খুলনা | শুক্রবার | ২২ জুন ২০১৮ | ৮ আষাঢ় ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

জাহান্নাম থেকে বাঁচি সামান্য  কিছু দান করে হলেও

মুফতি রবিউল ইসলাম রাফে | প্রকাশিত ০৪ জুন, ২০১৮ ০১:০১:০০

আজ ১৮ রমজান। পবিত্র মাহে রমজানের মাগফিরাত দশকের আজ অষ্টম দিন। রমজান মাস বেশী বেশী দান-খয়রাত করার মাস। এই মাসে প্রতিটি নেক আমলের ছওয়াবকে কমপক্ষে সত্তর গুণ বৃদ্ধি করা হয়। এই জন্য এই মাসে দান-খয়রাত করলে অন্য মাসের চেয়ে অনেক গুণ বেশী ছওয়াব পাওয়া যাবে। ইতোপূর্বে এই কলামে ইসলামের অন্যতম ভিত্তি যাকাত প্রসঙ্গে আলোচনা করা হয়েছিল। আজ যাকাত ছাড়া অন্যান্য দান-খয়রাত ও সদকাহ সম্পর্কে আলোকপাত করা হবে। হুজুর (সাঃ) সর্বদা গরীব ও অভাবীদের প্রতি অত্যন্ত সদয় ও দয়াপ্রবণ ছিলেন। কিভাবে গরীব মানুষের মুখে হাসি ফোটানো যায় এই জন্য সর্বদা ব্যাতিব্যস্ত থাকতেন। তার কাছে কেউ কোন কিছু সওয়াল করলে তিনি কখনও তাকে খালি হাতে ফিরাতেন না, নিজের সাধ্যমত দান করতেন। হতদরিদ্র ও নিঃস্ব মানুষের পাশে দাঁড়ানোর প্রতি উৎসাহ প্রদান করতে দয়ার নবী (সাঃ) এরশাদ করেন, যদি কোন ব্যক্তি কোন বস্ত্রহীনকে বস্ত্র দান করবে আল্লাহ তায়ালা তাকে জান্নাতের সবুজ বস্ত্র পরিধান করাবেন। যদি কেউ কোন ক্ষুধার্তকে খানা খাওয়ায় আল্লাহপাক তাকে জান্নাতের ফল খাওয়াবেন। আর যদি কেউ কোন  পিপাসিতকে পানি পান করাবে মহান আল্লাহপাক তাকে জান্নাতের মোহরযুক্ত পানীয় পান করাবেন (আবু দাউদ, তিরমিজী)। আর এক হাদিসে হুজুর (সাঃ) এরশাদ করেন, তোমরা জান্নামের আগুন হতে নিজেকে বাঁচাও একটি খেজুর দান করে হলেও। যাকাত ছাড়াও মালের ভিতর আরও অনেকের হক রয়েছে। এ প্রসঙ্গে আল্লাহ তায়ালা এরশাদ করেন, সৎকাজ শুধু এর মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয় যে, তোমরা তোমাদের মুখমন্ডল পূর্ব কিংবা পশ্চিম দিকে ফিরাবে, বরং প্রকৃত সৎকাজ হল ঈমান আনবে আল্লাহর প্রতি, কিয়ামতের দিন ও ফেরেশতাদের প্রতি, আসমানী কিতাবসমূহ ও পয়গম্বরদের উপর; তদুপরি ধন-সম্পদ প্রিয় হওয়া সত্ত্বেও দান করে আত্মীয়-স্বজন, এতিম-মিসকিন, ভিক্ষুক এবং গোলাম আজাদ করার বাপারে, আর নামাজ কায়েম করে ও যাকাত প্রদান করে (সূরা বাকারা: ১৭৭)। আর এক আয়াতে মহান আল্লাহ তায়ালা বলেন, হে ঈমানদারগণ, আমার দেওয়া রিজিকের কিয়দাংশ দান করে দাও এমন এক মহাসংকটময় দিন আসার পূর্বেই যে দিন না কোন বেচাকেনা চলবে, না কোন বন্ধুত্ব কাজে আসবে, আর না আল্লাহর অনুমতি ব্যতিত কোন সুপারিশের সুযোগ হবে (বাকারা: ১৫৪)। দান করলে মাল কমে না, বরং বাড়ে। এ প্রসঙ্গে আল্লাহ তায়ালার এরশাদ হলো, যারা আপন ধন-সম্পদ আল্লাহর রাস্তায় দান করে তাদের দৃষ্টান্ত ঐ দানার মত যেখান হতে এরুপ সাতটি ছড়া নির্গত হলো যার প্রত্যেকটিতে একশ’টি করে দানা রয়েছে। যাকে ইচ্ছা আল্লাহ আরও বৃদ্ধি করে দেন (বাকারা : ২৬১)। আরও অনেক আয়াতে গরীব, দুঃখীদেরকে দান করার আদেশ দিয়েছেন। তাই আসুন আমরা সকলে নাজাতের এই মাসে বেশী বেশী দান করি। 
(লেখক : আরবী সাহিত্যিক ও মুহাদ্দিস, জামি’য়া ইসলামিয়া মারকাযুল উলুম, বাগমারা, খুলনা)
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ

শাওয়ালের ছয় রোজা

শাওয়ালের ছয় রোজা

২০ জুন, ২০১৮ ১৩:১১

দুই ঈদের রাত খুবই বরকতময়

দুই ঈদের রাত খুবই বরকতময়

১৪ জুন, ২০১৮ ০১:৪৫




শবে কদর কবে? 

শবে কদর কবে? 

১০ জুন, ২০১৮ ০১:০৯


ফিতরা হলো রোজার যাকাত 

ফিতরা হলো রোজার যাকাত 

০৮ জুন, ২০১৮ ০১:৩৯



প্রকৃত হতভাগা কারা? 

প্রকৃত হতভাগা কারা? 

০৫ জুন, ২০১৮ ০১:০৭

যাকাতে মাল বৃদ্ধি পায় 

যাকাতে মাল বৃদ্ধি পায় 

০৩ জুন, ২০১৮ ০০:৪৭


ব্রেকিং নিউজ












বিশ্বকাপে আজকের খেলা

বিশ্বকাপে আজকের খেলা

২২ জুন, ২০১৮ ০০:৪৫