খুলনা | সোমবার | ২৩ জুলাই ২০১৮ | ৮ শ্রাবণ ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

মাওলানা সাদ’র ঢাকা ত্যাগ

বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বের আখেরি মোনাজাত আজ

খবর প্রতিবেদন | প্রকাশিত ১৪ জানুয়ারী, ২০১৮ ০১:০৪:০০

টঙ্গীর তুরাগ তীরে কড়া নিরাপত্তায় দ্বিতীয় দিনের মতো শনিবার চলে ৫৩তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। ভোর থেকেই লাখ লাখ মুসলি¬ মুরুব্বিদের বয়ান শুনেন। এবার ইজতেমায় অর্ধ শতাধিক দেশের মেহমান ছাড়াও দেশের ১৬টি জেলার কয়েক লাখ মুসল্লি¬ অংশ নিচ্ছেন। তবে কয়েক দিনের টানা শৈত্যপ্রবাহ আর ঘন কুয়াশায় দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন এসব মুসল্লি¬। শীতের প্রকোপে এরই মধ্যে অনেক মুসল্লি¬ ঠান্ডা জনিত নানা রোগে আক্রান্ত হয়েছেন। বার্ধক্যজনিত কারণে এক মালয়েশীয় মুসল্লির মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।
বিশ্ব ইজতেমার মুরব্বি প্রকৌশলী গিয়াস উদ্দিন জানান, রবিবার যোহরের নামাজের আজানের আগে আখেরি মোনাজাতের মধ্যদিয়ে শেষ হবে প্রথম ধাপ। এরপর ১৯ জানুয়ারি থেকে দ্বিতীয় ধাপের তিন দিনব্যাপী ইজতেমা শুরু হবে। একই ভাবে ২১ জানুয়ারি দুপুরে সকল মানষের সুখ, শান্তি, কল্যাণ, অগ্রগতি, ভ্রাতিত্ববোধ ও মঙ্গল কামনা করে আখেরি মোনাজাতের মধ্যদিয়ে শেষ হবে ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব। 
বিশ^ ইজতেমার প্রথম পর্ব গত শুক্রবার বাদ ফজর জর্দানের মাওলানা শায়েখ ওমর খতিবের আমবয়ানের মধ্যদিয়ে শুরু হয়। তাবলিগ জামাত বরাবরের মতো এবারো টঙ্গীর তুরাগতীরে ইজতেমার আয়োজন করেন। আখেরি মোনাজাতে অংশ গ্রহণের লক্ষে কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে গেছে পুরো ইজতেমা ময়দান। ইজতেমার দ্বিতীয় দিনে শনিবার ভোর থেকে কয়েক লাখ মুসল্লি¬ খিত্তায় খিত্তায় অবস্থান করে ইসলামের আমল, আকিদা ও করণীয় বিষয়ে জ্যেষ্ঠ মুরব্বীদের বয়ান শুনছেন। জেলাওয়ারী খিত্তায় অবস্থান নেওয়া দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আগত মুসল্লি ছাড়াও ৭৯টি দেশের ৩ হাজার ৯১৯ জন মুুসল্লি তাদের জন্য নির্ধারিত বিদেশী নিবাসে অবস্থান করছেন। গত কয়েক দিনের প্রচন্ড শীত আর কুয়াশার কারণে দুর্ভোগে পড়েছেন মুসল্লি¬রা। সর্দি, কাশি, জ্বর, নিউমোনিয়া, হাঁপানি ও ডায়রিয়াসহ নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন তারা। তবে ধর্মীয় এ সমাবেশে অংশ গ্রহণে শীতের প্রকোপ ও রোগের ভয় কোন বাধা বলে মনে করেন না অনেক মুসল্লি¬।
মাওলানা সাদ’র ঢাকা ত্যাগ : দিল্লি¬র নিজামুদ্দিন মারকাজের জিম্মাদার মাওলানা মোহাম্মদ সাদ কান্ধলভি ঢাকা ত্যাগ করেছেন। গতকাল শনিবার দুপুর পৌনে ১২টায় জেড এয়ারওয়েজের একটি বিমানে তিনি দিল্লি¬র উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। ১৯৯৬ সালে থেকে বিশ্ব এজতেমায় নিয়মিত বয়ান ও আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করলেও এ বছর কওমী আলেম ও তাবলীগ জামাতের একাংশের বিরোধীতায় তিনি এজতেমায় অংশ নিতে পারেননি। হযরত মুসা (রাঃ) ও ওমর (রাঃ)’র উদ্ধৃতি দিয়ে করা মাওলানা সাদের বক্তব্য নিয়ে বির্তকের সৃষ্টি হয়। পরে ওই বক্তব্যের জন্য ক্ষমা চান তিনি। 
মাওলানা সাদের ঢাকা ত্যাগের বিষয়ে জানতে চাইলে রমনা থানার ওসি কাজী মাইনুল ইসলাম বলেন, মাওলানা মোহাম্মদ সাদকে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা দিয়ে আমরা বিমানবন্দরে পৌঁছে দিয়েছি।
বিমানবন্দরের আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের এএসপি তারিক আহমেদ আস সাদিক বলেন, দুপুর পৌনে ১২টার একটি ফ্লাইটে মাওলানা মোহাম্মদ সা’দ ঢাকা ত্যাগ করেছেন।
আখেরি মোনাজাত বাংলায় : ভারতের মাওলানা মোহাম্মদ সাদ কান্ধলভি বিশ্ব ইজতেমায় উর্দুতে বয়ান করা ছাড়াও একই ভাষায় আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করতেন। কিন্তু এবার আখেরি মোনাজাত ও হেদায়াতি বয়ান দু’টোই হবে বাংলায়।
বিশ্ব ইজতেমার মুরুব্বী প্রকৌশলী মোঃ গিয়াস উদ্দিন জানান, এবার বিশ্ব ইজতেমায় আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করবেন বাংলাদেশের কাকরাইলের মাওলানা হাফেজ জোবায়ের। আখেরি মোনাজাতের আগে হেদায়তি বয়ান হয়, তা করবেন বাংলাদেশি মাওলানা আব্দুল মতিন। গত শুক্রবার রাতে তাবলিগ জামাতের মুরুব্বীদের নিয়ে এক বৈঠকে ওই সিদ্ধান্ত হয়েছে। তবে তাবলিগ জামাতের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অপর এক শীর্ষ স্থানীয় মুরুব্বি বলেন, আখেরি মোনাজাত হবে আরবিতে কিংবা উর্দুতে।
উল্লেখ্য, প্রায় ১০০ বছর আগে ইসলামের দাওয়াতি কাজকে ত্বরান্বিত করতে মাওলানা ইলিয়াছ শাহ (রহঃ) দিল্লি¬র নিজামুদ্দিন মসজিদ থেকে তাবলিগের কাজ শুরু করেন। মাওলানা ইলিয়াছের (রহঃ) ছেলে মাওলানা হারুন (রহঃ)। তারই ছেলে হলেন মাওলানা সাদ কান্ধলভী। ২০১৫ সাল থেকে মাওলানা সাদ আখেরি মোনাজাত পরিচালানা করে আসছেন। এর আগে তিনি টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে শুধু তাবলিগের বয়ান দিতেন।


 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ