খুলনা | সোমবার | ২২ জানুয়ারী ২০১৮ | ৯ মাঘ ১৪২৪ |

শিরোনাম :

Shomoyer Khobor

খুলনায় কৃষি ব্যাংকের ২০ শাখায় খেলাপী ঋণ ৪৯ কোটি

মোহাম্মদ মিলন | প্রকাশিত ১৮ এপ্রিল, ২০১৭ ০১:৫১:০০

খুলনায় কৃষি ব্যাংকের ২০টি ব্রাঞ্চে খেলাপী ঋণের পরিমাণ ৪৯ কোটি টাকা। ঋণগ্রহীতাদের মধ্যে খেলাপীর সংখ্যা ১৮ হাজার ৫৫ জন। অতিবৃষ্টি, অনাবৃষ্টি, ফসলে পোকার আক্রমণ, ফসল নষ্ট ও প্রভাবশালী মহলের ঋণ পরিশোধে অনীহার কারণে খেলাপী ঋণের সংখ্যা বাড়ছে। এসব টাকা আদায়ের ক্ষেত্রে ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেগ পেতে হচ্ছে। যার মধ্যে প্রভাবশালী মহল ঋণ পরিশোধ করতে চায় না বলে ব্যাংকের কর্মকর্তাদের অভিযোগ। দীর্ঘদিনের ঋণীদের কয়েক দফা নোটিশ প্রদান করে না পেয়ে তাদের বিরুদ্ধে আইনের আশ্রয় নিতে হয়। এ পর্যন্ত ৬২৯টি মামলা দায়ের করেছে কৃষি ব্যাংক কর্তৃপক্ষ।
ব্যাংকের মুখ্য আঞ্চলিক কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, খুলনা জেলায় ব্যাংকের ২০টি শাখা রয়েছে। এগুলো হচ্ছে পাইকগাছা, শাহপুর, লবণচরা, দাকোপ, দৌলতপুর, ফুলতলা, জায়গীরমহল (কয়রা), তেরখাদা, ডুমুরিয়া, বটিয়াঘাটা, রূপসাঘাট, বিরাট (বটিয়াঘাটা), বারাকপুর (দিঘলিয়া), জামিরা (ফুলতলা), কয়রা, কাজদিয়া (রূপসা), কেডিএ, নিউ মার্কেট, চাঁদখালী (পাইকগাছা) ও নলিয়ান (দাকোপ)। ব্যাংকের এসব শাখায় ১ কোটি ৩৬ হাজার ১৫৪ জন গ্রাহক রয়েছে। যার মধ্যে ১০ টাকার আমানতের গ্রাহক রয়েছে প্রায় ৮০ হাজার। এর মধ্যে শুধুমাত্র ঋণ গ্রহীতা রয়েছে ৪৪ হাজার ৪৫৪ জন। এদের ঋণের পরিমাণ ৩৮৬ কোটি টাকা। ঋণগ্রহীতাদের মধ্যে খেলাপী রয়েছে ১৮ হাজার ৫৫ জন। আর খেলাপী ঋণের পরিমাণ ৪৯ কোটি টাকা। এ বছর খেলাপী ঋণের পরিমাণ বেশী হয়েছে। এবার খেলাপী ঋণের পরিমাণ প্রায় ১৫ কোটি টাকা। গেল বছর অনাবৃষ্টির কারণে কৃষক, চাষি, খামারীরা লোকসানের কবলে পড়ার কারণে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে ব্যাংকের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।  
দিঘলিয়া উপজেলার বারাকপুর ব্রাঞ্চের ব্যবস্থাপক এম এম শহিদুল ইসলাম বলেন, দীর্ঘদিনের ঋণ গ্রহীতাদের কাছ থেকে টাকা আদায়ের ক্ষেত্রে কিছুটা দুর্ভোগে পড়তে হয়। তার ব্রাঞ্চে ১৮ হাজার গ্রাহক রয়েছে। যার মধ্যে ১ কোটি ৬০ লাখ টাকা ঋণ খেলাপী হয়েছে। তিনি বলেন, গেল বছর অতিবৃষ্টির কারণে ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। যে কারণে কৃষকরা ঋণের টাকা পরিশোধে ব্যর্থ হচ্ছে। তবে এবার ভালো ফসল হলে তারা এসব টাকা পরিশোধ করবে।   
শাহপুর ব্রাঞ্চের ব্যবস্থাপক মশিউর রহমান বলেন, তার ব্রাঞ্চে খেলাপী ঋণের পরিমাণ কমেছে। ৩২ লাখ টাকার মতো ঋণ খেলাপী রয়েছে। যা আদায়ে চেষ্টা চলছে।
খুলনা কৃষি ব্যাংকের মুখ্য আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক মোঃ টিপু সুলতান এ প্রতিবেদককে জানান, ব্যাংকের ২০ শাখায় ১৮ হাজার ৫৫ জন ঋণগ্রহীতার কাছে খেলাপী ঋণের পরিমাণ প্রায় ৪৯ কোটি টাকা। গ্রহীতাদের ঋণের টাকা আদায়ে মাঠ পর্যায়ে ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও মাঠকর্মীরা নানা কাজ করছেন। জেলার বিভিন্ন স্কুল, কলেজ ও মাঠে ক্যাম্পের মাধ্যমে এসব অর্থ আদায়ের কাজ চলছে। অনেকের বাড়ি বাড়ি যেয়ে তাগিদ দেয়া হচ্ছে। দীর্ঘদিনের ঋণীদের নোটিশ প্রদান করা হচ্ছে। আর যারা ঋণ পরিশোধে অনীহা প্রকাশ করে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। এ পর্যন্ত ৬২৯টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। তিনি বলেন, গেল বছর অতিবৃষ্টির কারণে এবার খেলাপী ঋণের পরিমাণ বেড়েছে। এ বছরই প্রায় ১৫ কোটি টাকা ঋণ খেলাপী হয়েছে। তবে এ বছর ফসল ভালো হলে এসব ঋণের টাকা আদায় হবে বলে তিনি আশাবাদী।  

 


পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন




আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ