খুলনা | বৃহস্পতিবার | ১৫ নভেম্বর ২০১৮ | ১ অগ্রাহায়ণ ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

আ’লীগের আলোচনা সভায় বক্তারা

শোককে শক্তিতে পরিণত করে শেখ হাসিনাকে  ফের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আনতে হবে

খবর বিজ্ঞপ্তি | প্রকাশিত ১৬ অগাস্ট, ২০১৮ ০১:১৩:০০

শোককে শক্তিতে পরিণত করে শেখ হাসিনাকে  ফের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আনতে হবে

আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ বলেছেন, বাংলাদেশকে পাকিস্তানের তাবেদারিতে রাখতে মোস্তাক বেঈমানী করে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করে। মোস্তাকের দোসর হয়ে সেনাবাহিনীর কতিপয় সদস্য আর রাজনৈতিক নেতার সহযোগিতায় বঙ্গবন্ধুকে হত্যার ষড়যন্ত্র সফল করে। ফলে একই সময়ে বঙ্গবন্ধু, রব সেনিয়াবাদ, ফজলুল হক মনি, শিশু রাসেলসহ অসংখ্য মানুষকে হত্যা করেছিল ওই বেঈমানেরা। ক্ষমতার লোভে বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যদের যে সকল বেঈমানরা হত্যা করেছিল, তাদের অবস্থাও ইতিহাসের পাতায় জঘন্যভাবে লেখা রয়েছে। 
নেতৃবৃন্দ বলেন, বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনীদের দেশে ফিরিয়ে এনে অবিলম্বে ফাঁসির রায় কার্যকর করতে হবে। দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করতে হলে বঙ্গবন্ধুসহ সকল হত্যার বিচার করতে হবে। সে কারনে জেলখানায় চার নেতা হত্যা, গ্রেনেড ও সিরিজ বোমা হামলায় নিহতদের বিচারের মধ্যদিয়ে দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করতে হবে। এই আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করতে শেখ হাসিনাকে চতুর্থবারের মত রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আনতে হবে। 
নেতৃবৃন্দ শোককে শক্তিতে পরিণত করে আগামী নির্বাচনে ঐক্যবদ্ধ হয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আনতে অঙ্গিকার ব্যক্ত করেন।
বুধবার জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় নেতৃবৃন্দ এসব কথা বলেন। নগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও নব-নির্বাচিত মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেকের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন আ’লীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য এস এম কামাল হোসেন। বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন খুলনা জেলা আ’লীগ সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশীদ, নগর সাধারণ সম্পাদক ও ১৪ দলের সমন্বয়ক আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজান, কেন্দ্রীয় নেতা এড. চিশতি সোহরাব হোসেন, জেলা আ’লীগ ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এড. সুজিত অধিকারী। সভা পরিচালনা নগর আ’লীগ দপ্তর সম্পাদক মোঃ মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ ও উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মোঃ মফিদুল ইসলাম টুটুল। এ সময় বক্তৃতা করেন হাজী মোঃ নুরুজ্জামান, অধ্যাপক আশরাফুজ্জামান বাবুল, রনজিত কুমার ঘোষ, এড. সরদার আনিসুর রহমান পপলু, মোঃ পারভেজ হাওলাদার, মোঃ ইমরান হোসেন ইমু।
উপস্থিত ছিলেন আ’লীগ নেতা সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোল্লা জালাল উদ্দিন, শেখ হায়দার আলী, এড. এম এম মুজিবর রহমান, কাজী এনায়েত হোসেন, সাবেক প্যানেল মেয়র আজমল আহমেদ তপন, মল্লিক আবিদ হোসেন কবীর, এড. রজব আলী সরদার, এমডিএ বাবুল রানা, কামরুজ্জামান জামাল, এড. আইয়ুব আলী শেখ, এড. নবকুমার চক্রবর্তী, শ্যামল সিংহ রায়, মকবুল হোসেন মিন্টু, জামাল উদ্দিন বাচ্চু, কাউন্সিলর জেড এ মাহমুদ ডন, জোবায়ের আহমেদ খান জবা, এড. খন্দকার মজিবর রহমান, এড. অলোকা নন্দা দাস, অধ্যাপক আলমগীর কবীর, অধ্যক্ষ শহিদুল হক মিন্টু, শেখ মোশাররফ হোসেন, ফকির মোঃ সাইফুল ইসলাম, অধ্যক্ষ দেলোয়ারা বেগম, তসলিম আহমেদ আশা, এড. সুলতানা রহমান শিল্পী, কাউন্সিলর এস এম মোজাফ্ফর রশিদী রেজা ও ইমাম হাসান চৌধুরী ময়না, খালেদীন রশিদী সুকর্ন, এস এম আসাদুজ্জামান রাসেল হ দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ। 
এর আগে সকাল ৭টায় দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ, কালো পতাকা উত্তোলন, কালো ব্যাজ ধারণ, দলীয় কার্যালয়ে জাতির পিতার বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান করা হয়। সকাল সাড়ে ৮টায় নিউমার্কেট থেকে র‌্যালি নিয়ে বাংলাদেশ বেতার খুলনা কেন্দ্রে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করা হয়। সকাল ৯টায় দলীয় কার্যালয় হতে শোক র‌্যালি নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে দলীয় কার্যালয়ে এসে শেষ হয়। এছাড়া নগরীর প্রত্যেক ওয়ার্ডের মসজিদে মসজিদে মিলাদ ও দোয়া, মন্দির, গীর্জায় বিশেষ প্রার্থনা করা হয়। সকল ও সহযোগী সংগঠন, পেশাজীবী সংগঠন বঙ্গবন্ধুর ৪৩তম শাহাদাৎবার্ষিকী যথাযথ মর্যাদায় পালন করেন। 
সন্ধ্যায় দলীয় কার্যালয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ ১৫ আগস্টে নিহত সকলের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। 
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ