ইভিএম ব্যবহার না করতে ও পেশীশক্তি দমনে কঠোরতার আহ্বান সুজনের


খুলনা সিটি কর্পোরেশন (কেসিসি) নির্বাচনকে অবাধ নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ করতে আহ্বান জানিয়েছে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) খুলনা। একই সাথে নগরবাসী না বোঝায় ইভিএম প্রযুক্তি ব্যবহার না করতে ও পেশীশক্তি দমনে কঠোর অবস্থান বজায় করতে নির্বাচন কমিশনের প্রতি আহ্বান জানিয়ে কয়েকটি সুপারিশ করেছে সংগঠনটি। গতকাল রবিবার বেলা সাড়ে ১১টায় খুলনা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে এ দাবি জানিয়েছেন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। সুজন কেসিসি নির্বাচন পর্যন্ত সকল পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ এবং আগামী ২৮ এপ্রিল মেয়র প্রার্থীদের জনগণের মুখোমুখি অনুষ্ঠান করার পরিকল্পনা ব্যক্ত করেন।
লিখিত বক্তব্যে সুজন’র জেলা সাধারণ সম্পাদক এড. কুদরত ই খুদা বলেন, নির্বাচন একটি গণতান্ত্রিক পন্থা, যার মধ্যদিয়ে ভোটাররা তাদের স্বার্থে কাজ করার জন্য পছন্দের প্রার্থী বেছে নেয়ার সুযোগ পান। তবে সেই নির্বাচনী প্রক্রিয়া যদি নিয়মতান্ত্রিকভাবে না হয়, তবে সে নির্বাচন শুধু প্রশ্নবিদ্ধ হবে না বরং জনগণের কাছে অগ্রহণযোগ্য হবে। সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে নির্বাচন কমিশনের কাছে আসন্ন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন একটি বড় ধরনের পরীক্ষা। এর মধ্যদিয়ে সাধারণ মানুষ নির্বাচন কমিশনের আন্তরিকতা, সক্ষমতা, নৈতিকতা, সাহসিকতা ইত্যাদি দিকগুলো পরখ করে দেখার সুযোগ পাবেন। সে লক্ষে সুজন নেতৃবৃন্দ পরামর্শও দিয়েছেন।
পরামর্শের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে প্রার্থীদের খরচ নিয়ন্ত্রনে শক্তিশালী ভূমিকা রাখা, ব্যানার ফেস্টুন ব্যবহারে সুনির্দিষ্ট নীতিমালা এবং তা বাস্তবায়নে কার্যকরী ভূমিকা রাখা, ভোটারদের আস্থা ও মতামত ছাড়া ইভিএম পদ্ধতি ব্যবহার না করা এবং কেন্দ্রগুলো সিসি টিভির আওতায় আনা, কালো টাকা এবং পেশী শক্তি ব্যবহারে কঠোর অবস্থান নেয়ার আহ্বান জানান। 
সংবাদ সম্মেলনে আরও বলা হয় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনীর নিরপেক্ষতা নিশ্চিত, প্রার্থীদের হলফনামা প্রচার, ওয়ার্ডে অনিয়ম হলে নির্বাচন স্থগিত, নির্বাচনী পরিবেশ সৃষ্টির লক্ষে অবিলম্বে তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার এবং অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহার বন্ধে কঠোর হওয়ার আহ্বান জানানো হয়। এছাড়াও দুর্নীতিবাজ, সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ, যুদ্ধপরাধী, নারী নির্যাতনকারী, মাদক বিক্রেতা, চোরাকারবারী, ঋণখেলাপী, বিলখেলাপী, ভূমিদস্যু, কালো টাকার মালিক অর্থাৎ, অযোগ্য ও গণবিরোধী ব্যক্তিকে ভোট দেয়ার আহ্বান জানান ভোটারদের প্রতি। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সুজন জেলা সভাপতি অধ্যক্ষ জাফর ইমাম, ভাষা সৈনিক লোকমান হাকিম, বিভাগীয় সমন্বয়কারী মাসুদুর রহমার রঞ্জু, এড. শামিমা সুলতানা শীলু, শরীফ শফিকুল হামিদ চন্দন, খলিলুর রহমান সুমন ও এসএম সোহরাব হোসেন প্রমুখ।


 


footer logo

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত।

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।