খুলনা | শুক্রবার | ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ৫ আশ্বিন ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

ছয় ব্যবসায়ীকে মারপিট ও জরিমানার নামে লাখ টাকা আদায়  

কোস্ট গার্ড ও মৎস্য দপ্তরের অভিযানে জব্দ করা  বাগদা চিংড়ি মৎস্য আড়তে বিক্রির অভিযোগ 

নিজস্ব প্রতিবেদক  | প্রকাশিত ১৭ এপ্রিল, ২০১৮ ০১:২৬:০০

খুলনার রূপসায় কোস্ট গার্ড ও মৎস্য পরিদর্শন ও মাননিয়ন্ত্রণ দপ্তরের অভিযানে জব্দ করা বাগদা চিংড়ি মৎস্য আড়তে বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। চিংড়িতে অপদ্রব্য পুশের নামে বিনা রশিদে নগদ এক লাখ টাকা জরিমানা আদায় ও জব্দ করা চার হাজার কেজি বাগদা চিংড়ির মধ্যে ৪শ’ ৭২ কেজি নগরীর রায়েরমহল নামক মৎস্য আড়তে বিক্রি করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। জব্দ করা চিংড়ি বিক্রির পর ওই আড়তে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীদের চিংড়ি রাখা ক্যারেট বিক্রি করতে গেলে এ তথ্য ফাঁস হয়ে যায়। গত রবিবার রাতে এসব চিংড়ি জব্দ করার পর গতকাল সোমবার সকালে জনৈক মঈন রায়েরমহল মোস্তফা মৎস্য আড়তের ভাই ভাই এন্টারপ্রাইজে ১৮ ক্যারেটে (প্লাস্টিকের ঝুঁড়ি) থাকা চিংড়ি বিক্রি করেন। এ বিষয়টি নিয়ে ব্যবসায়ীদের মাঝে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।
সাতক্ষীরার শ্যামনগর থানার বংশীপুর এলাকার মেসার্স আছমা ফিসের মালিক বাবর আলী ও মেসার্স মনোয়ারা ফিসের মালিক মোঃ মোকারম জানান, তারা তাদের মৎস্য ডিপো থেকে ১৭৬ ক্যারেট বাগদা ৬ ক্যারেট গলদা চিংড়ি একটি ট্রাকে (যশোর-ত-১১-১১৫১) করে গত ১৫ এপ্রিল রূপসার উদ্দেশ্যে রওনা হন। যার ওজন ৪ হাজার কেজি। তারা রাত পৌনে ৯টার দিকে চিংড়ি বোঝাই ট্রাকসহ রূপসার খানজাহান আলী (রহঃ) সেতুর ওপর পৌঁছালে কোস্ট গার্ড পশ্চিম জোন রূপসা স্টেশনের একটি দল ট্রাকসহ তাদের আটক করে সেতু সংলগ্ন কোস্ট গার্ড অফিসে নিয়ে আসে। এ সময় কোস্ট গার্ডের কন্টিনজেন্ট কমান্ডার মোঃ তাহেরুল ইসলাম, খুলনা মৎস্য পরিদর্শন ও মান নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের মৎস্য পরিদর্শক ইফতেখার হাসান, আমিনুল ইসলাম ও লিপ্টন সরদার উপস্থিত ছিলেন। তারা এসব চিংড়ি অপদ্রব্য পুশ বলে দাবি করে ওই দুই ব্যবসায়ীসহ তাদের সাথে থাকা ব্যবসায়ী মাহবুবুর রহমান, নূর ইসলাম, এবাদুল ইসলাম ও মোঃ খোকনকে গালিগালাজ ও মারপিট করেন। রূপসা চিংড়ি বণিক সমিতির নেতৃবৃন্দ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছালে কোস্ট গার্ড ১৭৬ ক্যারেট চিংড়ির মধ্যে ৮৮ ক্যারেট চিংড়ি পুশ হিসেবে চিহ্নিত করে মোঃ শহিদুল ইসলাম ও মোঃ মোকারম নামে দুই ব্যবসায়ীকে ৫০ হাজার টাকা করে এক লাখ টাকা জরিমানা করেন। ব্যবসায়ীরা বাধ্য হয়ে এক লাখ টাকা প্রদান করলেও তাদের কোন রিসিড দেয়া হয়নি। এমনকি ফেরত দেয়া হয়নি জব্দ করা ৮৮ ক্যারেট বাগদা চিংড়ি। যার পরিমাণ চার হাজার কেজি। 
তারা জানান, এসব চিংড়ি বিনষ্ট করার কথা বলে ক্ষতিগ্রস্ত দুই ব্যবসায়ীসহ রূপসা চিংড়ি বণিক সমিতি সভাপতি মোঃ আব্দুল মান্নান শেখ, মায়ের দোয়া ফিসের স্বত্বাধিকারী মারুফ হোসেন মনি, ব্যবসায়ী ডালিম খান, মোঃ ইব্রাহিম শেখ, মোঃ টুকু শিকদার, সমিতির সচিব সুনীল দে’কে কোস্ট গার্ড অফিস থেকে বিদায় দেন তারা। পরে গতকাল সোমবার সকাল ৯টার দিকে জনৈক মঈন জব্দ করা ৮৮ ক্যারেট বাগদার মধ্যে ১৮ ক্যারেট (৪শ’ ৭২ কেজি) নগরীর রায়েরমহল মোস্তফা মৎস্য আড়তের ভাই ভাই মৎস্য আড়তে এক লাখ ৫৪ হাজার ৫০৪ টাকায় বিক্রি করেন। যার চালান নং- ১৫৮৩। চিংড়ি বিক্রির পর ক্যারেটে লাগানো আছমা ফিস ও মানোয়ারা ফিসের স্টিকার লাগানো ক্যারেটগুলো কম দামে বিক্রি করার চেষ্টা করলে আড়তদারের সন্দেহ হয়। এ সময় তারা স্টিকারে থাকা মোবাইল নম্বরে কল করলে বেরিয়ে আসে মূল রহস্য। সাথে সাথে বিক্রেতা মঈন আড়ত থেকে কৌশলে চলে যান। জব্দকরা বাকি ৩ হাজার ৫২৮ কেজি চিংড়ির এখনো কোনো হদিস মেলেনি।
মোস্তফা মৎস্য আড়ত ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম বাবু বলেন, কোস্ট গার্ড বা আইন প্রয়োগকারী সংস্থা পুশ বিরোধী অভিযান চালালে আমরা তাদের সব সময় সহায়তা করে থাকি। তবে পুশের নামে চিংড়ি জব্দ করে আইনের লোকের সহায়তায় যদি আড়তে বিক্রি হয় তাহলে আমাদের কিছু করার থাকেনা। এসব কর্মকান্ডে তিনি চরম ক্ষোভ ও নিন্দা জানানোর পাশাপাশি এর সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন। 
কোস্ট গার্ড রূপসা স্টেশনের কন্টিনজেন্ট কমান্ডার মোঃ তাহেরুল ইসলামের সাথে কথা বললে তিনি বলেন, গতকাল সোমবার সকালেই তিনি তড়িঘড়ি বদলী হয়ে মংলা চলে গেছেন। তিনি বলেন, জব্দ করা চিংড়ি ওইরাতে রূপসা নদীতে ফেলে বিনষ্ট করা হয়। জব্দ করা তালিকায় খুলনার তিনজন মৎস্য পরিদর্শন ও মাননিয়ন্ত্রণ দপ্তরের পরিদর্শকের স্বাক্ষর রয়েছে বলেও জানান তিনি। 
এদিকে অভিযুক্ত মৎস্য পরিদর্শন ও মাননিয়ন্ত্রণ দপ্তরের পরিদর্শক ইফতেখার হাসান, আমিনুল ইসলাম ও লিপ্টন সরদারের সাথে কথা বলার চেষ্টা করলে ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। 
মৎস্য পরিদর্শন ও মাননিয়ন্ত্রণ দপ্তর খুলনার সিনিয়র সহকারী পরিচালক মোঃ আব্দুর রাজ্জাক সময়ের খবরকে বলেন, বিধি মোতাবেক কোস্ট গার্ড অভিযান পরিচালনা করে থাকে। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বিষয়টি তার জানা নেই বলে জানান। তবে এ ধরণের ঘটনা ঘটলে বিধি মোতাবেক তিনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে জানান। 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ




আজ ১০ মহররম পবিত্র আশুরা 

আজ ১০ মহররম পবিত্র আশুরা 

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:৫৮

কেসিসিতে আজ ও কাল সাপ্তাহিক ছুটি বাতিল

কেসিসিতে আজ ও কাল সাপ্তাহিক ছুটি বাতিল

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:৫৭









ব্রেকিং নিউজ




আজ ১০ মহররম পবিত্র আশুরা 

আজ ১০ মহররম পবিত্র আশুরা 

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:৫৮

কেসিসিতে আজ ও কাল সাপ্তাহিক ছুটি বাতিল

কেসিসিতে আজ ও কাল সাপ্তাহিক ছুটি বাতিল

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:৫৭





খুলনায় সেঞ্চুরিতে নজর কাড়লেন সোহান

খুলনায় সেঞ্চুরিতে নজর কাড়লেন সোহান

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:৫০


অভিষেকেই আবু হায়দার রনির চমক

অভিষেকেই আবু হায়দার রনির চমক

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:৪৫