খুলনা | শনিবার | ১৮ অগাস্ট ২০১৮ | ২ ভাদ্র ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

বঙ্গোপসাগরে আরো ২টি ট্রলার ডুবি ৯ জেলে নিখোঁজ : স্বজনরা উৎকন্ঠায়

শরণখোলা প্রতিনিধি  | প্রকাশিত ২৩ জুলাই, ২০১৮ ০১:০৪:০০


সুন্দরবন সংলগ্ন বঙ্গোপসাগরে বৈরী আবহাওয়ার মধ্যে নিখোঁজ শরণখোলাসহ উপকূলীয় এলাকার ১০/১২টি ট্রলার ফিরে এলেও এখনো অন্ততঃ ২৫টির কোন খোঁজ পাওয়া যায়নি। এছাড়া সাগরের পানিতে তলিয়ে যাওয়া এফবি তারেক ট্রলারের জেলে আমির হোসেনের হদিস এখনো মেলেনি। এদিকে, সাগরে আরো ২টি ফিশিং ট্রলার ডুবে যাবার খবর পাওয়া গেছে। ওই ট্রলারের ৯ জেলে পানিতে তলিয়ে গেছে। এসব ঘটনায় নিখোঁজ জেলেদের পরিবারে উদ্বেগ বেড়েই চলেছে। 
বরগুনা জেলা ফিশিং ট্রলার শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক দুলাল মাস্টার জানান, গত শনিবার সাগরে নিখোঁজ ৩৪টি ট্রলারে মধ্যে ১০/১২টি ফিরে এসেছে। এখনো নিখোঁজ রয়েছে প্রায় ২৫টি ট্রলার। তাদের স্বজনরা সকাল থেকে মৎস্য ঘাটে এসে ভীড় করছে।  কোন  ট্রলার ফিরে এলেই সেখানে তারা হুমড়ি খেয়ে পড়ছে স্বজনদের পাবার আশায়। একই দিনে ফেয়ারবয়া এলাকায় পানিতে ডুবে যাওয়া এফবি তারেক ট্রলারে জেলে আমির হোসেনের কোন সন্ধান এখনো পাওয়া যায়নি। তিনি আরো জানান, গত শনিবার সকালে আরো ২টি ফিশিং ট্রলার ডুবে যাওয়ার খবর তিনি শুনেছেন। ট্রলার দু’টির ৩৫ জেলের মধ্যে ৯ জেলে এখনো নিখোঁজ রয়েছে। এ দুু’টি ট্রলার হচ্ছে বরগুনার গুলিশাখালী এলাকার কামাল দফাদারের মালিকানাধীন এফবি ভাই ভাই ও বরগুনা সদরের আশুতোষ বাবুর এফবি অর্ক। 
শরণখোলার রাজৈর গ্রামের মৎস্য ব্যবসায়ী কবির আড়ৎদার জানান, তার মালিকানাধীন এফবি খাইরুল ইসলাম ও একই গ্রামের কামাল মিয়ার এফবি আল্লা মালিক ফিশিং ট্রলারের কোন সন্ধান তারা পাচ্ছেন না।
কোস্ট গার্ড মংলা জোনের অপারেশন কমান্ডার লেফটেনেন্ট আব্দুল্লাহ্ আল মাহদুদ জানান, খবর পেয়ে তাদের জাহাজ সিজিএস মুনসুর আলী ও সিজিএস তানজিরা সাগরে খোঁজ-খবর টহলে রয়েছে। এছাড়াও বাংলাদেশ নৌ-বাহিনীর তিনটি জাহাজ রয়েছে।  
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ