খুলনা | শনিবার | ১৮ জানুয়ারী ২০২০ | ৪ মাঘ ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

দৈনিক সংগ্রাম সম্পাদক ৩ দিনের রিমান্ডে

খবর প্রতিবেদন | প্রকাশিত ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:৪৬:০০

মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়া কাদের মোল্লাকে ‘শহিদ’ উল্লেখ করে সংবাদ প্রচার করায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ও রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় দৈনিক সংগ্রাম পত্রিকার সম্পাদক মোঃ আবুল আসাদকে তিন দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দিয়েছেন আদালত। পুলিশের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ মামুনুর রশীদের আদালত শনিবার এই আদেশ দেন।
এর আগে আসামি মোঃ আবুল আসাদকে আদালতে হাজির করে পাঁচ দিন রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করেন হাতিরঝিল থানার পুলিশ পরিদর্শক মোহাম্মদ গোলাম আজম। এ সময় তার জামিনের আবেদন করা হয়। শুনানি শেষে ম্যাজিস্ট্রেট জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে তার তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।
রিমান্ড আবেদনে বলা হয়, ২০১৩ সালের ১২ ডিসেম্বর ১৯৭১ সালের বিতর্কিত ভূমিকা, পাকিস্তানি হানাদার বহিনীর দোসর, মানবতাবিরোধী অপরাধে দেশের সর্বোচ্চ আদালতে সাজাপ্রাপ্ত রাজাকার আব্দুল কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় কার্যকর করা হয়। কিন্তু রাজাকার তথা মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষের শক্তির দোসররা এখনও দেশের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্র করে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় গত ১২ ডিসেম্বর আসামি মোঃ আবুল আসাদ দৈনিক সংগ্রাম পত্রিকার প্রথম পাতায় ৬, ৭ ও ৮ নম্বর কলাম জুড়ে শহিদ আব্দুল কাদের মোল্লার ৬ষ্ঠ শাহাদাৎ বার্ষিকী আজ শিরোনামে সংবাদ প্রচার করেন।
উক্ত সংবাদে কাদের মোল্লাকে মুক্তিযোদ্ধা আখ্যা দিয়ে লেখা হয়, ১৯৭১ সালে মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার জেসিও মফিজুর রহমানের ডাকে এলাকার বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ পড়ুয়া ছাত্রদের সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধের ট্রেনিংয়ে অংশগ্রহণ করেছিলেন আব্দুল কাদের মোল্লা। আসামির এ ধরনের উস্কানিমূলক সংবাদ প্রচার দেশের স্বাধীনতা, সার্বভেত্ব ও সংবিধানকে অস্বীকার করে।
গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজধানীর মগবাজারের দৈনিক সংগ্রাম’-এর অফিস থেকে তাকে আটক করে হাতিরঝিল থানা পুলিশ। রাতেই মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোহাম্মদ আফজাল বাদী হয়ে রাজধানীর হাতিরঝিল থানায় এই মামলাটি করেন। সংগ্রামের সম্পাদক আবুল আসাদকে ওই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে বাকি আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা হাতিরঝিল থানার পরিদর্শক (অপারেশনস) গোলাম আযম জানান। 
মামলায় সংগ্রাম সম্পাদক আবুল আসাদ ছাড়াও প্রধান প্রতিবেদক বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের একাংশের সভাপতি রুহুল আমিন গাজী এবং বার্তা সম্পাদক সাদাত হোসেনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। এ ছাড়া অজ্ঞাতনামা আরও ৬-৭ জনকে আসামি করা হয়েছে এজাহারে।


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ