খুলনা | শনিবার | ২১ এপ্রিল ২০১৮ | ৮ বৈশাখ ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

প্রতিশ্রুতি ভুলে অর্থ উপার্জনেই সাড়ে চার বছর পার কেসিসি’র অধিকাংশ কাউন্সিলরের!

আশরাফুল ইসলাম নূর | প্রকাশিত ০৫ জানুয়ারী, ২০১৮ ০২:০০:০০

ব্যক্তি ও দলীয় স্বার্থ নয়, জনগণের জন্য কাজ করে জনসেবক হওয়ার প্রতিশ্র“তি দিয়ে নির্বাচিত খুলনা সিটি কর্পোরেশন (কেসিসি) ওয়ার্ড কাউন্সিলররা। তবে প্রতিশ্র“তি অনেকটা ভুলে অধিকাংশ কাউন্সিলর অর্থ উপার্জনেই সাড়ে চার বছর কাটিয়েছেন বলে অভিযোগ ভোটারদের। টেন্ডার সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণ, লাভজনক ইজারা হাতিয়ে নেয়া, নিজ এলাকার নির্মাণ কাজে ঠিকাদারদের কাছ থেকে কমিশন, বেনামে ঠিকাদারীতে মানহীন কাজ, জবর দখল, নিয়োগ বাণিজ্য ও মাদক বিক্রেতাদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দেয়া কতিপয় কাউন্সিলরের রুটিনওয়ার্ক। অর্থ-বিত্ত-বৈভব্যের পিছনে ছুটতে গিয়ে জনবিচ্ছিন্নও হয়ে পড়েছেন তাদের অনেকেই। ক্লিন-ইমেজে নির্বাচিত কাউন্সিলরদের এলাকায় কথা বললে এমনি অভিযোগের বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে সাধারণ ভোটারদের মধ্যে থেকে। অবশ্যই সৎ ও ন্যায়পারায়ন কাউন্সিলরও রয়েছেন কেসিসিতে ।
স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে, মহানগরী ও ফুলতলা উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকার জনপ্রতিনিধিরা ঠিকাদারী, দখলবাজি ও শালিসী বৈঠক করেন বলে অভিযোগ রয়েছে। নগরীর ৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুস সালামের ভাই মোঃ নূর ইসলাম ২নং সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর সাহেদা বেগমের সচিব। ভাই কাউন্সিলর হবার সুবাদে নিজে কাজ না করে অন্য একজনকে দিয়ে দায়সারা গোচে কাজ করান তিনি। ফলে নাগরিক সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন ওয়ার্ডবাসী। দৌলতপুর থানার একাধিক কাউন্সিলর প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে ঠিকাদারী কাজ করে। মানহীন কাজ, আবার কাজ না করেও বিল উত্তোলনের অভিযোগ উঠেছিল একাধিক কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে। সর্বশেষ কোরবানীর পশুর হাট পরিচালনায় বিপুল অংকের অর্থ কেলেঙ্কারীর অভিযোগ উঠেছে খালিশপুরের একজন প্রভাবশালী কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে। সাবেক মেয়রের আস্থাভাজন একাধিকবার নির্বাচিত ওই কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে একাধিক সংবাদ সম্মেলনে মাদক বিক্রেতাদের আশ্রয়-প্রশ্রয়, জবর দখল ও সন্ত্রাসী বাহিনী পরিচালনার অভিযোগ উঠে। একই পরিবারের দু’জন জনপ্রিয় কাউন্সিলর প্যানেল মেয়র হওয়ায় কেসিসি’র বিভিন্ন পদে নিয়োগ বাণিজ্যের নিয়ন্ত্রণ অনেকটা তাদের-ই হাতের মুঠোয়। ঘাট এলাকায় ক্ষমতাসীন দলের এক কাউন্সিলর নগর ভবনের টেন্ডার সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণ, মানহীন ঠিকাদারী কাজে ও জবর দখলে সিদ্ধহস্ত। বাজার ও ঘাট শ্রমিকদের নিয়ন্ত্রণে রাখতে নিজস্ব বাহিনীও রয়েছে তার। সোনাডাঙ্গা থানাধীন এলাকার একজন কাউন্সিলর বেনামে ইজারা নিয়ে গল্লামারী লিনিয়ার পার্ক পরিচালনা করছেন। ক্লিন ইমেজে তিনবার নির্বাচিত ওই কাউন্সিলর বিশেষ পরিবারের পরিচয়ে কেসিসিতে টেন্ডার সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণ করেন। তার পার্শ্ববর্তী ওয়ার্ডের কাউন্সিলর একাধিক হত্যাসহ বিভিন্ন মামলার আসামি। টুটপাড়ার এনকে দাশ লেন সংস্কার কাজে ক্লিয়ারেন্স আটকে রেখে ঠিকাদারের হাত থেকে নগদ অর্থ নেয়ার অভিযোগ রয়েছে একজন কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে। অনেক ক্লিন ইমেজ থাকলেও কাউন্সিলর সামান্য শালিস-বিচারও করতে পারেন না বলে অভিযোগ রয়েছে লবনচরাবাসীর।
এছাড়া কয়েকজন কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে একই ধরনের অভিযোগ রয়েছে। যেমন-নিজ এলাকায় নির্মাণ কাজের ঠিকাদারী করা। অন্য কেউ কাজ করলে কমিশন ব্যতীত ক্লিয়ারেন্স না দেয়া, পরিবারের নামে-বেনামে ঠিকাদারী লাইসেন্স, মানহীন ঠিকাদারী কাজ করা, কোন কোন ক্ষেত্রে কাজ না করেও বিল তুলে নেবার অভিযোগ রয়েছে কাউন্সিলরদের বিরুদ্ধে। এছাড়া কেসিসি’র টেন্ডার সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণ, সর্বশেষ কোরবানীর পশুরহাটের আদায়কৃত হাসিলের বিশাল অর্থ ভাগবাটোয়ারা, জবর দখল ও মাদক বিক্রেতাদের আশ্রয়-প্রশ্রয় নেবার অভিযোগ রয়েছে সাধারণ ভোটারদের। নামে-বেনামে বিপুল অর্থ-সম্পদের মালিক হয়েছেন কয়েকজন কাউন্সিলর। এসব কাজ পছন্দ করেন না বলে নিয়মিত নগর ভবনেই যাতায়াত ছেড়ে দিয়েছেন কয়েকজন কাউন্সিলর।
অপরদিকে, সংরক্ষিত ওয়ার্ডের কতিপয় মহিলা কাউন্সিল সুযোগ সন্ধানী ভূমিকায় থাকেন। ঝোঁপ বুঝে কোপ মারার মতোই মুখিয়ে থাকেন সুযোগের। সুযোগ-সুবিধা মতো সাধারণ কাউন্সিলরদের সাথে ঠিকাদারী ভাগাভাগি ও নিয়োগ বাণিজ্যে যুক্ত থাকেন বলে অভিযোগ রয়েছে। সংরক্ষিত কাউন্সিলরদের মধ্যে যিনি যত জ্যেষ্ঠ, তিনি ততো বড় সুবিধাবাদী।
এ প্রসঙ্গে বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির মহাসচিব ও জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক শেখ আশরাফ উজ জামান বলেন, “নির্বাচনী প্রতিশ্র“তি যদি জনপ্রতিনিধিরা সারাবছর মনে রাখতেন, তাহলে উন্নয়নে জনগনের আশা-আকাঙ্খার প্রতিফলন ঘটে। আর নির্বাচনকালীন কমিটমেন্ট ভুলে গেলে জনপ্রতিনিধিরা জনসেবার চেয়ে অর্থ উপার্জনের দিকেই বেশি ঝুকে পড়েন। কেসিসি’র কাঙ্খিত উন্নয়ন করতে পেরেছেন কি না, তা আগামী নির্বাচনেই স্পষ্ট হবে। যদিও অনেক ন্যায়পরায়ন ও সৎ কাউন্সিলরও রয়েছেন আমাদের।”
সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) খুলনার সভাপতি অধ্যাপক আনোয়ারুল কাদির বলেন, “কেসিসি যৌথ ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত হয়। আবার প্রত্যেক কাউন্সিলর প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচিত হন। মেয়র, কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রত্যেকেই স্বাধীন। ব্যবস্থাপনাটি যৌথ কিন্তু প্রত্যেকেই স্বাধীন। এমনটি হলে কাউন্সিলররা আত্মকেন্দ্রিকতা চলে আসে। সেই আত্মকেন্দ্রিকতা তাকে দুর্নীতিগ্রস্ত করে তুলতে পারে। এ সুযোগটা তার থেকে যায়। তারই নগ্ন বহিঃপ্রকাশ হচ্ছে খুলনা সিটি কর্পোরেশনের কয়েকজন কাউন্সিলরের মাধ্যমে। তারা তো ভুলে যান নির্বাচনে জনগনের কাছে দেয়া প্রতিশ্র“তি!”
 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ