খুলনা | মঙ্গলবার | ২৩ জানুয়ারী ২০১৮ | ৯ মাঘ ১৪২৪ |

Shomoyer Khobor

উদ্দেশ্যে কাউন্সিলর প্রার্থী নিয়ে দর কষাকষি

কেসিসি নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী দিতে পারে ‘কৌসুলি’ জামায়াত

আশরাফুল ইসলাম নূর | প্রকাশিত ১৪ জানুয়ারী, ২০১৮ ০২:০০:০০

আসন্ন খুলনা সিটি কর্পোরেশন (কেসিসি) নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী দিতে পারে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী। প্রতীক ও নিবন্ধন বিচারাধীন রাজনৈতিক দলটি স্বতন্ত্র প্রার্থীর আবরণে নির্বাচনী মাঠে থাকতে প্রক্রিয়া চালাচ্ছে বলে একাধিক সূত্র জানিয়েছেন। জোট শরীক জামায়াতের প্রার্থী দেয়া নিয়ে দুর্ভাবনায় বিএনপি’র দুর্গ খ্যাত খুলনার শীর্ষ নেতারা। ভোট ভাগাভাগিতে নেতিবাচক ফলাফল বয়ে আনতে পারে বলে শঙ্কা তাদের।
সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপি’র সম্ভাব্য প্রার্থী এখনো মাঠে নামেননি। এর মধ্যে জামায়াতে ইসলামীর মেয়র প্রার্থী মুহাম্মদ সেলিম উদ্দিন মিরপুর, পল্লবী ও উত্তরায় কর্মী সংযোগ করেছেন। নির্বাচন কমিশন থেকে ভোটার তালিকার সিডিও সংগ্রহ করিয়েছেন তিনি। ২০ দলীয় জোটের সিদ্ধান্তের আগেই জামায়াতের প্রার্থী মাঠে নামায় আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়েছে সর্বত্র। জনমনে কৌতুহলের সৃষ্টি হয়েছে তাহলে কি কেসিসিতেও প্রার্থী দিচ্ছে বিএনপি’র নেতৃত্বাধীন জোটের এই শরীক দলটি।
এ ব্যাপারে মহানগর জামায়াতে ইসলামীর আমির মাওলানা আবুল কালাম আজাদ বলেন, “কেন্দ্রের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় আছি। সেখানকার সিদ্ধান্ত অনুযায়ীই পদক্ষেপ নেয়া হবে। সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ রাজনীতি চর্চায় বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী সব সময় নির্বাচনমুখী।”
একাধিক সূত্র জানিয়েছে, দীর্ঘদিন রাজপথে না থেকে নেতা-কর্মীদের চাঙ্গা করতেই আসন্ন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী দেবার ঘোষনা দিয়েছে দলটি। এতে সংগঠনের নেতা-কর্মীরা সক্রিয় হবার পাশাপাশি বিএনপি’র কাছ থেকে বেশি পরিমাণ কাউন্সিলর প্রার্থীর ভাগ নেয়া যেতে পারে। ইতোমধ্যে কেসিসি’র আসন্ন নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে বর্তমান মেয়র মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মনিকে প্রাথমিকভাবে চূড়ান্ত করেছে বিএনপি। যদিও জেলা বিএনপি’র সভাপতি এড. শফিকুল আলম মনাও কেসিসি মেয়র প্রার্থী হিসেবে জোরালো দাবিদার।
মহানগর বিএনপি’র সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, “মেয়র প্রার্থী কেন্দ্র থেকে জোটগত ভাবেই ঘোষণা দেয়া হয়। খুব শিগগিরই সে ঘোষণা আসবে। এর মধ্যে জামায়াতে ইসলামী এককভাবে প্রার্থী দেবার প্রশ্নই আসে না। যেহেতু এখনো ২০ দলীয় জোটের সম্পর্ক অটুট। অল্প কিছুদিনের মধ্যেই স্পষ্ট হবে কেসিসি’র ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী।”
জেলা বিএনপি’র সভাপতি এড. শফিকুল আলম মনা বলেন, “জামায়াতে ইসলামী ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরীক দল। তাদের এককভাবে কোন প্রার্থী দেয়া মানেই আত্মঘাতি সিদ্ধান্ত হবে।”
সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, কেসিসি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের গতবারের মেয়র প্রার্থী তালুকদার আবদুল খালেক আসন্ন নির্বাচনেও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারেন। কিছুদিন পূর্বেও দলটিতে কয়েকজন সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে প্রচারণায় থাকলেও এখন তা কিছুটা থমকে গেছে। 
অপর দিকে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মাওলানা মুজাম্মিল হককে এবং জাতীয় পার্টি এস এম মুশফিকুর রহমানকে মেয়র প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করে। যদিও নগর জাতীয় পার্টির সাবেক সাধারণ সম্পাদক শেখ আবুল কাশেম হত্যা মামলার আসামি এস এম মুশফিকুর রহমান অন্যের স্ত্রীকে ফুসলিয়ে বিয়ে করায় খবর পত্রিকায় প্রকাশিত হওয়ায় নতুন বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে।
প্রসঙ্গত, ২০১৩ সালের ১৫ জুন খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন ও নির্বাচিত পরিষদের প্রথম সাধারণ সভা ২০১৩ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত হয়েছিল। সে অনুযায়ী আগামী মার্চের শেষে বা এপ্রিলের প্রথম দিকেই কেসিসি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। গেল নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মনি এক লাখ ৮০ হাজার ৯৩ ভোট পেয়ে মেয়র নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সমর্থিত তালুকদার আব্দুল খালেক এক লাখ ১৯ হাজার ৪২২ ভোট পেয়েছিলেন।


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ

ইমরুল-তুষারের ব্যাটে লড়ছে সাউথ জোন

ইমরুল-তুষারের ব্যাটে লড়ছে সাউথ জোন

২৩ জানুয়ারী, ২০১৮ ০০:২৭



ঢাকা তৃতীয় বিভাগ ফুটবল লিগ শুরু

ঢাকা তৃতীয় বিভাগ ফুটবল লিগ শুরু

২৩ জানুয়ারী, ২০১৮ ০০:২৫