খুলনা | বৃহস্পতিবার | ২৬ এপ্রিল ২০১৮ | ১৩ বৈশাখ ১৪২৫ |

শ্রেণী কক্ষই হোক প্র্রকৃত শিক্ষাদানের কেন্দ্র

৩১ মার্চ, ২০১৮ ০০:৩০:০০

শ্রেণী কক্ষই হোক প্র্রকৃত শিক্ষাদানের কেন্দ্র

দেশে স্কুল-কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য নোট বই ও গাইড বই প্র্রকাশ ও বিক্রি নিষিদ্ধ। এই ধরনের বইপত্র প্রকাশ এবং তার বাজারজাতকরণের উপর আদালতেরও নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তবে, আইনটি কেতাবে থাকলেও ব্যবহারে নেই। ফলে পুস্তক বিপণীগুলোতে প্রশাসনের সামনেই অবাধে কেনা-বেচা চলছে নোট বই ও গাইড বই। বিক্রির উপর যে উদ্দেশ্যে নিষেধাজ্ঞা আরোপিত হয়েছিলো, সেই লক্ষ্য মোটেই অর্জিত হয় নি।
নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছিলো স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের প্রকৃত শিক্ষায় শিক্ষিত করে সৃজনশীল ও মেধাবী নাগরিক গড়ে তোলার ভাবনা থেকে। নোট বই মুখস্ত করে কিংবা গাইড বই আত্মস্থ করে প্রকৃত শিক্ষা অর্জন করা যায় না। মেধা-মননের চর্চার সুযোগ থাকে না এ ধরনের বিদ্যা-অর্জনের পদ্ধতিতে। ফলে, খতি জ্ঞান নিয়ে যে প্রজন্ম গড়ে ওঠে তার কাছে জাতির চাওয়া-পাওয়া পূরণের ক্ষমতা খুঁজে পাওয়া যায় না।
নোট ও গাইড বইয়ের উপর ছাত্র-ছাত্রীদের নির্ভরতা বন্ধ করতে হলে আমাদের দরকার এর জন্যে বিকল্প সহায়ক ব্যবস্থা ও ফলপ্রসূ প্রতিকার উদ্যোগ। জোর করে নোট-গাইড প্রকাশ ও বিক্রয় হয়তো বন্ধ করা যাবে কিন্তু, তাতে যে সংকট আরও প্রকট হবে, যদি না এর কোনো বিকল্প নির্ভরতা শিক্ষার্থীদের সামনে থাকে। আমাদের মতে, এই নির্ভরতাটা হতে পারে একমাত্র শ্রেণীকক্ষের শিক্ষা। শিক্ষার্থীদের জন্যে এ জাতীয় শিক্ষা নিশ্চিত করা। শ্রেণীকক্ষের শিক্ষার দায় আমাদের শিক্ষক শ্রেণী নিশ্চিতভাবে অনুসরণ করেন না। পালনও করেন না।
শিক্ষার্থীরা জানতে চায়, শিখতে চায়। কিন্তু স্কুল-কলেজের ক্লাশরুমে এই জানবার ও শিখবার ক্ষুধাটা শিক্ষক সম্প্র্রদায় বিগত অনেক অনেক বছর যাবৎ মিটান না। এই কারণে শিক্ষার্থীরা তাদের চাহিদা পূরণের জন্য নোট বই গাইড বই ইত্যাদির উপর আস্থা স্থাপন করতে থাকে বাধ্য। একশ্রেণীর ব্যবসায়ী এবং অনেক অনেক শিক্ষকও নোট বই ও গাইড বই ব্যবসার পথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে পড়ে আমাদের শিক্ষার্থীদের চাহিদা মিটাবার নামে চূড়ান্ত সর্বনাশের পথ প্রশস্ত করে চলেছে।
আমরা চাই, দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে শিক্ষকবৃন্দ শ্রেণীকক্ষে শিক্ষার্থীদের উপযুক্ত শিক্ষা ও সহায়তা দান করুন। ছাত্র-ছাত্রীদেরকে যেনো জানবার, বুঝবার ও শিক্ষার জন্য অন্যত্র ছুটতে না হয়। শ্র্রেণীকক্ষের শিক্ষা নিশ্চিত হলেই নোট বই ও গাইড বইয়ের কোনো প্রয়োজন শিক্ষার্থীরা অনুভব করবে না। সেই সাথে কোচিং বাণিজ্যও কঠোরভাবে বন্ধ করার প্রদক্ষেপ নিতে হবে।
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ









বিদায় ১৪২৪ স্বাগত ১৪২৫

বিদায় ১৪২৪ স্বাগত ১৪২৫

১৪ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:৫৬





ব্রেকিং নিউজ