খুলনা | বৃহস্পতিবার | ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭ | ৩০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪ |

Shomoyer Khobor

নগর জুড়ে অপরিকল্পিত বিলবোর্ড! বাড়ছে ঝুঁকি, ঘটছে সৌন্দর্যহানি

এস এম আমিনুল ইসলাম | প্রকাশিত ০৪ অক্টোবর, ২০১৭ ০২:০৫:০০

নগরীর শিববাড়ী মোড়ে আধুনিক রেলস্টেশনের বাউন্ডারী ওয়ালের সাথে সংযুক্ত করে ফুটপাতের উপর নির্মাণ করা হয়েছে আকাশ ছোঁয়া বিলবোর্ড। খুলনা সিটি কর্পোরেশনের কাছ থেকে  ৩০ ফুট দৈর্ঘ্য এবং ১৫ ফুট প্রস্থের অনুমোদন নিয়ে ১০৩ ফুট দৈর্ঘ্য এবং ১৮ ফুট প্রস্থ পরিসরে মার্ট এন্টারপ্রাইজ নামে একটি বিজ্ঞাপনী সংস্থা ওই বিলবোর্ড স্থাপন করেছে। ফলে নির্মাণাধীন দৃষ্টিনন্দন ওই রেলস্টেশনের সৌন্দর্য ঢাকা পড়েছে। পাশাপাশি পথচারীদের নিরাপদ চলাচলেও ঝুঁকি তৈরি হয়েছে।
ওই একই মোড়ের পাবলিক হলের ঠিক সামনে ৭/৮ মাস আগে বন্ধু মিডিয়া নামে একটি প্রতিষ্ঠান বিলবোর্ড নির্মাণ করে। মাসিক ৩০ হাজার টাকা চুক্তিতে কর্পোরেশনের কাছ থেকে অনুমোদন নিয়ে ওই বিলবোর্ড স্থাপন করলেও সংস্থাটি এখনও আর রাজস্ব প্রদান করছে না। ফলে কেসিসি মোটা অঙ্কের টাকা রাজস্ব হারাচ্ছে। অন্যদিকে পাবলিক হলের রূপও ঢাকা পড়েছে।
শুধু শিববাড়ী মোড়স্থ এই দু’টি বিল বোর্ড নয়, বিউটিফিকেশনের নামে নগরীর বিভিন্ন দৃষ্টিনন্দন স্থাপনার গায়ে, সড়কের দু’পাশে ও আইল্যান্ডে অপরিকল্পিতভাবে বৈধ-অবৈধভাবে স্থাপন করা হচ্ছে মিনি পোল, ইউনি পোল ও বিলবোর্ড। প্রাকৃতিকসহ নানা কারনে অনেক সময় এসব বিলবোর্ডগুলো সড়কের উপর ভেঙ্গে ও হেলে পড়ে। ফলে সড়ক দিয়ে স্বাভাবিক যানবাহন চলাচল অনেক সময় ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ে। অন্যদিকে নগরীর সৌন্দর্যহানিও ঘটছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, খুলনা সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন মোট  ১ হাজার ২শ’ ১৫টি সড়ক রয়েছে। এসব সড়কের দু’পাশে আবার অনেক সড়কের মাঝে আইল্যান্ডে বিভিন্ন বিজ্ঞাপনী সংস্থা বৈধ-অবৈধভাবে  মিনি পোল, ইউনিপোল ও আকাশ ছোঁয়া বিলবোর্ড স্থাপন করে ব্যবসা পরিচালনা করছে। এ ছাড়া নগরীর অনেক বাড়ির ছাদের উপরও এ বিলবোর্ড স্থাপন করা হয়েছে। নগর জুড়ে অপরিকল্পিতভাবে স্থাপিত এসব বোর্ড মানুষের প্রাণহানিসহ দুর্ঘটনার বড় কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।
নগরীর একাধিক বাসিন্দা জানান, গত বছর খুলনা বিভাগের উপর দিয়ে প্রবল বেগে বয়ে যাওয়া ঝড়ে নগরীর সোনাডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ডে ২টি ও  জোড়াগেট, নিরালা, শিববাড়ী, গল্লামারী, ডাকবাংলা, বয়রা, নিউমার্কেটসহ বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ এলাকার বিলবোর্ড সড়কের উপর ভেঙ্গে ও হেলে পড়ে। ফলে স্বাভাবিক যানবাহন চলেচলে বিঘœ ঘটে।
বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির মহাসচিব শেখ আশরাফ উজ জামান বলেন, সড়কের দু’পাশ ও আইল্যান্ডে স্থাপিত এসব বিলবোর্ডে প্রাণহানিসহ বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা থাকে। তাছাড়া এসব বিলবোর্ড যানবাহন চলাচলে বিঘœসহ শহরের অনেক দৃষ্টিনন্দন স্থাপনার সৌন্দর্যও নষ্ট করে। সরকারের নির্দেশনাও রয়েছে সড়কের পাশে কোন বিল বোর্ড রাখা যাবে না। তাই বিজ্ঞাপনী প্রতিষ্ঠানকে এ বিষয়ে সচেতন হতে হবে। পাশাপাশি জনস্বার্থে কর্পোরেশনের উচিত সড়কের পাশ থেকে ঝুঁকিপূর্ণ বিলবোর্ড অপসারণ করা।
খুলনা সড়ক ও জনপথ বিভাগের এস্টেট অফিসার মোঃ শরিফুল ইসলাম বলেন, নগরীর শিববাড়ী মোড়ে স্থাপিত বিলবোর্ডটি সড়ক বিভাগের জায়গায় করা হয়েছে। কিন্তু সড়ক বিভাগের কোন অনুমতি নেয়া হয়নি। তাই অচিরেই ওই বিলবোর্ড অপসারণ করা হবে।
সিটি কর্পোরেশনের প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা আরিফ নাজমুল হাসান জানান, ব্যস্ততম সড়ক ও জনবহুল এলাকায় বিলবোর্ড গুলো ঝুঁকির তৈরি করে। তাই সিটি কর্পোরেশন এলাকায় যত্রতত্র অবৈধ বিলবোর্ড থাকবে না।  প্রয়োজনে বিলবোর্ড অপসারণের জন্য মেয়রের সাথে আলোচনা করে নতুন নীতিমালা তৈরি করা হবে।
নগর পরিকল্পনা উন্নয়ন কমিটির চেয়ারম্যান ও কেসিসি কাউন্সিলর আশফাকুর রহমান কাকন বলেন, কিছু বিজ্ঞাপনী সংস্থা নগরীর সৌন্দর্য বর্ধনে বিনা টাকায় কাজ করছে। তাই তাদের টিকিয়ে রাখতে এবং আরও কাজ করার সুযোগ তৈরিতে কিছু বিলবোর্ডের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি এর মাধ্যমে কর্পোরেশন মোটা অঙ্কের রাজস্বও আয় করছে।

 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ

শহিদ বুদ্ধিজীবী দিবস আজ

শহিদ বুদ্ধিজীবী দিবস আজ

১৪ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:৪৫