খুলনা | বৃহস্পতিবার | ১৯ জুলাই ২০১৮ | ৪ শ্রাবণ ১৪২৫ |

কেমন মেয়র চাই

২৩ মার্চ, ২০১৮ ০১:২৫:০০

‘নিজের দক্ষতায় সকলের সেবক
হতে পারবেন এমন মেয়র চাই’

প্রবীণ শিক্ষাবিদ অধ্যক্ষ মাজহারুল হান্নান বলেন, “দল-মতের উর্ধ্বে উঠে কাজ করতে পারবেন তেমন ব্যক্তিকে মেয়র চাই। নগরীতে প্রায় ১৫ লাখ মানুষের বসবাস, সকলেই রাজনীতি করেন না। তবে যিনি মেয়র হন, তিনি সবার নগর পিতা। অবশ্যই বর্তমানে পছন্দের দলের মেয়র না হলে সরকারি বরাদ্দও মিলছে না। তবে মেয়রকে হতে হবে অনেক ধৈর্য্যশীল। অনেকেই অনেক কথা বলেন, বলবেন; তার মধ্যে থেকে নিজের দক্ষতায় সকলের সেবক হতে হবে। সেবক হতে পারবেন এমন মেয়র চাই।
বয়োজ্যেষ্ঠ এ শিক্ষক আরও  বললেন, “ছদ্মবেশে নিজে মহানগর ও নগরবাসীর সমস্যা প্রত্যক্ষ করবেন, এমন মানুষ মেয়র প্রার্থী হোক। কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অনেকেই ভিন্ন ধরনের তথ্য জানাবেন, কিন্তু নিজে নগরবাসীর কাছে যেতে হবে। শুধু ভোটের সময় নয়, সারাবছর নগরবাসীর কাছে যাবেন, মানুষের সাথে মিশবেন এমন সার্বজনীন ব্যক্তি নগরবাসীর বড় প্রয়োজন। তাছাড়া সীমিত সামার্থ্যরে মধ্যে সীমাহীন সমস্যা সমাধানের দৃঢ় কর্ম¯পৃহা থাকতে হবে মেয়রকে। নগরবাসীর চাহিদা কিন্তু খুব বেশি নয়, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন নগরীর, নিরাপদ মসৃন ও রাতে আলোকিত সড়ক, সুষ্ঠ ড্রেনেজ ব্যবস্থা, অবকাঠামোগত ও সামাজিক উন্নয়ন। এ কাজগুলো করতে পারলে বাকী নাগরিক সুযোগ-সুবিধাগুলো পরিপূরক, একের সাথে অন্যটি চলে আসবে। তবে সবচেয়ে বড় কথা কেসিসি মেয়রকে সব ধরনের পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে দক্ষ হতে হবে বলে অভিমত তার। 


‘মেয়র যে দল থেকে নির্বাচিত
হোক তিনি নগরবাসীর মেয়র’

জনউদ্যোগ খুলনার আহ্বায়ক এড. কুদরত-ই খুদা বলেন, “একজন মেয়র যে দল থেকেই নির্বাচিত হন না কেন, তিনি নগরবাসীর মেয়র। বাস্তবতা হচ্ছে-মেয়র যদি সরকার দলীয় হন তাহলে তিনি কাজ করার যতটুকু সুযোগ পাবেন বিরোধী দল থেকে নির্বাচিত হলে সেই সুযোগ সীমিত হয়ে পড়ে। যার প্রতিফলন দেখেছি-গত অর্থ বছরের চেয়ে এবারের (২০১৭-১৮) বছরে বাজেট কম। যেটা নজিরবিহীন। বর্তমান মেয়র নিজেই স্বীকার করেছেন-তিনি অর্থের অভাবে কাজ করতে পারেন নাই। বিদেশী অর্থ ছাড় করাতে পারেন নাই। সুতরাং কেমন মেয়র চাই, সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না। তবে মেয়র যে দল থেকেই হন না কেন, তাকে সৎ, সাহসী এবং যোগ্যতা সম্পন্ন হতে হবে।”
তিনি আরও বললেন, “খুলনা শহরে নানান সমস্যা রয়েছে। অপরিকল্পিত নগরায়ন, ড্রেনেজ অব্যবস্থপনা, নিয়ন্ত্রণহীন ইজিবাইকের যানজট, অপ্রতুল স্বাস্থ্য সেবা ব্যবস্থায় জনগণের দাবি সিটি কর্পোরেশনের একটি নগর জেনারেল হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ গ্রহণ করুক। এর জন্য প্রয়োজন এক দিকে সরকারকে প্রভাবিত করে অর্থ বরাদ্দ করানো। অন্যদিকে, দাতা সংস্থার কাজ থেকে প্রজেক্ট নেয়া। সিটি কর্পোরেশন একটি সর্ববৃহৎ স্থানীয় সরকার কাঠামো। তার ক্ষমতা আছে নিজ উদ্যোগে বিদেশি অর্থ সংগ্রহ। সে জায়গাটিতেও মেয়রের একটি বিরাট ভূমিকা রয়েছে। সবচেয়ে বড় কথা আমরা ঐ ধরনের একজন মেয়র চাই, যিনি জনগণকেই শক্তির আঁধার মনে করবেন। জনগণ যদি তাকে ভোট দিয়ে থাকে জনগণই তাকে রক্ষা করবে এই বিশ্বাস থাকতে হবে। কাজ করতে না পারলে প্রতিবাদ করতে হবে। অহেতুক ক্ষমতায় থেকে অপ্রিয় হওয়ার কোনো মানে হয় না। তাই আমরা একজন সৎ, যোগ্যতা সম্পন্ন, নির্ভিক এবং আত্মসম্মান বোধের মেয়র চাই।” 


‘জলাবদ্ধ ও মশামুক্ত সবুজ বেষ্টনির শহর
উপহার দিতে পারবেন এমন কাউকে চাই’

“আসছে বর্ষা মৌসুম, আবারও ডুবে থাকবে প্রাণের শহর খুলনা,  মহানগরীর ২২টি খাল অবৈধ দখলমুক্ত করা যায়নি। মশার যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ নগরবাসী। ইজিবাইকের কারণে যানজট ও ওয়াসার খুঁড়াখুঁড়িতে রাস্তায় বের হলে বাড়তি কষ্ট হয় মানুষের। এক কথায়- জলাবদ্ধতা, মশামুক্ত সবুজ বেষ্টনির খুলনা শহর উপহার দিতে পারবেন, এমন কাউকে মেয়র হিসেবে চাই আমরা।” এমনি অভিমত ব্যক্ত করলেন নাগরিক ফোরাম খুলনার মহাসচিব অধ্যাপক প্রদ্যুৎ রুদ্র চৈতী।
তিনি বলেন, মুখে অনেকেই অনেক কথা বলেন, প্রকৃতপক্ষে দেশের অন্য শহরের তুলনায় খুলনা মহানগরী উন্নয়নে অনেক পিছিয়ে রয়েছি আমরা। খুলনা এগোয়নি। পরিকল্পিত উন্নয়ন হয়নি। মাঝে-মধ্যে কিছু উদ্যোগ নেয়া হয়েছে-তবে তার সুফল নগরবাসী কতটুকু পেয়েছে? আসছে বর্ষাকাল, নগরবাসীর দুর্ভোগ বাড়বে। ২২টি খালের অবৈধ দখলদারদের সম্পূর্ণরূপে উচ্ছেদ করা যায়নি। দুই/তিন বছরের মধ্যে মহানগরীতে ইজিবাইকের রুট ও নীতিমালার আওতায় আনতে পারলেন না কেউ! ফুটপাতগুলোতে মানুষ হাঁটতে পারছে?  সাহসী মেয়র চাই, যিনি অপ্রয়োজনীয় সব ভেঙে চুরে নতুন রূপে খুলনাকে তিলোত্তমা নগরীতে গড়ে তুলতে পারবেন। সমগ্র নগরবাসীর স্বপ্ন বাস্তবায়নের সক্ষমতা থাকবে, নগরবাসীর নাগরিক সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করতে পারবেন এমন ব্যক্তিরা মেয়র প্রার্থী হোন। নগরবাসী এখন অনেক সচেতন, নিশ্চিয় আমরা দক্ষ ও যোগ্য ব্যক্তিকে মেয়র হিসেবে চাই। 
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ