খুলনা | মঙ্গলবার | ১৪ অগাস্ট ২০১৮ | ৩০ শ্রাবণ ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

মহানগর নাগরিক অধিকার বাস্তবায়ন পরিষদের সভা 

নগরীকে ঢেলে সাজানো ও পরিচ্ছন্ন নগরী গড়ে তুলতে ২৪ দফা দাবি উপস্থাপন  

আল মাহমুদ প্রিন্স | প্রকাশিত ২১ এপ্রিল, ২০১৮ ০১:৩০:০০

খুলনা মহানগরীকে ঢেলে সাজানোসহ দৃষ্টিনন্দন ও পরিচ্ছন্ন নগরী গড়ে তুলতে ২৪ দফা দাবি উপস্থাপন করেছেন ‘খুলনা মহানগর নাগরিক অধিকার বাস্তবায়ন পরিষদ’। খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে সামনে রেখে গতকাল শুক্রবার বিকেল ৪টায়, নগরীর বিএমএ ভবন মিলনায়তনে আয়োজিত নাগরিক মতবিনিময় সভায় এসব নাগরিক দাবি উত্থাপন করা হয়। 
মহানগর নাগরিক অধিকার বাস্তবায়ন পরিষদের দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে, খুলনাতে নতুন পাঁচটি মানসম্পন্ন স্কুল প্রতিষ্ঠা, গোলকমনি শিশুপার্ক আধুনিকায়ন ও দৌলতপুরে একটি শিশুপার্ক এবং নগরীর শহিদ হাদিস পার্ক, জাতিসংঘ পার্কসহ বিভিন্ন স্থানে আধুনিক ক্যাফে তৈরি করতে হবে। নগরীতে বর্জ্য অপসারণের কাজ ভোর ৬টার মধ্যে শেষ করতে হবে এবং কোনো ক্ষেত্রে দুপুরের দিকে নতুন করে জমা বর্জ্য অপসারণের ব্যবস্থা নিতে হবে এবং পাশাপাশি কেসিসি’র নিয়ন্ত্রণে গৃহস্থলি বর্জ্যব্যবস্থাপনা গড়ে তুলতে হবে। নগরীর প্রধান প্রধান সড়কে নগর পরিবহনের ব্যবস্থা করতে হবে এবং সড়ক দুর্ঘটনা কমাতে ইজিবাইক ও মটর চালিত রিক্সা লাইসেন্স ও চালকের লাইসেন্স যথাযথভাবে প্রদান করতে হবে। এ ক্ষেত্রে পরিচ্ছন্নতা কর্মীসংখ্যা বৃদ্ধি ও আধুনিক ব্যবস্থাপনা গড়ে তুলতে হবে। নগরীতে প্রয়োজনীয় স্থান সমূহে আধুনিক পাবলিক টয়লেট গড়ে তুলতে হবে, ওয়ার্ডে নতুন করে কমিউনিটি সেন্টার গড়ার ক্ষেত্রে সাংস্কৃতিক ও সামাজিক মাল্টিপারপাস কার্যক্রম পরিচালনা করা যায় তেমন ডিজাইন করে স্থাপন করেত হবে। এ ক্ষেত্রে শিশু ও যুবকদের ডিজিটাল লাইব্রেরী ও ওয়াইফাই ব্যবস্থা থাকতে হবে। প্রত্যেক ওয়ার্ডে বার্ষিক সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া উৎসব আয়োজনের জন্য ন্যূনতম পাঁচ লাখ টাকা বাজেট বরাদ্দ দিতে হবে এবং ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের নেতৃত্বে সকল দলমত নির্বিশেষে বিশিষ্ট জনদের সমন্বয়ে গঠিত কমিটির মাধ্যমে উৎসবের আয়োজন করতে হবে। সকল ওয়ার্ডের ক্রীড়া মান উন্নয়নের জন্য ওয়ার্ড থেকে গঠিত দল নিয়ে মেয়র কাপ ক্রিকেট ও ফুটবল প্রতিযোগিতার আয়োজন করতে হবে। নাগরিকদের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে সমন্বয় সাধনের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। ফুল মার্কেট, সরকারি করোনেশন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, পিকচার প্যালেস, পার্কসহ যে সকল স্থানে যানজট তৈরি হয় সেসব স্থানের জন্য ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা উন্নতির জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে আলাপক্রমে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। বাজারের পণ্যমান, মূল্য, মেয়াদসহ সার্বিক ক্ষেত্রে ডিজিটাল ব্যবস্থাপনায় গড়ে তুলতে হবে। শেরে-এ বাংলা রোডসহ প্রয়োজনীয় রোডে ডবল ও ফোর লেন করার উদ্যোগ নিতে হবে। নগরীর পরিবেশ সুরক্ষায় জলধার রক্ষা, বনায়নসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে, জলাবদ্ধতা নিরসনে আধুনিক সময় উপযোগী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। স্বাস্থ্য ব্যবস্থার উন্নয়নের জন্য নগর স্বাস্থ্যকেন্দ্রের চিকিৎসা ও সেবার পরিধি বৃদ্ধিসহ সার্বিক মানোন্নয়ন করতে হবে। ওয়াসা, কেডিএ রেলওয়ে টেলি কমিউনিকেশন ও বিদ্যুৎসহ পরিসেবা প্রদানকারী সংস্থাসমূহকে সিটি কর্পোরেশনের নেতৃত্বে  সমন্বিতভাবে কাজ করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাপনা গড়ে তুলতে রেগুলেটরি বোর্ড গঠনে উদ্যোগ নিতে হবে।
নগরীতে দিন দিন বাড়ছে জনসংখ্যা সেদিক বিবেচনা করে কবরস্থানের সংখ্যা বৃদ্ধির উদ্যোগ নিতে হবে, সরকারের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সকল মুক্তিযোদ্ধাদের কবর বাঁধানোর জন্য মুক্তিযোদ্ধাদের কবর চিহ্নিতকরণের ব্যবস্থা করতে হবে এবং পূর্ব প্রস্তাব অনুযায়ী জাতীয় ও স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের নামে রাস্তার নামকরণ করতে হবে। খুলনা কেডিএ এভিনিউ এর নামকরণ করতে হবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এভিনিউ। নাগরিক মতামতের প্রতিফলন সৃষ্টির জন্য নাগরিক মতামত গ্রহণের একটি কার্যকর ব্যবস্থাপনা গড়ে তুলতে হবে। মশার উপদ্রব কমানোর জন্য সঠিক পদক্ষেপ নিতে হবে, পাবলিক হলকে সিটি কমপ্লেক্স হলে রুপান্তরিত করতে হবে, ময়ূর নদীর নাব্যতা ফিরিয়ে এবং লিনিয়র পার্ক পূর্ণাঙ্গরূপে বাস্তবায়ন করে নাগরিকদের জন্য উন্মুক্তকরণ করতে হবে।   
কেসিসি নির্বাচনকে সামনে রেখে ডাঃ শেখ বাহারুল আলমের সভাপতিত্বে ও হুমায়ুন কবির ববির সঞ্চালনায় মতবিনিময় সভায় নাগরিক প্রতিনিধিদের মধ্যে বক্তৃতা করেন নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজান এমপি, এড. এনায়েত আলী, এড. এম এম মুজিবুর রহমান, মকবুল হোসেন মিন্টু, অধ্যক্ষ দেলোয়ারা বেগম। এছাড়া নাগরিক প্রতিনিধিদের মধ্যে উন্মুক্ত অলোচনা করেন মুক্তিযোদ্ধা এমএম জিয়াউল ইসলাম, মানিকউজ্জামান অশোক, অধ্যক্ষ ফ ম আব্দুস সালাম, ডাঃ বঙ্গকমল বসু, হিমাংশু সরকার, টিটো প্রমুখ।        
সভায় স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সহ-সভাপতি ডাঃ শেখ বাহারুল আলমকে আহ্বায়ক ও হুমায়ুন কবির ববিকে সদস্য সচিব করে ‘খুলনা মহানগর নাগরিক অধিকার বাস্তবায়ন পরিষদের ১১ সদস্য বিশিষ্ট আংশিক কমিটি গঠন করা হয়। এ কমিটির অন্যরা হলেন প্রধান উপদেষ্টা, এড. এনায়েত আলী, যুগ্ম-আহ্বায়ক অধ্যাপক দেলোয়ারা বেগম, এড. এমএম মুজিবুর রহমান, মকবুল হোসেন মিন্টু, মুক্তিযোদ্ধা খন্দকার মোকাদ্দেস হোসেন, সাংবাদিক এসএম জাহিদ হোসেন, সুবীর রায়, অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদ ও শাহিন জামান পন। পরবর্তীতে ১০১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হবে। এদিকে সভায় খুলনা মহানগর নাগরিক অধিকার বাস্তবায়ন পরিষদের উদ্যোগে আগামী ২৪ এপ্রিল দুপুর ১২টায় খুলনা প্রেসক্লাব মিলানয়তনে সংবাদ সম্মেলন ও ২৬ এপ্রিল বিকেল ৪টায় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে তালুকদার আব্দুল খালেকের সাথে মতবিনিময় সভা করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।          
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ





শোকাবহ আগস্ট

শোকাবহ আগস্ট

১৪ অগাস্ট, ২০১৮ ০১:১৭









ব্রেকিং নিউজ





শোকাবহ আগস্ট

শোকাবহ আগস্ট

১৪ অগাস্ট, ২০১৮ ০১:১৭