খুলনা | রবিবার | ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮ | ২ পৌষ ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

৫ দিনেও মেলেনি সন্ধান : জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারকে স্মারকলিপি 

ডুমুরিয়ায় নিখোঁজ নজরুলের জীবনের  নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন জেলা বিএনপি 

নিজস্ব প্রতিবেদক | প্রকাশিত ২৩ মার্চ, ২০১৮ ০১:৩০:০০

ডুমুরিয়ার আটলিয়া থেকে নিখোঁজ জেলা বিএনপি’র সহ-ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক নজরুল ইসলাম মোড়লের জীবনের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন জেলা বিএনপি’র নেতারা। গত পাঁচ দিনেও তার খোঁজ না পাওয়ায় এ উদ্বেগ ও শঙ্কা প্রকাশ করে সন্ধানের দাবিতে খুলনা জেলা প্রশাসক আমিন উল আহসান এবং পুলিশ সুপার নিজামুল হক মোল্লাকে স্মারকলিপি দিয়েছে জেলা বিএনপি।  গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে জেলা বিএনপি নেতারা তাদের সাথে সাক্ষাত করে স্মারকলিপি প্রদান করেন। 
স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়, খুলনা জেলা বিএনপি’র সহ-ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক, মাগুরাঘোনা ইউনিয়ন ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ও ওই ইউনিয়নে বিএনপি মনোনীত সাবেক চেয়ারম্যান প্রার্থী নজরুল ইসলাম মোড়ল গত ১৭ মার্চ শনিবার মাগরিবের পর থেকে নিখোঁজ রয়েছেন। ওই দিন বিকেলে তিনি ডাক্তার দেখানোর উদ্দেশ্যে বেতাগ্রামের বাড়ি থেকে আঠারো মাইল বাজারে যান। সেখান থেকে মোটরসাইকেল ভাড়ায় নিয়ে কেশবপুর মঙ্গলকোট বাজারে ডাঃ জগদীশের চেম্বারে রওনা হন। ডাক্তার দেখিয়ে ফেরার পথে মাগরিবের কিছু সময় পরে স্থানীয় কতিপয় ব্যক্তি তার ভাড়া করা মোটরসাইকেল, চাবি ও মাথার টুপি আটলিয়া থেকে বেতাগ্রাম যাওয়ার রাস্তার ওপর পরিত্যক্ত অবস্থায় দেখতে পান। 
ভাড়ার মোটরসাইকেলের মালিক আব্দুল হালিমকে বিষয়টি জানালে তিনি বলেন, নজরুল তার কাছ থেকে মোটরসাইকেল ভাড়া করে নিয়ে গেছে। এরপর নজরুলের মোবাইল নাম্বারে ফোন দেয়া হলে নাম্বারটি বন্ধ পাওয়া যায়। সম্ভাব্য সব জায়গায় খোঁজাখুঁজি করে তার সন্ধান না পেয়ে থানা পুলিশের কাছে যাওয়া হয়। ওই দিন রাতেই নজরুলের স্ত্রী তানজিলা বেগম ডুমুরিয়া থানায় একটি জিডি করেন। নজরুলের ব্যবহৃত মোবাইল নাম্বার ট্রাকিং করে তার সর্বশেষ অবস্থান মঙ্গলকোটে পাওয়া গেছে বলে উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপি সভাপতি খান আলী মুনসুরকে জানিয়েছেন থানার ওসি। 
এতে আরো বলা হয়, আমরা খুলনা জেলা বিএনপি এবং নিখোঁজ বিএনপি নেতা নজরুলের পরিবারের সদস্যরা মনে করি, তার সন্ধান খুঁজে বের করা পুলিশ প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কর্তব্য। পরিবারের একজন কর্মক্ষম, তরুণ, প্রাণউচ্ছ্বল সদস্যকে আকস্মিক ভাবে হারিয়ে সবাই মুষড়ে পড়েছে। নজরুল ছাত্র জীবন থেকেই বিএনপি’র রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিল। তিনি ইউনিয়ন ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ও পরবর্তীতে সভাপতি হিসেবে সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি কখনো, কোনদিনও কোন আইন বিরোধী বা সমাজবিরোধী কাজের সাথে জড়িত ছিলেন না। তিনি একজন মাদ্রাসা শিক্ষক এবং ধর্মপ্রাণ মুসলিম হওয়ায় পোশাকে পরিচ্ছদে ইসলামী আকিদা পালন করতেন। তিনি এলাকায় অত্যন্ত জনপ্রিয়। গত ইউপি নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ হলে তার বিজয় ঠেকিয়ে রাখা সম্ভব হতো না। বিএনপি ঘোষিত রাজনৈতিক আন্দোলন কর্মসূচিতে অংশ নিতে গিয়ে সরকারের রোষানলে পড়ে তিনি মামলার আসামি হয়ে জেল খেটেছেন। কিন্তু এই মুহূর্তে তার নামে কোন মামলায় ওয়ারেন্ট নেই। 
সারাদেশের একের পর এক বিরোধী মতাদর্শের রাজনৈতিক নেতা-কর্মী ধারবাহিকভাবে গুম অপহরণের শিকার হওয়ার প্রেক্ষিতে আমার নজরুলের জীবনের নিরাপত্তা নিয়ে মারাত্মকভাবে উদ্বিগ্ন ও শঙ্কিত। আমরা আমাদের প্রিয় ও স্নেহধন্য নেতা নজরুল ইসলাম মোড়লকে আমাদের মাঝে ফেরত চাই।  
আশা করবো, খুলনা জেলার আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় নিয়োজিত বাহিনীর প্রধান ব্যক্তি হিসেবে আপনি এ বিষয়টি মনিটর করবেন এবং আমাদের দলের একজন নিখোঁজ নেতাকে ফিরে পেতে সহায়তা করবেন।   
এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপি  সভাপতি এড. এস এম শফিকুল আলম মনা, সাধারণ সম্পাদক আমীর এজাজ খান, অধ্যাপক ডাঃ গাজী আব্দুল হক, খান জুলফিকার আলী জুলু, এস এম মনিরুল হাসান বাপ্পী, কামরুজ্জামান টুকু, আশরাফুল আলম নান্নু, খান আলী মুনসুর, মোশারফ হোসেন মফিজ, মুর্শিদুর রহমান লিটন, রফিকুল ইসলাম বাবু, মঞ্জুর আরেফিন প্রমুখ।   
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ