খুলনা | মঙ্গলবার | ২৩ অক্টোবর ২০১৮ | ৮ কার্তিক ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

নির্বাচনকে ‘প্রহসন’ বললেন সিপিবি মেয়র প্রার্থী 

কেন্দ্র দখল ও ব্যালট পেপারে সীল মারার খবরে আগ্রহ হারিয়ে ফেলে ভোটাররা

নিজস্ব প্রতিবেদক | প্রকাশিত ১৬ মে, ২০১৮ ০১:২৯:০০

কেন্দ্র দখল ও ব্যালট পেপারে সীল মারার খবরে আগ্রহ হারিয়ে ফেলে ভোটাররা

খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে ‘প্রহসন’ বলে আখ্যায়িত করেছেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) মেয়র পদপ্রার্থী মিজানুর রহমান বাবু। বামপন্থী এই প্রার্থী নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগও আনেন।
সিপিবি’র মেয়র প্রার্থী মিজানুর রহমান বাবু’র তার প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন গত ১৪ মে সংবাদ সম্মেলনে বলেছিলাম, “নির্বাচনে টাকার খেলা, পেশী শক্তির দৌরাত্ম বন্ধ হয়নি। নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘিত হয়েছে। জনমত নয়, অর্থ-পেশীশক্তি-ম্যানুলেশনই নির্বাচনী ফলাফলের ক্ষেত্রে নির্ধারক করে তোলা হচ্ছে।” এতসবের পরও আমরা নির্বাচনে প্রশাসনকে দল ও মতের উর্ধ্বে উঠে ভূমিকা রাখতে এবং নির্বাচন কমিশনকে কঠোর ভাবে যাথযথ ভূমিকা পালনের আহ্বান জানিয়েছিলাম। কিন্তু ভোট গ্রহণকালীন সকাল থেকেই অনেক এলাকায় সরকার দলীয় ছাড়া অন্য দলের এজেন্টরা দাঁড়াতেই পারেননি। আচরণ বিধি লঙ্খন করে এলাকায় এলাকায মহড়া, রিকশায় পোস্টার লগিয়ে ভোটার পরিবহন ও মোড়ে মোড়ে জটলা পুরো নির্বাচনী পরিস্থিতিকে সাধারণ মানুষের মনে ভীতি সঞ্চার করে তোলা হয়েছে। এছাড়া কয়েকটি এলাকায় বিরোধী দলের এজেন্টদের থাকতে না দেওয়া, ভাঙচুর, ভোটকেন্দ্র দখল করে ব্যালট পেপারে বেআইনীভাবে সীল মারার খবর দ্রুত ছড়িয়ে পড়লে সাধারণ মানুষ ভোট প্রদাণের আগ্রহ হারিয়ে ফেলে। নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসন এক্ষেত্রে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। কোথাও কোথাও নির্বাচন কমিশনকে অসহায় থেকে সরকারি দলের স্থানীয় নেতা-কর্মীদের ইচ্ছা-অনিচ্ছার ক্রীড়ানকে পরিণত হতে দেখা গেছে।
সিপিবি’র মেয়র প্রার্থী আরও বলেন বাগমারা, রূপসা, বানিয়াখামার, খালিশপুর, বয়রাসহ বিভিন্ন এলাকায় কাস্তে মার্কার ভোটার-এজেন্টদের দাঁড়াতে দেওয়া হয়নি। জোর করে ভোটকেন্দ্র দখল ও ব্যালট পেপারে সীল মারার খবর গণমাধ্যমে প্রচার হয়েছে। দুপুর থেকে এই ধারা বৃদ্ধি পেয়ে সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী অধিকাংশ কেন্দ্র সরকারি দলের নামধারীরা দখলদারিত্ব কায়েম করেছে। এসব ঘটনার মাধ্যমে ভোটকে আবারও প্রহসনে পরিণত করা হলো। অধিকাংশ নগরবাসী তাদের প্রকৃত ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারেনি বলে মনে করছি। এটি হলে এই নির্বাচন গ্রহণযোগ্য হবে না। সুষ্ঠ নির্বাচন করতে না পারা ব্যার্থতার এ দায় সরকার ও নির্বাচন কমিশনকে নিতে হবে।
সিপিবি-বাসদ জোট ও বামপন্থীরা জনগণের ভোটাধিকার রক্ষা এবং সামগ্রিক নির্বাচন ব্যবস্থা সংস্কারের আন্দোলন অব্যাহত রাখবে। গণতন্ত্র রক্ষার এই সংগ্রামে আমরা খুলনাবাসীসহ দেশের সকল গণতন্ত্রমনা মানুষকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। 
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ





যশোরে সাংবাদিক নোভার  আত্মহত্যা

যশোরে সাংবাদিক নোভার  আত্মহত্যা

২৩ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:৫৬









ব্রেকিং নিউজ





যশোরে সাংবাদিক নোভার  আত্মহত্যা

যশোরে সাংবাদিক নোভার  আত্মহত্যা

২৩ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:৫৬