খুলনা | শনিবার | ২৫ জানুয়ারী ২০২০ | ১২ মাঘ ১৪২৬ |

Shomoyer Khobor

পর্দা নামলো সাউথ এশিয়ান গেমসের

১৯ স্বর্ণসহ ১৩৭ পদক নিয়ে দেশে ফিরছে বাংলাদেশ : ব্যার্থতা ফুটবলে 

ক্রীড়া প্রতিবেদক | প্রকাশিত ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০:০০

দক্ষিণ এশিয়ান গেমসের (এসএ) ১৩তম আসর বসেছিল নেপালে। হিমালয় কন্যাদের দেশে নতুন করে ইতিহাস গড়েছে লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা। এসএ গেমসে এবার যে রেকর্ড গড়ে দেশের পতাকা উঁচিয়ে ধরেছে আন্তর্জাতিক মঞ্চে। গতকাল বুধবার আর কোন পদক আসেনি বাংলাদেশের। এই দিন কোন ইভেন্টেই খেলা ছিলো না বাংলাদেশের। তবে গতকাল দিনটিও বাংলাদেশের হতে পারতো। গতকাল ফুটবল ইভেন্ট দিয়ে শেষ হয় এসএ গেমস। ফুটবলে স্বর্ণ জয়ের প্রত্যাশা নিয়েই নেপাল গিয়েছিলো জামাল ভুইয়ারা। তবে  ফাইনালেই ওঠা হয়নি লাল সবুজদের। পুরো এসএ গেমসে বাংলাদেশের ফুটবল ইভেন্টকেই সবথেকে ব্যার্থতা বলা হচ্ছে। সদ্য শেষ হওয়া এই আসর থেকে বাংলাদেশ ফিরছে রেকর্ড ১৯ টি স্বর্ণপদক নিয়ে। ১৯ স্বর্ণ পদকের পাশাপাশি ৩২টি রৌপ্য ও ৮৭টি ব্রোঞ্জ পদকে ১৩৮ টি পদকেও রেকর্ড গড়েছে বাংলাদেশ। 
নেপালের অনুষ্ঠিত এসএ গেমসের এবারের আসরের সর্বোচ্চ ১০টি স্বর্ণপদক এসেছে আর্চারি থেকে। আর্চারির ১০টি ইভেন্টের স্বর্ণপদকই বাগিয়ে নিয়েছে বাংলাদেশ। এমন সাফল্য আর বাংলাদেশ দেখেনি কখনোই।
তবে ১৩তম আসরে বাংলাদেশের প্রথম স্বর্ণপদক আসে তায়কোয়ান্দোর হাত ধরে। নেপালে শুরু হওয়া এবারের আসরের দ্বিতীয় দিনে দিপু চাকমা লাল-সবুজের পতাকাকে এনে দেয় প্রথম স্বর্ণ। এরপর তৃতীয় দিন আল-আমিন, অন্তরা ও মারজানের হাত ধরে আসে আরও তিনটি স্বর্ণ। তৃতীয় দিনে বাংলাদেশের ঝুলিতে মোট স্বর্ণপদকের সংখ্যা দাঁড়ায় চারে। তৃতীয় দিনে কারাতে থেকে বাংলাদেশকে দ্বিতীয় স্বর্ণের স্বাদ এনে দেন সেনাবাহিনীর আল-আমিন। কারাতের কুমি ইভেন্টের অনূর্ধ্ব-৬০ কেজি শ্রেণিতে পান তিনি। আর সেদিনই কারাতে থেকে আরও এক স্বর্ণ এনে দেন মারজান আক্তার পিয়া। দেশের তৃতীয় স্বর্ণ আসে এই নারী অ্যাথলেটের হাত ধরে। ৫৫ কেজি কুমিতে পাকিস্তানের প্রতিযোগীকে ৪-৩ পয়েন্টের ব্যবধানে হারান তিনি।
তৃতীয় দিনের স্বর্ণজয়ের শেষ সেখানেই নয়; সেদিনই হোমায়রা আক্তার অন্তরার হাত ধরে আসে দিনের তৃতীয় এবং সব মিলিয়ে চতুর্থ স্বর্ণ। এর আগে হোমায়রাই এবারের আসরে প্রথম পদক এনে দিয়েছিলেন বাংলাদেশকে। কারাতে নারী এককে কুমি অনূর্ধ্ব-৬১ কেজি শ্রেণিতে বাংলাদেশের হয়ে ৪র্থ স্বর্ণপদক জয় করতে ফাইনালে স্বাগতিক নেপালের আনু গুরংকে ৫-২ পয়েন্টে হারান তিনি।
নেপালে দ্বিতীয় ও তৃতীয় দিন বেশ কেটেছিল বাংলাদেশের; তবে এরপর টানা তিন দিন অপেক্ষা করতে হয় পদকের তালিকায় স্বর্ণ যোগ করতে। তিন দিনের বিরতি শেষে আবারও চাঙ্গা হয়ে উঠে বাংলাদেশের অ্যাথলেটরা। এসএ গেমসের ৭ম দিনে যুক্ত হয় আরও তিনটি স্বর্ণপদক। ভারোত্তোলনে সেদিন প্রথম স্বর্ণপদক এনে দেন বাংলাদেশ আনসারের মাবিয়া আক্তার। দেশের পঞ্চম স্বর্ণপদক জয়ের পথে শ্রীলঙ্কার প্রতিযোগী প্রিয়ান্থিকে হারিয়ে সেরা বনে যান মাবিয়া।
এসএ গেমসের নবম দিন (৯ ডিসেম্বর) ছিল বাংলাদেশের ইতিহাস গড়ার দিন। আগের দিন আর্চারিতে ৬টি স্বর্ণ বাগিয়ে নেয়ার পর বাংলাদেশ আর্চারি থেকে ছিনিয়ে নেয় আরও চারটি স্বর্ণ। এতে করেই আর্চারির ১০ ইভেন্টের ১০টি থেকেই স্বর্ণজয় করে বাংলাদেশের আর্চাররা। আর এর মাধ্যমেই বাংলাদেশ দেখতে থাকে ২০১০ সালের ১৮ স্বর্ণজয়ের রেকর্ড ভাঙার স্বপ্ন।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ












খুলনায় অস্থির চালের বাজার

খুলনায় অস্থির চালের বাজার

২৫ জানুয়ারী, ২০২০ ০১:১৫