খুলনা | মঙ্গলবার | ২৩ অক্টোবর ২০১৮ | ৮ কার্তিক ১৪২৫ |

পাইকগাছার নড়া নদীতে নির্মিত হতে  যাচ্ছে ড্রাম দিয়ে ভাসমান ব্রিজ

তৃপ্তি রঞ্জন সেন, পাইকগাছা | প্রকাশিত ২৬ মে, ২০১৮ ০১:১৩:০০

নদীমাতৃক আমাদের এই দেশ। এদেশে ছোট বড় নদীতে তৈরি হয়েছে বড় বড় উন্নতমানের সেতু কিংবা ব্রিজ। আর প্রত্যন্ত এলাকায় বদ্ধ নদীতে রয়েছে কাঠের তৈরি সেতু, কিংবা লম্বা লম্বা বাঁশের সাঁকো। এছাড়া রয়েছে নৌকা, ইঞ্জিন চালিত ট্রলার। দেশের বিভিন্ন এলাকায় যোগাযোগের বিভিন্ন সমস্যার কথা শোনা যায়। তেমনি একটি সমস্যা রয়েছে পাইকগাছা উপজেলার লতা ও দেলুটি নদীর সীমান্তবর্তী নড়া নদীতে। নদীটি বদ্ধ। এখানে হয় না কোন জোয়ার ভাটা। তারপরও বিশাল আকৃতির এই নদী পারাপার করতে হয় একটি মাত্র নৌকা দিয়ে। দীর্ঘ দিন এলাকাবাসী নদীতে একটি ব্রিজ নির্মাণের দাবি জানিয়ে আসলেও ব্রিজ নির্মাণ না হওয়ায় এলাকাবাসীর উদ্যোগে নড়া নদীতে এবার নির্মিত হতে যাচ্ছে ড্রাম দিয়ে তৈরিকৃত প্রায় ১শ’ ৯০ ফুট দীর্ঘ ভাসমান ব্রিজ। যদিও ইতোমধ্যে উক্ত নদীতে ব্রিজ নির্মাণের জন্য মাটি পরীক্ষার কাজ সম্পন্ন হয়েছে। তারপরও কবে ব্রিজ নির্মাণ হবে, আর কবেই বা তার কাজ শেষ হবে তার কোন সঠিক দিনক্ষণ না থাকায় এলাকাবাসীর ভোগান্তির কথা বিশেষত স্কুলগামী ছাত্র-ছাত্রীদের কথা চিন্তা করেই নদীতে নির্মিত হতে যাচ্ছে ড্রাম দিয়ে ব্রিজ। যশোরের মণিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জের ঝাঁপা বাওড়ের পর এবার ড্রাম ব্রিজ নির্মিত হতে যাচ্ছে পাইকগাছার লতা দেলুটির সীমান্তবর্তী নড়া নদীতে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী মাসের প্রথম দিকে ড্রাম দিয়ে ভাসমান ব্রিজ নির্মাণের কাজ শুরু হবে জানিয়েছন আয়োজক কমিটির নেতৃবৃন্দ।  
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, জেলার পাইকগাছার লতা ও দেলুটি ইউনিয়নের সীমান্তে নড়া নদী অবস্থিত। নদীটি ২০নং ওয়াপদা পোল্ডারের মাঝামাঝি উত্তর দক্ষিণ বরাবর বিস্তৃত হয়ে দু’টি ইউনিয়ন বিভক্ত করেছে। নদীর পূর্ব পাড়ে অবস্থিত আলোকদ্বীপ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, পশ্চিম পাড়ে মুনকিয়া, হানি ও বাইনচাপড়া গ্রাম। উক্ত গ্রামে প্রায় ৩ হাজার লোকের বসবাস। গ্রামগুলি থেকে বহু ছাত্র/ছাত্রী প্রতিদিন স্কুলে আসা যাওয়া করে। এছাড়া কপিলমুনি থেকে জামতলা বাজার হয়ে বারআড়িয়া বাজারে যাওয়ার একমাত্র মাধ্যম এই নদী পথ। প্রতিদিন এলাকার শতশত লোকজন উপজেলা সদরে বিভিন্ন প্রয়োজনে এই নদী পথ দিয়ে যাতায়াত করে থাকে। কিন্তু নদীতে রয়েছে একটি মাত্র নৌকা। যে কারনে অনেক সময় জরুরী প্রয়োজন থাকলেও একটি মাত্র নৌকার কারনে অনেক বিলম্ব হয়। মুমূর্ষু রোগীরা পড়ে চরম ভোগান্তিতে। এই নদী দিয়ে বর্ষা মৌসুমে ও দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ায় নদী পার হওয়ার খুবই বিপদজনক। তারপরও ঝুঁকি নিয়ে নদী পার হওয়ার সময় ছোটখাটো দুর্ঘটনাও ঘটে। নদীটি স্রোতহীন হলেও বেশ প্রশস্থ ও গভীর। এদিকে বিদ্যালয়টিতে ভালো পড়াশুনা হলেও নদী পারাপারের জন্য দিনদিন ছাত্র-ছাত্রী কমে যাচ্ছে। দীর্ঘদিন যাবত এলাকাবাসী নড়া নদীতে ব্রিজ নির্মাণের জন্য বিভিন্ন সময় স্থানীয় সংসদ সদস্যসহ বিভিন্ন দপ্তরে ও জনপ্রতিনিধিদের কাছে দাবি জানিয়ে আসছেন। কিন্তু কোন ব্যবস্থা না হওয়ায় অবশেষে আলোকদ্বীপ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রণজিত কুমার রায় ও সহকারী শিক্ষক সুকৃতি মোহন সরকার এলাকাবাসীকে সাথে নিয়ে নড়া নদীতে ড্রাম দিয়ে ভাসমান ব্রিজ তৈরির উদ্যোগ নিয়েছেন। ইতোমধ্যে প্রধান শিক্ষক রণজিত কুমার রায়কে আহবায়ক ও সুকৃতি মোহন সরকারকে সদস্য সচিব করে একটি কমিটিও গঠন করা হয়েছে। আহবায়ক রনজিত রায় জানিয়েছেন, যাতয়াতের নানান অসুবিধা থাকায় এলাকাবাসীকে সাথে নিয়ে ইতোমধ্যে ড্রাম দিয়ে ব্রিজ তৈরির জন্য ৬০টি ড্রাম কেনা হয়েছে। তিনি আরো জানান, নদীটি বদ্ধ হলেও এর গভীরতা অনেক বেশী। এর দৈর্ঘ্য প্রায় ২শ’ ৫০ ফুট। কিন্তু ব্রিজটি হবে প্রায় ১শ’ ৯০ ফুট লম্বা। এটি নির্মাণে প্রায় সাড়ে তিন লক্ষ টাকা খরচ হবে ধারণা করা হয়েছে। সদস্য সচিব ও উপজেলা আওয়ামীলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য সুকৃতি মোহন সরকার জানিয়েছেন, এলাকাবাসীর সাথে মতবিনিময় করে ড্রাম দিয়ে ভাসমান ব্রিজ নির্মাণের সকল প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। আগামী জুন মাসের প্রথম দিকে ব্রিজের নির্মাণ কাজ শুরু করা হবে বলে আশা করছেন এই উদ্যোক্তা। তিনি জানান, এলাকার লোকজন অনেক গরীব। তাদের পক্ষে এত বড় অংকের অর্থ যোগান দেওয়া সম্ভব নয়। সে কারনে সমাজের বিত্তবানসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার লোকজনের কাছে সাহায্যের জন্য আবেদন করা হয়েছে। অনেকেই ইতোমধ্যে সাড়া দিয়েছেন। কিন্তু এখনও অনেক অর্থ দরকার। ভাসমান এই ব্রিজ নির্মাণের জন্য উদ্যোক্তারা সকলের কাছে সাহায্যের আবেদন জানিয়েছেন। দেলুটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রিপন কুমার মন্ডল মহতি এই উদ্যোগকে তিনি সাধুবাদ জানিয়েছেন। তিনি জানান, ইতোমধ্যে নড়া নদীতে ব্রিজ নির্মাণের জন্য মাটির পরীক্ষা নিরীক্ষার কাজ সম্পন্ন হয়েছে। তারপর এখনও টেন্ডার প্রক্রিয়া শেষ করে ব্রিজ নির্মান করতে অনেক সময় লেগে যাবে। সে কারনে এলাকাবাসী উদ্যোগ নিয়ে ভাসমান এই ব্রিজ নির্মাণ করতে যাচ্ছে। পরিষদ এবং তার ব্যক্তিগত পক্ষ থেকে যতটুকু সাহায্য করা সম্ভব তাহা তিনি করবেন। তিনি উদ্যোক্তাদের সকলের সাথে আলাপ আলোচনার পরামর্শ দিয়েছেন। 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ





যশোরে সাংবাদিক নোভার  আত্মহত্যা

যশোরে সাংবাদিক নোভার  আত্মহত্যা

২৩ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:৫৬









ব্রেকিং নিউজ





যশোরে সাংবাদিক নোভার  আত্মহত্যা

যশোরে সাংবাদিক নোভার  আত্মহত্যা

২৩ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:৫৬