খুলনা | মঙ্গলবার | ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ১০ আশ্বিন ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

বিএনপি’র বিভক্তি নিরসনে তারেক রহমানের নির্দেশ!

আশরাফুল ইসলাম নূর | প্রকাশিত ১৬ এপ্রিল, ২০১৮ ০২:০০:০০

সমাগত খুলনা সিটি কর্পোরেশন (কেসিসি) নির্বাচন; তবুও দ্বিধা-বিভক্তিতে খুলনা বিএনপি। অবিলম্বে সকল বিভক্তি নিরসন করে ঐক্যবদ্ধভাবে ‘নগর ভবন’র কর্তত্ব ধরে রাখতে নির্দেশ দিয়েছেন লন্ডনে চিকিৎসাধীন দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। গত শনিবার দিবাগত রাত থেকে গতকাল রবিবার দিনভর খুলনা বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের শীর্ষ নেতাদের সাথে এ নিয়ে দফায় দফায় বৈঠক করেছেন ছাত্রদলের সাবেক নেতা।
সংশ্লি¬ষ্ট সূত্রমতে, নগর ও জেলা বিএনপি’র শীর্ষ নেতাদের দূরত্ব বেশ বছর খানেকের পুরানো। পৃথক কর্মসূচি পালন ও মনোমালিন্য ছিল ‘ওপেন সিক্রেট’। সেটার প্রকাশ্যে রূপ নিল কেসিসি নির্বাচনে। নগর বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক বর্তমান মেয়র মনিরুজ্জামান মনি দলের মনোনয়ন চাইলেন, সাথে জেলা বিএনপি’র সভাপতি শফিকুল আলম মনাও। এ দু’জন গেল কেসিসি নির্বাচনেও দলের মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন, পরে মনিরুজ্জামান মনিকে প্রার্থী মনোনীত করে শফিকুল আলম মনাকে তার প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট করে দলটির কেন্দ্রীয় নীতি-নির্ধারকরা। ফলে এবারে নাছড় দাবি করে বসেন শফিকুল আলম মনা। এক পর্যায়ে বিএনপি’র সর্বোচ্চ নীতি-নির্ধারণী ফোরাম ও মনোনয়ন বোর্ড কাকতালিওভাবে বিএনপি’র কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও নগর সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জুকেই কেসিসি’র মেয়র প্রার্থী ঘোষণা করেন। ফলে তিনজন হয়ে যায় দলের প্রার্থী, প্রত্যেকেই মনোনয়নপত্রও সংগ্রহ করেছিলেন কেসিসি রিটার্নিং অফিসার থেকে। শেষমেশ বিএনপি তথা ২০ দলীয় জোট মনোনীত নজরুল ইসলাম মঞ্জু ব্যতীত মনিরুজ্জামান মনি ও শফিকুল আলম মনা নির্বাচন অফিসে মনোনয়নপত্র জমা দেননি। তবে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব রয়েই অভ্যন্তরে। সর্বশেষ গত ১৩ এপ্রিল জেলা বিএনপি’র সাংগঠনিক সভায় কেসিসি নির্বাচন পরিচালনায় ১১১ সদস্যের কমিটি গঠন ও নগর বিএনপি’র গঠিত বোর্ডে মনোনয়ন না পাওয়া দু’জন কাউন্সিলর প্রার্থীকে সমর্থন দেয়া হয়। এর আগে গত ১০ এপ্রিল নগর বিএনপির অনুষ্ঠিত সাংগঠনিক সভায় নির্বাচন পরিচালনায় ১০১ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়। এতে বিরোধী ও অনৈক্য প্রকাশ্যে রূপ নেয়।
দলীয় একাধিক সূত্র জানায়, দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া কারারুদ্ধ থাকায় নগর ও জেলা বিএনপি’র এ বিরোধের দীর্ঘসূত্রিতা পেয়েছে। এ দু’টি ইউনিটের দূরত্ব নিরসনে বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান কেন্দ্রীয় শীর্ষ নেতৃবৃন্দের সাথে আলোচনা করে খুলনাতে ছাত্রদলের সাবেক এক নেতাকে পাঠিয়েছেন। শনিবার দিবাগত রাতে তিনি খুলনায় পৌঁছান। পৌঁছেই নজরুল ইসলাম মঞ্জু ও পরে শফিকুল আলম মনার সাথে একান্তে দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বার্তা জানান।
সেখানে উপস্থিত বিশ্বস্ত সূত্র জানিয়েছেন, দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান যেকোন মূল্যে খুলনা বিএনপিকে ঐক্যবদ্ধভাবে কেসিসি নির্বাচনে ২০ দলীয় জোট মনোনীত প্রার্থীকে বিজয় দেখতে চাইছেন। সে জন্য দলটির শীর্ষ নেতাদের যার যা করণীয় তাই করতে নির্দেশ দিয়েছেন। শীর্ষ নেতৃবৃন্দের মধ্যে অনৈক্য থাকলে তৃণমূলে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। সে সুযোগটি ক্ষমতাসীনরা লুফে নেবে বলে খুলনার শীর্ষ নেতাদের সতর্ক করেছেন তিনি। যদিও এসব বিষয়ে খুলনা বিএনপি’র শীর্ষ নেতারা কেউ মুখ খুলছেন না।
জেলা বিএনপি’র সভাপতি এড. শফিকুল আলম মনা বলেছেন, “দলের জন্য তো সারাজীবনই ছাড় দিয়েছি, এবারও দিলাম। কিন্তু ন্যূনতম মূল্যায়ন ও সম্মানটুকু কি পেতে পারি না? বিএনপি’র সর্বোচ্চ নেতাদের সেটাই বলেছি। অবশ্যই আমরা ‘ধানের শীষ’র পক্ষে ঐক্যবদ্ধ; কারণ প্রতীকটি শহিদ জিয়ার, প্রতীকটি কারারুদ্ধ বেগম খালেদা জিয়ার। ‘ধানের শীষ’র ব্যাপারে কোন ছাড় নয় বলে মন্তব্য করেন তিনি।”


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ