খুলনা | বৃহস্পতিবার | ১৫ নভেম্বর ২০১৮ | ১ অগ্রাহায়ণ ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

রিমান্ড শেষে ৩ জন কারাগারে 

খুমেক হাসপাতালে এ্যাম্বুলেন্সে চাঁদাবাজ চক্রের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেয়েছে পুলিশ 

নিজস্ব প্রতিবেদক  | প্রকাশিত ২০ জুন, ২০১৮ ০০:৫১:০০

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের এ্যাম্বুলেন্সে চাঁদাবাজি চক্রের সাথে জড়িত অনেকের নাম পেয়েছে পুলিশ। পাশাপাশি খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসা সেবাকে ঘিরে এক শ্রেণীর অপরাধীদের সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে। চাঁদাবাজিকালে গ্রেফতার তিনজন রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে এ সকল তথ্য পেয়েছে বলে সোনাডাঙ্গা থানা পুলিশ জানিয়েছে। 
এ বিষয়ে তাদের অভিযান আরও জোরদার করা হবে বলেও জানান অফিসার ইনচার্জ মোঃ মমতাজুল হক। এদিকে আদালতের নির্দেশে একদিনের রিমান্ড শেষে গতকাল মঙ্গলবার গ্রেফতার তিনজনকে আদালতে সোপর্দ করা হলে মহানগর হাকিম মোঃ শাহীদুল ইসলাম কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দিয়েছেন। 
আসামিরা হলো সোনাডাঙ্গা থানাধীন বয়রা মসজিদ রোডের মোঃ সিদ্দিকের ছেলে মোঃ সাইদুজ্জমান শুকুর (২২) ও ছোট বয়রা মসজিদ রোডের রাজাদের বাড়ির ভাড়াটিয়া হারুন অর রশিদ শিকদারের ছেলে মোঃ আল আমিন ওরফে কালু (৩০), ছোট বয়রা খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে মাদ্রাসা রোডস্থ সেনা সদস্যর বাড়ির ভাড়াটিয়া মোঃ কায়কোবাদ মোড়লের ছেলে মোঃ ফারুক হোসেন (৩৩)। 
উল্লেখ্য, ১৪ জুন সকালে পাইকগাছা উপজেলার দরগামহল গ্রামের খন্দকার আছাদুজ্জামান (৬০) নামের একজন রোগীর মৃত্যুর পর লাশ এ্যাম্বুলেন্সে নেয়ার সময় খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অভ্যন্তরে চাঁদাবাজিকালে দু’জন গ্রেফতার হয়। এরপর পুলিশ অভিযান চালিয়ে আরও একজনকে গ্রেফতার করে। এ ঘটনায় মৃত ব্যক্তির ছেলে খন্দকার কামরুজ্জামান বাদী হয়ে সোনাডাঙ্গা মডেল থানায় দ্রুত বিচার আইনে মামলা দায়ের করেছেন (নং-২০)।


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ