খুলনা | বৃহস্পতিবার | ২৬ এপ্রিল ২০১৮ | ১৩ বৈশাখ ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ হতে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণে নগরীতে বর্ণাঢ্য আনন্দ শোভাযাত্রা 

নিজস্ব প্রতিবেদক  | প্রকাশিত ২৩ মার্চ, ২০১৮ ০১:৩৭:০০

সম্প্রতি জাতিসংঘের কমিটি ফর ডেভেলপমেন্ট পলিসি (সিডিপি) বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের সারিতে উঠার যোগ্যতা অর্জনের স্বীকৃতি প্রদান করেছে। এ স্বীকৃতি অর্জনে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল থেকে উৎসবের নগরীতে পরিণত হয় খুলনা। খুলনার বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন এ উপলক্ষে নগরীতে আনন্দ শোভাযাত্রা বের করে। এছাড়া আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।  
খুলনা জেলা প্রশাসন : এ উপলক্ষে খুলনা জেলা প্রশাসন আয়োজিত আনন্দ শোভাযাত্রা সকাল সাড়ে ৯টায় নগরীর শিববাড়ী মোড় থেকে শুরু হয়। তালুকদার আব্দুল খালেক এমপি, খুলনা বিভাগীয় কমিশনার লোকমান হোসেন মিয়াসহ মুক্তিযোদ্ধা, খুলনা বিভাগীয় প্রশাসন, ডিআইজি অফিস, খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ, জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারী, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মী, খুলনার অন্যান্য বিভাগীয় ও জেলা পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী, জনপ্রতিনিধি, সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব, বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারী, শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার বিপুল সংখ্যক মানুষ এতে অংশগ্রহণ করে। শোভাযাত্রার সম্মুখ ভাগে ছিল বিভিন্ন ব্যান্ড পার্টির সুসজ্জিত বাদক দল। এ সময় অনেকের হাতে ছিল স্ব-স্ব দপ্তর এবং প্রতিষ্ঠানের ব্যানার, ফেস্টুন ও প্লাকার্ড। শোভাযাত্রা শেষে  শহিদ হাদিস পার্কে জেলা তথ্য অফিসের উদ্যোগে পরিবেশিত হয় উন্নয়নমূলক সঙ্গীত। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি তালুকদার আবদুল খালেক এমপি, বিভাগীয় কমিশনার লোকমান হোসেন মিয়া, খুলনা জেলা প্রশাসক মোঃ আমিন উল আহসানসহ বিভাগীয় ও জেলা পর্যায়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, কর্মচারী, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। এ উপলক্ষে  জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ২০ মার্চ থেকে ২৪ মার্চ পর্যন্ত পাঁচ দিনব্যাপী গ্রহণ করা হয়েছে নানা কর্মসূচি। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে সেমিনার, বিভিন্ন ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, ২৪ মার্চ খুলনা পিআইডি’র আয়োজনে শহিদ হাদিস পার্কে বিকেল তিনটা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত উন্নয়নমূলক চিত্র প্রদর্শনী,আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এ উপলক্ষে ২০ থেকে ২৫ মার্চ পর্যন্ত সকল দপ্তর স্ব-স্ব দপ্তর প্রাঙ্গণে জনগণকে কাঙ্খিত সেবা প্রদান করছে।
খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়ে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে এক বর্ণাঢ্য আনন্দ র‌্যালি বের হয়। বিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স কল্যাণ পরিষদের উদ্যোগে আয়োজিত র‌্যালিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শহিদ তাজউদ্দীন আহমদ প্রশাসনিক ভবনের সামনে থেকে শুরু হয়ে হাদী চত্বর গিয়ে পুনরায় প্রশাসনিক ভবনের সামনে এসে শেষ হয়। র‌্যালিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা, কর্মচারীবৃন্দ অংশ নেন। র‌্যালি শেষে বক্তব্য রাখেন উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান ও ট্রেজারার প্রফেসর সাধন রঞ্জন ঘোষ। উপাচার্য বলেন, উন্নয়নশীল দেশের কাতারে উত্তরণের এই আনন্দ দেশের সকল মানুষের। সরকারের নেতৃত্বে ও জনগণের প্রচেষ্টায় এ সাফল্য অর্জিত হয়েছে। এ সাফল্য অর্জনের নেপথ্য কুশলী হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর বলিষ্ঠ নেতৃত্ব, প্রজ্ঞা, দৃঢ়চিত্ত ও দূরদর্শী পরিকল্পনা কাজ করেছে। তাই খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে আমরা প্রধানমন্ত্রীকে আন্তরিক অভিনন্দন জানাই। আমরা যেন দেশের জাতীয় সাফল্যে অথবা দুর্যোগের সময় দলমত নির্বিশেষে সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে আনন্দ উপভোগ ও দুর্যোগ মোকাবেলা করতে পারি। অফিসার্স কল্যাণ পরিষদের সাধারণ সম্পাদক দীপক চন্দ্র মন্ডলের পরিচালনায় এ সময় আরও বক্তব্য রাখেন পরিষদের সভাপতি শেখ মুজিবুর রহমান, সহ-সভাপতি  মোঃ তারিকুজ্জামান লিপন এবং কর্মচারীদের মধ্যে অমিতাভ ঘোষ।  
কুয়েট : খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুয়েট) বর্ণাঢ্য আনন্দ শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল সাড়ে ১১টায় কুয়েট ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীর-এর নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত শোভাযাত্রাটি কুয়েট প্রশাসনিক ভবনের সামনে থেকে শুরু হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেইন গেট হয়ে ক্যাম্পাসস্থ “দুর্বার বাংলা”র পাদদেশে এসে শেষ হয়। এ সময় এক সংক্ষিপ্ত বক্তৃতায় কুয়েট ভিসি প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীর বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিচক্ষণতা ও দেশ গঠনে তাঁর ভূমিকা প্রশংসনীয়। বাংলাদেশকে সমৃদ্ধি ও অগ্রগতির পথে এগিয়ে যাওয়ার লক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কর্মউদ্যোগে সহযোগিতা অব্যাহত রাখার জন্য কুয়েট ভিসি সকলকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানান। এ সময় শুভেচ্ছা বক্তৃতা করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক (ছাত্র কল্যাণ) প্রফেসর ড. সোবহান মিয়া। আনন্দ শোভাযাত্রায় অনুষদের ডীনবৃন্দ, ইনস্টিটিউট পরিচালকবৃন্দ, বিভাগীয় প্রধানগণ, রেজিস্ট্রার, হল প্রভোষ্টগণ, শিক্ষক, কর্মকর্তা, শিক্ষার্থী, কর্মচারীবৃন্দ এবং খুলনা ইঞ্জিনিয়ারিং ইউনিভার্সিটি স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করেন।
নর্থ ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটি : স্বাধীন বাংলাদেশের অসাধারণ এ সাফল্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও প্রাণঢালা অভিনন্দন জানিয়েছেন নর্থ ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটির উপাচার্য প্রফেসর ড. তারাপদ ভৌমিক। তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন যুগান্তকারী এ সাফল্য ঐতিহাসিক মাইলফলক হয়ে থাকবে। সারা বিশ্বে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে বাংলাদেশের অবস্থান আরো অগ্রগামী হবে এবং এ উন্নয়নের ধারা অব্যাহত থাকবে। সিঙ্গাপুর ভিত্তিক আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন গবেষণা সংস্থা ‘দ্য স্ট্যাটিস্টিক্স’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বিশ্বের দ্বিতীয় সেরা প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মনোনীত করায় সংশ্লিষ্টদের আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানানো হয়।  
গাজী মেডিকেল কলেজ : সকাল ৯টায় কলেজ প্রাঙ্গণ থেকে শুরু হওয়া শোভাযাত্রা জেলা প্রশাসনের কর্মসূচিতে যোগ দেয়। এতে প্রতিষ্ঠানের সকল শিক্ষক-শিক্ষিকা, চিকিৎসক, ছাত্র-ছাত্রী ও কর্মকর্তা-কর্মচারী অংশ নেয়। র‌্যালিতে বিশেষ শ্লোগান সম্বলিত ব্যানার, পেস্টার, ফেস্টুনসহ জাতীয় পতাকা, বাঁশি এবং গাজী মেডিকেল কলেজের ক্যাপ ব্যবহার করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন গাজী মেডিকেল কলেজের চেয়ারম্যান ডাঃ গাজী মিজানুর রহমান, অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডাঃ মনোজ কুমার বোস, উপাধ্যক্ষ ডাঃ বঙ্গ কমল বসু প্রমুখ। 
যুবলীগ : বিকেল ৫টায় নগর শাখার উদ্যোগে আনন্দ মিছিল শেষে দলীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের আহ্বায়ক এড. সরদার আনিছুর রহমান পপলুর সভাপতিত্বে মিছিল পূর্বক সমাবেশে বক্তৃতা করেন যুবলীগ নেতা এস এম সাজ্জাদ আলী, মোঃ আকিল উদ্দিন, মোঃ আমির হোসেন, এম পল্টু, মুন্সি নাহিদুজ্জামান, জাহিদুল খলিফা, মোয়াজ্জেম হোসেন, মৃধা হুমায়ুন কবির, মামুন কবির কচি, আব্দুস সালাম ঢালী, রানা পারভেজ সোহেল, অধ্যাপক মেহেদী হাসান, আব্দুল মালেক, রোজি ইসলাম নদী, শফিকুর রহমান পলাশ, আব্দুল্লাহ আল মামুন মিলন প্রমুখ। 
আলহাজ্ব সারোয়ার খান (ডিগ্রী) কলেজ : র‌্যালি শেষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। কলেজ অধ্যক্ষ এ এস এম সাইফুদ্দোহার সভাপতিত্বে অতিথি ছিলেন কলেজ পরিচালনা পরিষদের সদস্য এম সিদ্দিক উজ জামান, মোঃ আখতার হোসেন বাবলু, শেখ মনিরুল ইসলাম, সৈয়দ মোঃ মিজানুর রহমান, মোল্লা মোঃ নজরুল ইসলাম, ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তা কায়েমুজ্জামান, অধ্যাপক অনুপ কুমার মল্লিক, অনামিকা ঘোষ, জাকিয়া সুলতানা। 
ক্যাবল শিল্প: সকাল ৮টায় বাংলাদেশ ক্যাবল শিল্প লিঃ এ কর্মরত সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীরা খুলনা শহরে গাড়ীবহর নিয়ে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা করে। সরকারের বহুমুখী উন্নয়নের প্রতিকী ব্যানার, প্লাকার্ড, বাকেশি’র উৎপাদিত পণ্য ও সেবা প্রদর্শনকারী পোস্টার, রঙীন বেলুন ও ঝিলমিল কাগজে সজ্জিত গাড়িসহ অংশগ্রহণকারীরা নীল ও কমলা রঙের গেঞ্জি আর ক্যাপ পরে সুসজ্জিত বাদকদল নিয়ে সকাল ৮টায় বাকেশি’র প্রধান ফটক থেকে বের হয় পরে ফুলবাড়ীগেট, দৌলতপুর, শিববাড়ী মোড় হয়ে হাদিস পার্কে পৌঁছায়। শোভাযাত্রাটি যশোর রোড দিয়ে ফুলতলা হয়ে পুনরায় বাকেশিকে এসে শেষ হয়। এ সময় বাকেশি’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ সিরাজুল ইসলামসহ বাকেশি’র সর্বস্তরের কর্মকর্তা, কর্মচারী ও সিবিএ নেতৃবৃন্দ শোভাযাত্রায় অংশ নেন। 
শহিদ শেখ আবু নাসের হাসপাতাল : হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ বিধান চন্দ্র গোস্বামীর নেতৃত্বে সকল ডাক্তার, নার্স, কর্মচারী, কর্মকর্তা, আউট সোর্সিং কমর্চারীদের সমন্বয়ে নানা রঙ্গের ফেস্টুন, ব্যানার নিয়ে বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়। গতকাল রোগীদের উন্নতমানের খাবার ও মিষ্টি বিতরণ করা হয়। দুপুর ১২টায় অডিটোরিয়ামে আলোচনা সভার আয়োজন করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। সভায় সভাপতিত্ব করেন পরিচালক ডাঃ বিধান চন্দ্র গোস্বামী। প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোঃ ওয়াহিদুজ্জামানের পরিচালনায় বক্তৃতা করেন ডাঃ এস এম মোর্শেদ, ডাঃ শহিদুল ইসলাম মুকুল, ডাঃ সুকুমার, ডাঃ নাজমুল হক, ডাঃ মিজানুর রহমান, ডাঃ মনিরুজ্জামান, ডাঃ কামরুল হক, ডাঃ সাইদুর রহমান, ডাঃ আসাদুজ্জামান, ডাঃ মোস্তাফিজুর রহমান, ডাঃ মোহাসিন আলী ফারাজী। হাসপাতালের কর্মচারী, নার্স, আউট সোর্সিং কর্মচারীরা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
বিএল বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ : আনন্দ শোভাযাত্রা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, আলোচনা সভা, মিষ্টি বিতরনের মধ্যে দিয়ে বিএল বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের শিক্ষক, শিক্ষিকা ও শিক্ষার্থীরা দিনটি উদ্যাপন করেছে। কলেজের অধ্যক্ষ সাদিক জাহিদুল ইসলামের নেতৃত্বে কলেজ অভ্যন্তর থেকে শোভাযাত্রাটি বের হয়। বিভিন্ন সড়ক ঘুরে ক্যাম্পাসে এসে শোভাযাত্রাটি শেষ হয়। এ সময় শিক্ষক, শিক্ষিকা ও শিক্ষার্থীদের মাঝে মিষ্টি বিতরণ করা হয়। পরে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে কলেজ কর্তৃপক্ষ।
খুলনা মহিলা পলিটেকনিক : একাডেমিক ইনচার্জ নূরজাহান আক্তারের নেতৃত্বে সকল শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শিক্ষার্থীদের সমন্বয়ে বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়। র‌্যালি শেষে অডিটোরিয়ামে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। একাডেমিক ইনচার্জ নূরজাহান আক্তারের সভাপতিত্বে বক্তৃতা করেন বিভাগীয় প্রধান শেখ মুস্তাফিজুর রহমান, মোঃ সোহরাব হোসেন, মোঃ জিয়াউল করিম জিয়া, মান্না মেহেদি বকুল, ও মাসুম বিল্লাহ। এছাড়া দিনটি উপলক্ষে শিক্ষার্থীদের অংশ গ্রহণে চিত্র প্রদর্শনী, ছবি আঁকা, বিষয়ভিত্তিক রচনা প্রতিযোগিতা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের মধ্যে প্রীতি ফুটবল ও ক্রিকেট ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। খেলা শেষে একাডেমিক ইনচার্জ প্রতিযোগিতার বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন।
খালিশপুর ও দৌলতপুর : স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উত্তরণের অভিযাত্রায় দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলেছে বাংলাদেশ। এলডিসি থেকে বেরিয়ে বাংলাদেশ এখন মধ্যম আয়ের দেশের তালিকায় উঠে আসায় খালিশপুর ও দৌলতপুরে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের আয়োজনে আনন্দ শোভাযাত্রা, মিষ্টি বিতরণ, আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ