খুলনা | শুক্রবার | ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ৫ আশ্বিন ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

‘সময়ের খবর’র আত্মকথন

নবম বছরে পদার্পণ পাঠকের আস্থা অর্জন

আশরাফুল ইসলাম নূর  | প্রকাশিত ০৩ জুলাই, ২০১৮ ০১:৫৯:০০

নবম বছরে পদার্পণ পাঠকের আস্থা অর্জন

নবম বর্ষে পদার্পণ, পাঠকের আস্থা অর্জন। উত্তর...পূর্ব...পশ্চিম...দক্ষিণ, চারদিকে নেতিবাচকের চেয়ে ইতিবাচক খবর প্রকাশেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। শিশুকালের আটটি বছর পেরিয়ে নয়ে পৌঁছিয়েছি আজ। এ সময়ের প্রতিটি মুহূর্ত খুলনা, দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল তথা দেশ ও জনগণের মূখপাত্র হিসেবে দায়িত্ব পালনে ছিলাম অপোষহীন। ফেলে আসা আরও একটি বছর সম্পর্কে ‘সময়ের খবর’র আত্মকথন ঠিক এমনি। দৈনন্দিন খবরাখবরের পাশাপাশি বাড়তি কিছু দিতে চেষ্টা করেছি পাঠককে। তাই আগামী দিনগুলোতেও আমার পাশে থাকার বিনম্র আহ্বান সকলের প্রতি।
এবার আসি ফিরে দেখায় গেল বছরে; খুলনা শিপইয়ার্ডে যুদ্ধ জাহাজ তৈরির সাফল্য ও মংলা বন্দরের আয় বৃদ্ধির চিত্র তুলে ধরেছি। এ অঞ্চলের অবকাঠামোগত উন্নয়ন, সংস্কার এবং জরাজীর্ণ অবস্থা তুলে ধরেছি পাঠকের সামনে। অনিয়ম-দুর্নীতি, মাদক-সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য সম্পর্কে পাঠকের কৌতূহল পূরণের চেষ্টা করেছি। সুন্দরবনে বনদস্যু নির্মূলে র‌্যাব-৬ কে সহায়তা করায় সম্প্রতি সম্মাননা পেয়েছেন নিজস্ব প্রতিবেদক সোহাগ দেওয়ান।
খুলনার বিশিষ্ট ব্যক্তিদের শৈশব-কৈশোর পাঠকের সামনে তুলে ধরতে ‘কৈশোরের দিনগুলি’ শিরোনামে ধারাবাহিক প্রতিবেদন সর্বজন সমাদৃত হয়। তার আগে গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর সচেতনতায় গেল বছরে ‘ফকির কবিরাজদের হালচাল’ শীর্ষক ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।
কৃষকের উৎপাদিত খাদ্য-শস্যের ন্যায্য মূল্য প্রাপ্তি, মধ্যস্বত্তভোগীদের দমনে সহায়ক কৃষি খবর প্রকাশ করেছি। উৎপাদিত গলদা-বাগদার ন্যায্যমূল্য না পাওয়ায় কৃষকদের দৈন্যদশা তুলে ধরেছি। এদিকে, প্রতি সপ্তাহে বাজারমূল্যের অসঙ্গতি তুলে ধরে ছিল আমাদের সাপ্তাহিক বাজারদর প্রতিবেদন। উৎসব-পার্বনকে পুঁজি করে অসাধু ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেট ভাঙতে বছর জুড়েই ছিলাম সচেষ্ট। উর্দ্ধমুখী মূল্য নিয়ন্ত্রণ ও বাজার তদারকি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছি। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর সহায়তা বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা (এনজিও) গুটিয়ে নিচ্ছে, এ খবরও প্রকাশ করেছি।
মৌলিক অধিকার ‘চিকিৎসা সেবা’ সম্পর্কে সাধারণ মানুষের পাশে ছিলাম সার্বক্ষণ। শহিদ শেখ আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপাতাল, খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, খুলনা জেনারেল হাসপাতালসহ এ অঞ্চলের স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রগুলোতে আমার উপস্থিতি ছিল দৃশ্যমান। এরমধ্যে হাসপাতাল থেকে সরকারি ওষুধ চুরি, আউটসোর্সিং শ্রমিক ও বহিরাগত এ্যাম্বুলেন্স চালকদের দৈরাত্ম্য দমনে কর্তৃপক্ষের বলিষ্ঠ ভূমিকা তুলে ধরেছি। একই সাথে নকল ও ভেজাল ওষুধ বিকিকিনি, ওষুধের অতিরিক্ত মূল্য আদায় সংক্রান্ত প্রতিবেদনও তুলে ধরেছি জনকল্যাণে।
পাটকল শ্রমিকদের বকেয়া বেতন-ভাতা আদায়ে কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সোচ্চার ভূমিকা রেখেছি। বিশেষ করে রমজান, ঈদ, পহেলা বৈশাখসহ ধর্মীয় ও জাতীয় উৎসবে বেতন-বোনাস পেতে রাজপথে শ্রমিক-কর্মচারীদের আন্দোলনে তাদের পক্ষে আমিও ছিলাম সরব। আবার, অগ্নিকান্ডে ভস্মীভূত বা কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অনিয়ম-দুর্নীতির প্রতিবাদে ক্ষতিগ্রস্ত মালিকপক্ষের পাশে দাঁড়িয়েছি সহমর্মী হয়ে। এছাড়াও পাটশিল্পের সংকট-সম্ভাবনা নিয়ে ছিলো আমাদের নানা আয়োজন!
শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের স্যানিটেশন থেকে শুরু করে শ্রেণীকক্ষে পাঠদান, অবকাঠামোগত উন্নয়ন, শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের অসঙ্গতি তুলে ধরেছি পাঠকের সামনে। কোচিং ব্যবস্থা ভেঙে শ্রেণীকক্ষে পাঠদান ও অনুশীলন নিশ্চিত করতে জেলা প্রশাসন ও শিক্ষা অধিদপ্তরের অভিযানের খবর তুলে ধরেছি সযতেœ। স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ইতিবাচক সব প্রতিবেদন ছিল বছরজুড়ে।
মাদক নির্মূলে সাহসী প্রতিবেদন প্রকাশ করছি জন্মলগ্ন থেকেই। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাদক বিক্রেতা ও আশ্রয়-প্রশ্রয়দাতাদের তালিকা পেয়ে আঞ্চলিক পত্রিকার মধ্যে আমরাই প্রথমে খুলনা অঞ্চলের মাদক বিক্রেতাদের নাম প্রকাশ করেছিলাম। তাতে প্রতিবেদককে জীবন-নাশের হুমকিও দেয় মাদক বিক্রেতারা। তাতেও পিছু না হটে বরং অসাধু পুলিশ সদস্য এবং মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মাদক সম্পৃক্ততা চিত্র তুলে ধরেছি সাহসের সাথে। এছাড়া জরাজীর্ণ সড়ক পথের বিপদজনক যাতায়াতের ঝুঁকি, চলাচল অনোপযোগী লক্কড়ঝক্কড় ও অনিরাপদ যানবাহন বন্ধে, খুলনা-ঢাকা স্টিমার সার্ভিসটির প্রচার বিশেষ প্রতিবেদন তো ছিলই। খুলনা-কলকাতা সরাসরি বাস সার্ভিসটির নানা ভোগান্তির চিত্র তুলে ধরেছি সাধ্যমতো। এছাড়া সড়ক দুর্ঘটনায় হতাহতদের চিত্র তুলে ধরেছি শোকাবহ প্রতিবেদনে। অপরদিকে, নগরবাসীর নাগরিক সেবার সমস্যা-সম্ভাবনা তুলে ধরে নজর কাড়ার চেষ্টা করেছি কেসিসি’র। উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে যেমন সমাদৃত হয়েছে, তেমনি অনিয়ম-দুর্নীতির চিত্রও তুলে ধরা হয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের।
বিভাগীয় সদর খুলনাসহ দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের রাজনৈতিক নেতৃত্ব বিকাশে গঠনমূলক প্রতিবেদন ছিল বছর জুড়েই। গণতান্ত্রিক ও গঠনতন্ত্রভিত্তিক রাজনৈতিক সংগঠনগুলো পরিচালনায় সবসময় সহায়ক গণমাধ্যমের ভূমিকা পালন করেছি।
একদিকে, মহানগরীতে গণপরিবহন সংকট, অন্যদিকে ইজিবাইক-অটো রিকশার আধিক্যের জটে আমাদের প্রিয় শহর খুলনা। অবৈধ এসব ইজিবাইক থেকে টোকেন বাণিজ্যের মাধ্যমে চাঁদাবাজীর সচিত্র তুলে ধরেছি পাঠকের সামনে। রাষ্ট্রায়ত্ত তেল কোম্পানির ডিপো থেকে জ্বালানী তেল চুরির সিন্ডিকেট উন্মোচন। ভারতের সাথে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সীমান্তবর্তী এলাকায় বিএসএফ’র হাতে বাংলাদেশী হত্যার খবর, সীমান্তে চোরাকারবারী ও সোনা পাচার সম্পর্কিত প্রতিবেদনগুলো বেশ সাড়া পড়ে।
উল্লেখ্যযোগ্য ভূমিকা রেছেছি ক্রীড়াঙ্গণে। খুলনার শেখ আবু নাসের আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম ও খুলনা জেলা স্টেডিয়ামের উন্নয়ন-সংস্কার নিয়ে প্রতিবেদন ছিল ক্রীড়ামোদীদের হৃদয় গ্রাহী। আঞ্চলিক বৈষম্যে আন্তর্জাতিক খেলা খুলনা না পাওয়ার বঞ্চনাও তুলে ধরেছি পত্রিকার পাতায়। 
আঞ্চলিক ও জাতীয় খেলাধুলা, বিশ্বখ্যাত ক্রীড়া আসরগুলো অতুলনীয় রূপে প্রকাশ করেছি ‘খেলার মাঠে’ পাতায়। খুলনার খ্যাতিমান, সম্ভাবনাময়, সাবেক-প্রবীণ ক্রীড়াবিদ ও ক্রীড়া সংগঠকদের চারপাশের খবরাখবর ছিল পাঠকের চাহিদা পূরণে অঙ্গীকারাবদ্ধ। ক্রীড়া সাংবাদিকতায় বিশেষ অবদান রাখায় গেল বছর ক্রীড়া প্রতিবেদক আব্দুল্লাহ আল মামুন রুবেলকে শ্রেষ্ঠ মিডিয়া কর্মী সম্মাননা দেয় খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ। মাদক, সন্ত্রাস ও দুর্নীতিমুক্ত সমাজ বিনির্মাণে তরুণ প্রজন্মকে সুস্থ শরীর চর্চায় ‘খেলার মাঠে’ হাতছানি দেই আমি, সময়ের খবর।


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ

বদলে যাবে মংলা বন্দর

বদলে যাবে মংলা বন্দর

০৩ জুলাই, ২০১৮ ০২:০১













ব্রেকিং নিউজ




আজ ১০ মহররম পবিত্র আশুরা 

আজ ১০ মহররম পবিত্র আশুরা 

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:৫৮

কেসিসিতে আজ ও কাল সাপ্তাহিক ছুটি বাতিল

কেসিসিতে আজ ও কাল সাপ্তাহিক ছুটি বাতিল

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:৫৭





খুলনায় সেঞ্চুরিতে নজর কাড়লেন সোহান

খুলনায় সেঞ্চুরিতে নজর কাড়লেন সোহান

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:৫০


অভিষেকেই আবু হায়দার রনির চমক

অভিষেকেই আবু হায়দার রনির চমক

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:৪৫