খুলনা | শুক্রবার | ২২ জুন ২০১৮ | ৮ আষাঢ় ১৪২৫ |

সত্যিকারের ঈদ আনন্দ

১৪ জুন, ২০১৮ ০০:২৮:০০

সত্যিকারের ঈদ আনন্দ


রাত তিনটা প্রতিদিনের মতো তানহা ঘুম থেকে উঠে সেহরি খেতে বসে। তার পাশে ই বসে সেহরি খাচ্ছে তার ছোট বোন তাহরিমা। হঠাৎ সে বলে উঠলো ভাইয়া ঈদের জামা কিনে দেবে না?
তানহা তার ছোট বোন তাহরিমা এবং তার মা আয়েশা একই সাথে শহরে একটি ছোট্ট বাসা ভাড়া করে থাকে। তার বাবা ছোট বেলায় মারা যাওয়ার পর চাচারা সব জমি জায়গা দখল করে তাদের বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়। সেদিন কোন কূল কিনারা না পেয়ে তানহার মা আয়েশা ছেলে মেয়েদের নিয়ে শহরে চলে আসে। মানুষের বাড়ি বাড়ি কাজ করে তাদের সংসার চালাতো এবং লেখাপড়া শিখাতে থাকেন। কিন্তু তানহার ১৭ বছর বয়সে আয়েশা খুব অসুস্থ হওয়ায় আর কোন কাজ করতে পারেনা। তাই এখন তানহাকে-ই দেখতে হচ্ছে তার সংসার। সকাল বেলা কলেজ করে বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত একটা কোম্পানিতে কাজ করে।  মাস শেষে তিন হাজার টাকা বেতন পায় সে। এ দিয়ে সংসার না চললে ও কোন মতে চালিয়ে নেয় তারা। একদিকে মায়ের ঔষধ অন্যদিকে সংসার আবার লেখাপড়া। তানহার ছোট্ট মাথাতে-ই নিতে হচ্ছে এতো টেনশন। এর মধ্যে বোনের এমন বায়না তার হৃদয়ে খুব আঘাত করে। সে ভাবে হ্যাঁ তাইতো আর দুদিন পরে ই তো ঈদ! কিন্তু এই মুহূর্তে তার হাতে তো কোন টাকা ই নেই। কিন্তু বোনকে সান্ত্বনা দিয়ে সে বলে- হ্যাঁ অবশ্য ই কিনে দেবো।
-আয়েশা বলে, কোথায় পাবি জামা কেনার টাকা বাবা?
-তানহা উত্তর দেয়, মা তুমি চিন্তা করনা একটা ব্যবস্থা হয়ে যাবে।
ফজরের নামাজ পড়ে তানহা বের হয়ে যায় কাজের খোঁজে কিন্তু এই মুহূর্তে বাড়তি কাজের জায়গা ও পাচ্ছে না সে। আবার কারো কাছে ধারের জন্য গেলে ও কেউ রাজি নয় তাকে টাকা দিতে। এমন অবস্থায় তানহা বুক থাবড়ে কাঁদতে থাকে আর ভাবে ছোট বোনটি এই আবদারটা সে রাখতে পারবে না?
বাড়ি ফেরার পথে মার্কেটে জামার দাম দেখতে গেল তানহা। মার্কেটের প্রথম একটা দোকানে সে দেখতে পেল একটা লোক কিছু জামা-কাপড় ব্যাগে ভরছিল।  লোকটির এমন কাজে তার একটু সন্দেহ হলে সে অন্য দোকানদারদের ডাক দিল। তারা আসার আগেই লোকটি সব রেখে পালিয়ে গেল। এরইমধ্যে সেই দোকানদার নামাজ পড়ে আসলো। সবার মুখে ঘটনা শুনে তানহাকে কাছে টেনে নাম জানতে চাইল আর পকেট থেকে পাঁচশ’ টাকার একটা নোট বের করে দিল।
কিন্তু তানহা বললো, আমি কোন টাকা চাই না। আপনি পারলে দু’দিনের জন্য আমাকে একটা কাজ দিন।
পরে দোকানদার তানহার সব কথা শুনে তাকে দোকানের কর্মচারী হিসেবে রাখলো।
অন্যদিকে ঈদের আগের দিন বোন জিজ্ঞেস করে, ভাইয়া জামা আনবে না?
তানহা উত্তর দেয়, হ্যাঁ আনবো তো। কিন্তু সে নিজে ও জানে না দোকানদার তাকে দুদিনের জন্য কত টাকা মজুরি দিবে?
আজ চাঁদ উঠছে সবার মনে কত আনন্দ। কিন্তু তানহা দোকানের কাজে ব্যস্ত আর অন্যদিকে তাহরিমা মন খারাপ করে বসে আছে। কারণ তার নতুন জামাটি এখনো হয়নি। রাত বারোটার দিকে যখন সব দোকান বন্ধ হয়ে যাবে তখন দোকানদার তানহাকে কাছে ডাকলো, হাতে এক হাজার টাকা এবং তার বোনের জন্য একটি নতুন লাল জামা দিল। তানহা দোকানদারের উপর খুব সন্তুষ্ট হলো। আর বাড়ি ফেরার পথে খুব অল্প দামে মায়ের জন্য একটি শাড়ি আর নিজের জন্য একটি পাঞ্জাবী কিনল। বাড়ি ফিরে দেখলো বোনটি এখনো জেগে আছে নতুন জামা নিয়ে আসবে বলে। তানহা তার মাকে আর বোনকে কাপড় গুলো দিয়ে বলে, মা আমি এই দুু’দিন একটা দোকসনে কাজ করে এই গুলো এনেছি। নতুন জামা পেয়ে আজ তাহরিমা ও বেজায় খুশি। তার আনন্দ যেন পুরো ঘর জুড়ে বইছে। আয়েশা ও ছেলে মেয়েদের আনন্দ দেখে অসুস্থতা সত্ত্বে ও সুস্থতা খুজে পেয়েছেন। ঈদের দিন সকালে তাহরিমা নতুন জামা পরে বাইরে বেড়াচ্ছে,  বন্ধুদের সাথে খেলছে। এটা দেখে তানহার মনে ও আনন্দ জেগে উঠলো। আজ যেন সে সত্যিকারের ঈদ আনন্দ পেলো।

লেখকঃ- তানভীর বিন মানসুর
সোনাডাঙ্গা, খুলনা
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ




বিশ্বকাপ জিতবে কোন দেশ?  

বিশ্বকাপ জিতবে কোন দেশ?  

১৪ জুন, ২০১৮ ০১:৩৮

ইতিহাসে ফুটবল বিশ্বকাপ

ইতিহাসে ফুটবল বিশ্বকাপ

১৪ জুন, ২০১৮ ০১:৩৯

বিশ্বকাপের বল টেলস্টার -১৮

বিশ্বকাপের বল টেলস্টার -১৮

১৪ জুন, ২০১৮ ০১:৩৮








ব্রেকিং নিউজ












বিশ্বকাপে আজকের খেলা

বিশ্বকাপে আজকের খেলা

২২ জুন, ২০১৮ ০০:৪৫