খুলনা | মঙ্গলবার | ২৩ অক্টোবর ২০১৮ | ৮ কার্তিক ১৪২৫ |

Shomoyer Khobor

বাদ পড়েছেন আংশিক কমিটির সহ-সভাপতি ও সাংগঠনিক সম্পাদক : ক্ষোভ-হতাশা

আন্দোলন-সংগ্রামে নিষ্ক্রীয়, প্রবাসী ও বিতর্কিতরা জেলা বিএনপি’র বড় পদে!

মোহাম্মদ মিলন | প্রকাশিত ১২ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:৫৭:০০

খুলনা জেলা বিএনপি’র পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে পদ বঞ্চিতদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ ও উত্তেজনা বিরাজ করছে। আংশিক কমিটি দেবার ১০ মাস পর গত ৬ ডিসেম্বর জেলা বিএনপি’র ১৮১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটির অনুমোদন দেয় কেন্দ্র। কমিটিতে গুরুত্বপূর্ণ পদ পাওয়া অধিকাংশ নেতাকে তৃণমূলের কর্মীরা চেনেন না। আন্দোলন-সংগ্রামেও ছিলেন নিষ্ক্রীয়। প্রবাসে থেকেও পেয়েছেন দায়িত্বশীল পদ। বিতর্কিত ব্যক্তিরাও রয়েছেন এ কমিটির বড় পদে। অথচ দীর্ঘদিন আন্দোলন-সংগ্রামে থেকে হয়রানিমূলক মামলায় জর্জরিতরা হয়েছেন পদ বঞ্চিত। আবার আংশিক কমিটি থেকে বাদ দেয়া হয়েছে কয়েকজনকে।
দলীয় সূত্রমতে, গত ১৩ ফেব্র“য়ারি এড. শফিকুল আলম মনাকে সভাপতি ও আমীর এজাজ খানকে সাধারণ সম্পাদক করে জেলা বিএনপি’র আংশিক কমিটি ঘোষণা করেছিল কেন্দ্র। গত ৬ ডিসেম্বর ১৮১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন দেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
দলের তৃণমূল নেতা-কর্মীরা জানান, ২০১৫ সালের ২৯ মার্চ হেলিকপ্টার চড়ে কয়রার সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান বেল্টুর বাড়িতে দুপুরের খাবার খেয়েছিলেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি বদিউল আলম সোহাগ। স্থানীয় ক্ষমতাসীনদের সাথে সখ্যতা বজায় রাখা এই জনপ্রতিনিধি বিএনপি’র দুঃসময়ে সংস্কারপন্থী হিসেবে খ্যাত ছিলেন। সেই মনিরুজ্জামান বেল্টুকে সদ্য ঘোষিত কমিটিতে শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক পদ দেয়ায় কয়রার নেতা-কর্মীরা ব্যাপক ক্ষুব্ধ।
তৃণমূলের অভিযোগ, যারা কোন সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডে অংশ নেননি তারাই বড় পদ পেয়েছেন। আন্দোলন-সংগ্রামে দলের মিছিল বা কর্মসূচিতে দেখা না গেলেও কমিটির গুরুত্বপূর্ণ পদে কিভাবে তারা স্থান করে নিলেন? সহ-সভাপতি ওয়াহিদ হালিম ইমরান, দপ্তর সম্পাদক এসএম মুর্শিদুর রহমান লিটন, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক শাহনাজ ইসলাম, পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক কাজী মিজানুর রহমান, অর্থনৈতিক বিষয়ক সম্পাদক আরিফুর রহমান আরিফসহ অন্তত দু’ডজন নেতা অতীতে কখনোই বিএনপি’র পদে ছিলেন না। অতি অল্পদিন রাজনীতিতে এসে জেলা বিএনপির প্রচার সম্পাদক হয়েছেন ওয়াহিদুজ্জামান রানা। প্রকাশনা সম্পাদক পদ পাওয়া শেখ হাফিজুর রহমানকে চেনেন না কমিটির অন্য নেতারাও।
আবার, এক সময় বিতর্কিত সংগঠনের সাথে জড়িত ছিলেন বলে অভিযোগ থাকা গাজী জাহিদুর রহমান ওরফে জাহিদ গাজীকে ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক পদ দেয়া হয়েছে।
সূত্রমতে, এরআগে আংশিক কমিটিতে সিনিয়র সহ-সভাপতি এড. গাজী আব্দুল বারী জেলা বিএনপি’র সভাপতি পদ প্রার্থী ছিলেন। তাকেও পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে রাখা হয়নি। এছাড়া তিন নম্বর সাংগঠনিক সম্পাদক মোল্লা মোশাররফ হোসেন মফিজের স্থান হয়নি এ কমিটিতে। আবার, শুধু সভাপতির ব্যক্তিগত ক্যামেরাম্যান কাজী ওয়াইজ উদ্দিন সান্টু পেয়েছেন তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক পদ। আর রাজনীতিতে নিষ্ক্রীয় থেকেও ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প বিষয়ক সম্পাদক হয়েছেন জিএম মিজানুর রহমান লিটন। যুক্তরাষ্ট্র থেকে জেলা বিএনপি’র প্রবাসী কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক হয়েছেন জাকির হাওলাদার। এছাড়া বিদেশে থেকেও মেহেদী কবীর সুমন সহ-প্রবাসী কল্যাণ সম্পাদক ও মঞ্জুরুল আহসান পল্টু সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক পদ পেয়েছেন।  
এ ব্যাপারে জেলা বিএনপি’র সভাপতি শফিকুল আলম মনা বলেন, “নিষ্ক্রীয়তার কারণে এড. আব্দুল বারী বাদ পড়েছেন। এক নেতার এক পদ নীতি বাস্তবায়নে কয়েকজন নেতাকে জেলা কমিটিতে রাখা হয়নি। কমিটিতে আমার পছন্দের কোন বিশেষ ব্যক্তি নেই। বিগত দিনের মূল্যায়নে কমিটি করা হয়েছে।”
সদ্য সাবেক কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি এড. গাজী আব্দুল বারী বলেন, জেলা বিএনপি’র সভাপতি অধ্যাপক মাজিদুল ইসলামের অবর্তমানে দায়িত্বপালন করেছি। ৬ বছর জেলার সকল কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছি। নগর ও জেলার যৌথ কর্মসূচিতেও দায়িত্ব পালন করেছি। বিগত আন্দোলন সংগ্রামে স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নিয়েছি। অথচ সেই সময়ে অনেকেই ছিল না, তারা এখন দায়িত্বশীল পদ পেয়েছেন। তিনি আংশিক কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি হলেও কমিটিতে কেন নেই সে বিষয়ে বলেন, কমিটির বিষয়ে আমার সাথে কোন আলোচনা করা হয়নি। এ কমিটির অধীনে রাজনীতি করা যায় না।
জেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক আমির এজাজ খান বলেন, কমিটি শতভাগ সুন্দর হবে-সেটা আশা করাও ঠিক না। ভুল-ত্র“টি কিছু আছে, আমরা সেগুলো শোধরানোর চেষ্টা করছি।

 

 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ


নির্বাচনী ট্রেনে আওয়ামী লীগ

নির্বাচনী ট্রেনে আওয়ামী লীগ

০৭ অক্টোবর, ২০১৮ ০১:৩০









খুলনা-৪ আসনে নৌকার মাঝি কে?

খুলনা-৪ আসনে নৌকার মাঝি কে?

০১ অগাস্ট, ২০১৮ ০২:৩০



ব্রেকিং নিউজ





যশোরে সাংবাদিক নোভার  আত্মহত্যা

যশোরে সাংবাদিক নোভার  আত্মহত্যা

২৩ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:৫৬