খুলনা | সোমবার | ২৩ এপ্রিল ২০১৮ | ১০ বৈশাখ ১৪২৫ |

কুয়েটে তিন শিক্ষকের চৌর্যবৃত্তি

২৭ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:১০:০০

কুয়েটে তিন শিক্ষকের চৌর্যবৃত্তি


খলিনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন শিক্ষকের বিরুদ্ধে অন্যের গবেষণা প্রবন্ধ নকল করে প্রকাশ এবং ভিন দেশের সম্মেলনে উপস্থাপন করার অভিযোগ প্রাথমিক তদন্তে প্রমাণিত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেটের ৫৮তম সভায় অভিযোগ প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হয় বলে সংবাদপত্রে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। অভিযুক্ত শিকক্ষকরা হচ্ছেন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রফেসর মুহাম্মদ মাসুদ, সহকারী অধ্যাপক আব্দুল্লাহ আল বাকী ও এনার্জী সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোঃ হাসান আলী। ২০০৪ সালে মিতসুবিশি মোটরসের টেকনিক্যাল রিভিউতে প্রকাশিত একটি গবেষণা প্রবন্ধের প্রায় শতভাগ নকল করে ওই তিন শিক্ষক ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অব মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং এবং আইসিএনআইএমই-২০১৩ এ দু’টি গবেষণা প্রবন্ধ প্রকাশ করেন। ওই প্রবন্ধের বিষয়বস্তু ফলাফলসহ অন্য লেখকের গবেষণা সঙ্গে প্রায় শতভাগ মিল পাওয়া যায়। প্রাথমিকভাবে ওই তিন শিক্ষকের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন ও করা হয়েছে। ঢাবি’র পর কুয়েটে একটি কলঙ্কজনক অধ্যায়ের সৃষ্টি হল। যা অত্যন্ত লজ্জাকর। শিক্ষকদের কাছ থেকে এ ধরনের চৌর্যবৃত্তি আশা করা যায় না। শিক্ষকদের কাছ থেকে সুশিক্ষা, নীতি, নৈতিকতা, মানবিক মূল্যবোধ ও সৃজনশীলতা আশা করি। প্রত্যাশার বিপরীত হয়েছে। সুনাম অর্জনের জন্য মেধার চর্চা করা প্রয়োজন সারা দেশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নৈরাজ্য অবস্থা চলছে। প্রশ্নপত্র ফাঁস নিয়ে লঙ্কাকান্ড হচ্ছে। বেতন বৈষম্য অবসানে অনশন হচ্ছে। এত কিছুর মধ্যে কুয়েট থেকে দু:সংবাদ ছড়িয়ে পড়েছে। এ সংবাদের দুর্গন্ধ বেশি। বড় ধরনের দুর্নীতি। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে প্রকৃত ঘটনা সমাজের কাছে তুলে ধরা হোক। যাতে পরবর্তীতে এমন কুকীর্তি আমাদের আর শুনতে না হয়।

 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ






বিদায় ১৪২৪ স্বাগত ১৪২৫

বিদায় ১৪২৪ স্বাগত ১৪২৫

১৪ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:৫৬








ব্রেকিং নিউজ