খুলনা | সোমবার | ২২ অক্টোবর ২০১৮ | ৭ কার্তিক ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

প্রকৃত হতভাগা কারা? 

মুফতি রবিউল ইসলাম রাফে | প্রকাশিত ০৫ জুন, ২০১৮ ০১:০৭:০০

আজ ১৯ রমজান। পবিত্র মাহে রমজানের মাগফিরাত দশকের আর মাত্র এক দিন বাকি। এখন আমাদের হিসাব মিলানো দরকার যে পবিত্র রমজান মাসে মাগফিরাতের দিন গুলোতে আমরা কি অর্জন করলাম। আসলেই কি আমরা মাগফিরাত বা ক্ষমা প্রাপ্ত হয়েছি? হাজারো পাপে ভরা আমলনামা কি নেকীর দ্বারা পরিবর্তিত হয়েছে? যদি না হয়, তাহলে তো আমাদের মত হতভাগা কেউ নেই। কারণ আল্লাহর রসুল (সঃ) বলেছেন, যে ব্যক্তি এই মাসে মাগফিরাত লাভ করতে পারল না সেই প্রকৃত হতভাগা।  মহিমান্বিত এই মাস যে বার্তা আমাদের কাছে নিয়ে এসেছিল তার কতটুকু আমাদের জিন্দেগীতে  প্রতিফলিত হলো। ভালো ছাত্র মাত্রই পরীক্ষার আগ মুহূর্তে হিসাব-নিকাশ করে আর নিজের মনকে জিজ্ঞাসা করে, প্রস্তুতি সব ঠিক ঠাক তো? কতটুকু পড়লাম আর কতটুকু বাকি? ব্যবসায়ী বা দোকানদার  দিনের শেষে অংক কষতে বসে, কতটুকু লাভ হলো আর কি পরিমাণ লোকসান হল? যদি লোকসান হয় কিংবা লাভ কম হয় তাহলে পরিকল্পনা করে, কিভাবে আগামীতে আরও বেশী বেশী লাভ করা যায়। রমজানও এসেছে আখেরাতের এক মহান ব্যবসা নিয়ে। লাভের পরিমাণও ঘোষণা করা হয়েছে ন্যূনতম সত্তর গুণ, উর্ধ্বে অগণিত, মহান আল্লাহর শান অনুযায়ী। বরকত, মাগফিরাত ও নাজাতের পসরা নিয়ে পবিত্র এই মাস মেহমান হয়ে এসেছে আমাদের আঙ্গিনায়। আমরা কি তার ঠিকমত সমাদর করতে পেরেছি? রোযার সমস্ত আহকাম কি আমরা ঠিকমত আদায় করতে পেরেছি এবং দয়ালু মাওলার সাধারণ ক্ষমার আওতায় নিজেকে আনার মত যোগ্য বানিয়েছি?  মাগফিরাতের দশক একেবারে শেষের পথে। আর দেরী না করে এখনই  এই সমস্ত প্রশ্নের উত্তর খোঁজা উচিত। যদি উত্তর হ্যাঁ বাচক হয় তাহলে আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করি, আর যদি না বাচক হয় তাহলে মহান আল্লাহর কাছে চোখের পানি ফেলে মাফ চাই। নিজ পাপের জন্য অনুশোচনা করি এবং ভবিষ্যতে  পাপ না করার ওয়াদা করি। কারণ আল্লাহ তায়ালা তো গফুরুর রহীম, তিনি সমস্ত গোনাহ মাফ করে দিতে পারেন, এতে কারো অভিযোগ উঠানোর এখতিয়ার নেই। মহান আল্লাহপাক নিজেই পবিত্র কুরআনে এরশাদ করেন, আমার রহমত থেকে নিরাশ হয়ো না। নিশ্চয়ই আল্লাহ তোমাদের সব গোনাহ ক্ষমা করে দেবেন (সুরা যুমার: আয়াত ৫৩)। তাই আসুন আর দেরী না করে বাকি দিন গুলোতে মহান আল্লাহর কাছে চোখের পানি ফেলে দোয়া করি যাতে তিনি আমাদের সমুদয় গোনাহরাশি মাফ করে দেন। কবির ভাষায় বলতে হয়, “শোন মুুমিন-মুসলমান/ কেঁদে কেঁদে বল-, ভূল করেছি মাফ করে দাও/ ফেলিস চোখের জল”। 
(লেখক: আরবী সাহিত্যিক ও মুহাদ্দিস, জামি’য়া ইসলামিয়া মারকাযুল উলুম, বাগমারা, খুলনা)


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ

চেয়ারে বসে নামায ও শরয়ী হুকুম

চেয়ারে বসে নামায ও শরয়ী হুকুম

১৯ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:১০

“শরীয় বিধানে দেনমোহর”

“শরীয় বিধানে দেনমোহর”

১২ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০৩

যে আগে সালাম দেয় সে অহংকার মুক্ত

যে আগে সালাম দেয় সে অহংকার মুক্ত

০৫ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:১০

“অকাল মৃত্যু” একটি ভ্রান্ত ধারণা

“অকাল মৃত্যু” একটি ভ্রান্ত ধারণা

২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:১২


রহস্যময় আবে যমযম কূপ

রহস্যময় আবে যমযম কূপ

১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০৯

পবিত্র আশুরা  ২১ সেপ্টেম্বর

পবিত্র আশুরা  ২১ সেপ্টেম্বর

১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০


হজে গুনাহ মাফ হয়

হজে গুনাহ মাফ হয়

১৬ জুলাই, ২০১৮ ১৩:২৫

শাওয়ালের ছয় রোজা

শাওয়ালের ছয় রোজা

২০ জুন, ২০১৮ ১৩:১১

দুই ঈদের রাত খুবই বরকতময়

দুই ঈদের রাত খুবই বরকতময়

১৪ জুন, ২০১৮ ০১:৪৫



ব্রেকিং নিউজ


সাড়ে ৫শ’ পিস ইয়াবাসহ গ্রেফতার ৩

সাড়ে ৫শ’ পিস ইয়াবাসহ গ্রেফতার ৩

২২ অক্টোবর, ২০১৮ ০১:২০