রহমান চৌগাছা থানায় মানব পাচার প্রতিরোধ ও দমন আইনের ৭ ধারায় মামলা করেন। মামলায় রাজুসহ টেকনাফের দালাল রাশেদুল ইসলাম এবং অজ্ঞাত দালাল আলমকে আসামি করা হয়। পুলিশ মামলায় ফজলুর রহমান রাজুকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে সোমবার দুপুরে আদালতে পাঠিয়েছে।
এ ব্যাপারে চৌগাছা থানার ওসি রিফাত খান রাজীব ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আটক দালাল রাজুকে মানব পাচার প্রতিরোধ আইনের মামলায় আদালতে পাঠানো হয়েছে। 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ