খুলনা | বৃহস্পতিবার | ১৬ অগাস্ট ২০১৮ | ৩১ শ্রাবণ ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

ছয়জনের নাম উল্লেখ করে মামলা : আটক ৫

পাবলিক কলেজের ছাত্র রাজিন হত্যায় প্রধান অভিযুক্ত ফাহিম পলাতক

নিজস্ব প্রতিবেদক | প্রকাশিত ২২ জানুয়ারী, ২০১৮ ০০:৫৪:০০

খুলনা পাবলিক কলেজের ৭ম শ্রেণীর ছাত্র ফাহমিদ তানভীর রাজিন (১৪) হত্যাকান্ডে ৬ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ৮/১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়েছে। গতকাল রবিবার নিহতের পিতা শেখ জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে দণ্ডবিধির ১৪৩, ৩০২ ও ৩৪ ধারায় খালিশপুর থানায় মামলাটি দায়ের করেন (নং-২০)। ঘটনার পর র‌্যাব-৬ ও পুলিশ অভিযান চালিয়ে হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে ৫ জনকে আটক করেছে। তাদেরকে প্রাথমিকভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলে র‌্যাব-পুলিশ সূত্র জানিয়েছেন। এছাড়া এ হত্যাকান্ডে প্রধান অভিযুক্ত মুজগুন্নী আবাসিক এলাকার ১১নং রোডের বাসিন্দা মোঃ ফারুক হোসেনের ছেলে বয়রাস্থ খুলনা মডেল স্কুল এন্ড কলেজের ৭ম শ্রেণীর ছাত্র ফাহিম ইসলাম মনি (১৩) পলাতক রয়েছে। আটককৃতরা হলো (র‌্যাব হেফাজতে) বয়রা সবুরের মোড় এলাকার মোঃ লিয়াকত হোসেনের ছেলে মোঃ রোয়েল (১৪), পুলিশ হেফাজতে মুজগুন্নী আবাসিক এলাকার ১৪ নম্বর রোডের ১৭৭নং বাড়ির আলমগীর হোসেনের ছেলে আসিফ প্রান্ত আলিফ (১৬), খালিশপুরস্থ আফজালের মোড়ে জাফর নেভীর বাড়ির ভাড়াটিয়া মোঃ জাকির হোসেনের ছেলে মোঃ জিসান খান (১৩), বড় বয়রা মুজগুন্নী শেখপাড়া এলাকার মোঃ সাইদুল ইসলামের ছেলে মোঃ সানি ইসলাম (১৪) ও বড় বয়রা মেইন রোডের ২৬৭নং বাড়ির মোঃ আহাদ হোসেনের ছেলে তারিন হাসান ওরফে রিজভী (১৩)। 
খালিশপুর থানার অফিসার ইনচার্জ সরদার মোশাররফ হোসেন জানান, হত্যাকান্ডের ঘটনার পরপরই একাধিক টিম গঠনের মাধ্যমে গভীর রাত পর্যন্ত অভিযান পরিচালনা করে ৪ জনকে আটক করা হয়। তাদেরকে থানায় রেখে প্রাথমিকভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এঘটনায় গতকাল নিহতের পিতা বাদী হয়ে ৬ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ৮/১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন। 
মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণীর বরাত দিয়ে ওসি সরদার মোশাররফ হোসেন বলেন, খুলনা মডেল স্কুল এন্ড কলেজের ৭ম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করতো মুজগুন্নী আবাসিক এলাকার ১১নং রোডের বাসিন্দা মোঃ ফারুক হোসেনের ছেলে ফাহিম ইসলাম মনি। পাবলিক কলেজের ৭ম শ্রেণীর ছাত্র ফাহমিদ তানভীর রাজিন-এর প্রতিবাদ করার কারনে তাদের মধ্যে পূর্ব থেকে মনমালিন্য চলছিল। ২০ জানুয়ারি রাতে কলেজের অনুষ্ঠান স্থলের গ্রিন রুমের পাশে বুকে ছুরিকাঘাত করে রাজিনকে হত্যা করা হয়। 
র‌্যাব-৬’র স্পেশাল কোম্পানি কমান্ডার (সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার) মোঃ এনায়ের হোসেন মান্নান জানান, নিহতের পরিবারে সূত্র থেকে সম্ভব্য অভিযুক্তদের ধরতে অভিযান পরিচালনা করা হয়। মোঃ রোয়েল (১৪)-কে আটক করা হয়েছে। সে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হত্যাকান্ডের ঘটনার কথা স্বীকার করেছে। তাকে খালিশপুর থানায় হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে বলেও জানান তিনি।   
খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডাঃ শফিউজ্জামান বলেন, ছুরিকাঘাতে রাজিনের ফুসফুস ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। মৃত্যুর কারণ হিসেবে প্রাথমিকভাবে এই বিষয়টিকেই প্রধানত কারন হিসেবে ধরা হচ্ছে। তবে ফরেনসিক রিপোর্ট সম্পন্ন হলে বাকি টুকু জানা যাবে। 
 

বার পঠিত

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ












হারে শেষ প্রোটিয়াদের লঙ্কা সফর

হারে শেষ প্রোটিয়াদের লঙ্কা সফর

১৬ অগাস্ট, ২০১৮ ০০:৫৭