নগরীতে সন্ত্রাসীদের ছুরিকাঘাতে পলিটেকনিক ছাত্র নিহত


নগরীর দোলখোলা এলাকায় সন্ত্রাসীদের ছুরিকাঘাতে মেহেদী হাসান (২২) নামে পলিটেকনিক কলেজের এক ছাত্র নিহত হয়েছেন। গতকাল বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। তবে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত এ হত্যাকান্ডের কারণ হিসেবে পুলিশ কোন তথ্য জানাতে পারেনি। সন্ত্রাসীরা ধারালো ছোরা দিয়ে মেহেদী হাসানের গলার নিচে ও পিঠে আঘাত করে। মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।  
নিহত মেহেদী হাসান নগরীর বয়রাস্থ সাজেস  টেকনিক্যাল কলেজের কম্পিউটার বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্র ছিল। সে সদর থানাধীন বাগমারা মেইন রোডস্থ ওহাব সাহেবের বাড়ির ভাড়াটিয়া রাজমিস্ত্রি মামুন হাওলাদারের ছেলে। ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল ও খুমেক হাসপাতালে গিয়ে খোঁজ খবর নিয়েছেন। 
সদর থানার ওসি মোঃ হুমায়ুন কবির জানান, গতকাল বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে নগরীর দোলখোলা এলাকায় কে বা কারা মেহেদী হাসান নামের এই যুবককে ছুরিকাঘাত করে। স্থানীয় কয়েকজন তাকে নিয়ে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িতদের সনাক্ত করণে একাধিক টিম মাঠে কাজ করছে বলেও জানান তিনি। এদিকে এ হত্যাকান্ডের রহস্য উদ্ঘাটনে র‌্যাব ৬’র স্পেশাল কোম্পানি কমান্ডার এনায়েত হোসেন মান্নান এর নেতৃত্বে দু’টি টিম মাঠে নেমেছে। নিহতের পিতা মামুন হাওলাদার জানান, বয়রাস্থ সাজেস টেকনিক্যাল কলেজের কম্পিউটার বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্র ছিল মেহেদী হাসান। গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় একজন মেহেদীর মোবাইল নম্বর থেকে তার মায়ের কাছে ফোন করে জানায় মেহেদী অসুস্থ হয়ে পড়েছে তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। খবর পেয়ে হাসপাতালে ছুটে যান বাবা মামুন হাওলাদার। হাসপাতালে গিয়ে ছেলের মৃতদেহ দেখতে পান তিনি। তার ছেলে স্থানীয় কয়েকজন যুবকের সাথে সব সময় চলাফেরা করতো বলেও তিনি জানান।


footer logo

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।